ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   ফাটা গোড়ালির জন্য ২০টি ঘরোয়া উপায়

ফাটা গোড়ালির জন্য ২০টি ঘরোয়া উপায়

নভেম্বর ২৬, ২০২০ - ৬:০৪ অপরাহ্ণ

শীতের হিমেল বাতাসে ত্বক হয়ে পড়ে শুষ্ক ও প্রাণহীন। বিশেষ করে যাদের ত্বক শুষ্ক, তারা শীতে পায়ের গোড়ালি ফাটার সমস্যায় ভোগেন। গোড়ালি ফাটা রোধে এখন থেকেই যত্ন জরুরি।

১. কলার মাস্ক

এই সাধারণ কলার মাস্কটি আপনার ফাটা গোড়ালি নরম করতে সহায়তা করবে।

আপনার যা দরকারঃ ২টি কলা

পদ্ধতিঃ
দুটি কলা একটি মসৃণ পেস্ট তৈরি না হওয়া পর্যন্ত ম্যাস করুন
আপনার ফাটল গোড়ালিতে মনোনিবেশ করে এবং আপনার পায়ের বুড়ো আঙ্গুলের ও নখের পাশে দিয়ে আপনার পায়ে প্রয়োগ করুন
এটি ১৫ মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং আপনার পা ধুয়ে ফেলুন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ যতক্ষণ না আপনি কোনও উন্নতি লক্ষ্য করেন ততক্ষণ প্রতি রাতে এটি করুন।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ কলা ত্বকের একটি দুর্দান্ত ময়েশ্চারাইজার। এতে ভিটামিন এ, বি৬, এবং সি রয়েছে যা ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা ও হাইড্রেশন বজায় রাখার জন্য দুর্দান্ত।

সাবধানতার টিপসঃ নিশ্চিত করুন যে আপনি পাকা কলা ব্যবহার করেছেন, কারণ কাঁচাগুলিতে এমন একটি অ্যাসিড রয়েছে যা আপনার ত্বকের প্রতি কঠোর হতে পারে।

২. মধু, চাল গুঁড়ি এবং অ্যাপল সিডার ভিনেগার স্ক্রাব

মৃত ত্বকের কোষ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য এক্সফোলিয়েশন একটি দুর্দান্ত উপায়।

আপনার যা দরকারঃ এক চা চামচ মধু, ৩ চা চামচ চালের গুঁড়ি,২টি ড্রপ অ্যাপল সিডার ভিনেগার

পদ্ধতিঃ
ঘন পেস্ট তৈরি করতে উপাদানগুলি নাড়ুন
আপনার পা গরম জলে ১০ মিনিটের জন্য ভিজিয়ে রাখুন
আলতো করে আপনার পায়ে পেস্টটি স্ক্রাব করুন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ এক্সফোলিয়েটিং সপ্তাহে দু’বার বা তিনবার করা উচিত।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ মধু ত্বকের জন্য একটি দুর্দান্ত প্রাকৃতিক অ্যান্টিসেপটিক, এবং চালের গুঁড়ি ত্বককে এক্সফোলিয়েট করে এবং পুনরায় খনিজকরণের জন্য ভাল।

সাবধানতার টিপসঃ বেশি পরিমাণে অ্যাপল সিডার ভিনেগার ব্যবহার করবেন না কারণ এটি উচ্চ অ্যাসিডযুক্ত সামগ্রীর কারণে ত্বকে জ্বালা করে।

৩. লিস্টারিন এবং ভিনেগারে ভিজিয়ে রাখুন

আপনার পায়ের জন্য একটি দুর্দান্ত উপায় যা অত্যন্ত উপকারী।

আপনার যা দরকারঃ এক কাপ সাদা ভিনেগার, এক কাপ লিস্টারিন, ২ কাপ জল

পদ্ধতিঃ
উপাদানগুলি মিশ্রিত করুন এবং প্রায় ১৫ মিনিটের জন্য মিশ্রণটিতে আপনার পা ভিজিয়ে নিন
পিউমিস পাথর দিয়ে আপনার পাগুলি স্ক্রাব করুন
আপনার পা ধুয়ে ফেলুন এবং তাদের শুকনো করুন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ আপনার পা ভাল না হওয়া পর্যন্ত আপনি প্রতিদিন এটি করতে পারেন।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ লিস্টেরিনে অ্যালকোহল ও থাইমল রয়েছে যা টেনেল ছত্রাকের বিরুদ্ধে লড়াই করে, ত্বকে ফাটলকে প্রশমিত করে এবং প্ল্যান্টারের ওয়ার্টগুলি নিরাময় করে। ভিনেগারের হালকা অ্যাসিডগুলি শুষ্ক, মৃত ত্বককে নরম করে তোলে, এটি উত্সাহিত করা সহজ করে তোলে।

সাবধানতার টিপসঃ আপনার যদি সংবেদনশীল ত্বক থাকে তবে লিস্টারিনে ভেজালে হালকা জ্বালা হতে পারে।

৪. বেকিং সোডায় ভিজিয়ে রাখুন

বেকিং সোডা সাধারণত অনেক ডিআইওয়াই স্কিনকেয়ার রুটিনে প্রাকৃতিক এক্সফোলিয়েটার হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

আপনার যা দরকারঃ বেকিং সোডা ৩ টেবিল চামচ, এক বাটি গরম জল

পদ্ধতিঃ
প্রায় ১৫ মিনিটের জন্য জল এবং সোডা মিশ্রণে আপনার পা ভিজিয়ে রাখুন
পিউমিস স্টোন দিয়ে মুছে ফেলুন এবং স্ক্রাব করুন
ধুয়ে ফেলুন এবং শুকিয়ে নিন
ময়েসচারাইজ করুন।

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ এই বেকিং সোডা ভেজানো সপ্তাহে দু’বার ব্যবহার করা উচিত।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ বেকিং সোডা একটি দুর্দান্ত এক্সফোলিয়েটার এবং একটি প্রদাহ বিরোধী। এটি পা থেকে দুর্গন্ধ দূর করে।

সাবধানতার টিপসঃ বেকিং সোডায় আপনার অ্যালার্জি না হয় তা নিশ্চিত করার জন্য একটি প্যাচ পরীক্ষা করুন।

৫. লবণ, লেবু, গোলাপ জল এবং গ্লিসারিনে পা ভিজিয়ে রাখুন

এটি একটি প্রশংসনীয় এবং তাজা করে দেওয়ার মতো পা ভেজানো।

আপনার যা দরকারঃ ১০ ফোঁটা লেবুর রস, কাঁচা নুন, এক টেবিল চামচ গ্লিসারিন, এক চা চামচ গোলাপ জল, গরম জল, পিউমিস পাথর

পদ্ধতিঃ
হালকা গরম জলে সমস্ত উপাদান মিশিয়ে নিন
প্রায় ২০ মিনিটের জন্য আপনার পা ভিজিয়ে রাখুন
পিউমিস স্টোন দিয়ে আলতো করে স্ক্রাব করুন
ধুয়ে ফেলুন এবং শুকিয়ে নিন
ময়েসচারাইজ করুন।

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ আপনার পা আরোগ্য লাভ করা পর্যন্ত এটি প্রতিদিন করুন।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ লেবুর রসের অম্লীয় বৈশিষ্ট্য যা শুষ্ক এবং রুক্ষ ত্বক নিরাময় করে; গোলাপ জল অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টিসেপটিক; গ্লিসারিন ত্বককে নরম করে তোলে। কাঁচা নুন এক্সফোলিয়েশনকে সহায়তা করে এবং এটি একটি অ্যান্টিসেপটিকও।

সাবধানতার টিপসঃ লেবুর অম্লতায় জ্বালা করতে পারে বলে প্রথমে একটি প্যাচ পরীক্ষা করুন।

৬. প্যারাফিন মোম এবং তেল

আপনার পায়ের জন্য রাতারাতি একটি প্রশংসনীয় প্রতিকার।

আপনার যা দরকারঃ এক টেবিল চামচ প্যারাফিন মোম, ২-৩ ফোঁটা নারকেল বা সরিষার তেল

পদ্ধতিঃ
তেলের সাথে মোমের মিশ্রণ করুন এবং দুটি ভালোভাবে মিশ্রিত হওয়া পর্যন্ত গরম করুন।
মিশ্রণটি শীতল করুন এবং তারপরে পায়ে লাগান। মোজা দিয়ে ঢেকে রাখুন এবং সারা রাত রেখে দিন।

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ বিছানায় যাওয়ার আগে সপ্তাহে দু’বার এই চিকিৎসাটি ব্যবহার করুন।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ প্যারাফিন মোম একটি প্রাকৃতিক ইমোল্লিয়েন্ট এবং এটি ত্বককে নরম করে। এই প্রতিকারটি বেদনাদায়ক, ফাটা গোড়ালিগুলির জন্য বিস্ময়ের মতো কাজ করে।

সাবধানতার টিপসঃ আপনার যদি ডায়াবেটিস হয় তবে এই প্রতিকারটি বেছে নেবেন না।

৭. মধু জল

মধুর ত্বকের জন্য অনেক দুর্দান্ত উপকারিতা রয়েছে এবং এটি আপনার ফাটা গোড়ালিগুলিতে সহায়তা করবে।

আপনার যা দরকারঃ এক কাপ মধু, আধ বালতি গরম জল

পদ্ধতিঃ
জল এবং মধু মিশ্রিত করুন
প্রায় ২০ মিনিটের জন্য আপনার পা ভিজিয়ে রাখুন
শুষ্ক ও মৃত ত্বক অপসারণ করতে আপনার পায়ে আলতোভাবে স্ক্রাব করুন
ধুয়ে ফেলুন, শুকিয়ে নিন এবং ময়শ্চারাইজ করুন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ এটি প্রতিদিন করা যায়।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ মধু হল একটি দুর্দান্ত প্রাকৃতিক অ্যান্টিসেপটিক, এটি ফাটা ত্বককে পুনরূদ্ধার করতে ব্যবহৃত হতে পারে।

সাবধানতার টিপসঃ আপনার পরাগ বা মধুতে অ্যালার্জি থাকলে মধু এড়িয়ে চলুন।

৮. চা গাছের তেল মাখুন

চা গাছের তেল ত্বকের যত্নের জন্য একটি দুর্দান্ত উপাদান।

আপনার যা দরকারঃ ৫-৬ ফোঁটা চা গাছের তেল, এক টেবিল চামচ নারকেল তেল, মোজা

পদ্ধতিঃ
নারকেল এবং চা গাছের তেল মেশান
পায়ে ঘষুন
মোজা দিয়ে ঢেকে রাখুন এবং সারা রাত রেখে দিন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ আপনার পা আরোগ্য লাভ করা অবধি প্রতি রাতে এটি করুন।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ চা গাছের তেল ত্বক পরিষ্কার এবং কন্ডিশনার জন্য দুর্দান্ত।

সাবধানতা টিপঃ চা গাছের তেলকে ক্যারিয়ারের তেল মিশিয়ে দেওয়ার পরে ব্যবহার করুন।

৯. অ্যালোভেরা জেল

প্রাচীন মিশরীয়রা এর বহু সুবিধার জন্য অ্যালোভেরাকে ‘অমরত্বের গাছ’ বলে অভিহিত করে।

আপনার যা দরকারঃ অ্যালোভেরা জেল, গরম জল

পদ্ধতিঃ
১৫-২০ মিনিটের জন্য আপনার পা ভিজতে গরম জল ব্যবহার করুন
প্যাট করে শুকনো করুন
অ্যালোভেরা জেলটি আপনার পায়ে লাগান এবং মোজা পড়ুন
সারা রাত ছেড়ে দিন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ এটি প্রতিদিন করা যায়।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ অ্যালোভেরা ত্বককে নিরাময় করে এবং এতে কোলাজেন বাড়িয়ে তোলে। এটিতে রয়েছে অ্যামিনো অ্যাসিড যা ত্বককে নরম করে তোলে।

সাবধানতার টিপসঃ অ্যালোভেরা সমস্ত ত্বকের জন্য আদর্শ এবং হাইপোলোর্জিক, তাই এটি গ্রহণের কোনও সতর্কতা নেই।

১০. এপসম লবণে ভিজিয়ে দিন

আপনার পায়ে কিছুটা নোনতা ভালবাসা দিন।

আপনার যা দরকারঃ আধ কাপ ইপসোম নুন, গরম জল

পদ্ধতিঃ
নুন এবং জল মিশ্রিত করুন
এতে প্রায় ২০ মিনিটের জন্য আপনার পা ভিজিয়ে রাখুন
পিউমিস পাথর দিয়ে পা স্ক্রাব করুন
ধুয়ে ফেলুন, শুকনো করুন এবং ময়শ্চারাইজ করুন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ এটি সপ্তাহে তিনবার করা যেতে পারে।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ ক্লান্ত পায়ের জন্য এপসোম লবণ খুব সুখকর এবং এটি গোড়ালির ত্বককে নরম করতেও সহায়তা করে।

সাবধানতার টিপসঃ আপনার যদি এপসোম লবণের ক্ষেত্রে অ্যালার্জি হয়ে থাকেন তবে আপনার চুলকানি ফুটে উঠবে।

১১. ওটস এবং অলিভ মাস্ক

ওটস ত্বকের জন্য খুব ভাল, তাই তাদের সদ্ব্যবহারকে বাদ দিবেন না।

আপনার যা দরকারঃ ৪ ফোঁটা অলিভ তেল, এক টেবিল চামচ গুঁড়ো ওটস

পদ্ধতিঃ
ঘন পেস্টে উপাদানগুলি মিশ্রিত করুন
আপনার পায়ের শুকনো এবং ফাটলযুক্ত অংশগুলিতে পেস্টটি প্রয়োগ করুন
আধ ঘন্টা রেখে দিন
ধুয়ে ফেলুন, শুকনো করুন এবং ময়শ্চারাইজ করুন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ আপনার পায়ের মধ্যে কোনও পার্থক্য না দেখা পর্যন্ত একদিন অন্তর এটি করুন।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ ওটমিলে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং ময়েশ্চারাইজিং গুণ রয়েছে। ফাটা, শুকনো ত্বকের নিরাময়ের জন্য এটি ভাল।

সাবধানতার টিপসঃ ওট বা অলিভ তেল থেকে অ্যালার্জি থাকলে ব্যবহার এড়িয়ে চলুন।

১২. ভ্যাসলিন এবং লেবুর রস ঘষা

ভ্যাসলিন ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করার জন্য দুর্দান্ত।

আপনার যা দরকারঃ ৫ ফোঁটা লেবুর রস, এক চা চামচ ভ্যাসলিন

পদ্ধতিঃ
আপনার পা ১৫ মিনিটের জন্য গরম জলে ভিজিয়ে রাখুন
লেবুর রস ও ভ্যাসলিন মিশ্রিত করুন এবং আপনার পায়ে লাগান
মোজা পরে নিন এবং সারা রাতের জন্য ছেড়ে দিন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ ঘুমোতে যাওয়ার আগে প্রতিদিন এটি করুন।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ ভ্যাসলিন খুব ময়শ্চারাইজিং এবং লেবুর মধ্যে অ্যাসিডিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা আপনার ফাটলযুক্ত পা সারিয়ে তুলতে কাজ করে।

সাবধানতার টিপসঃ আপনার যদি সংবেদনশীল ত্বক থাকে তবে লেবুর রসে জ্বালা হতে পারে।

১৩. অ্যাভোকাডো তেল

অ্যাভোকাডো তেলের দুর্দান্ত নিরাময়ের বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

আপনার যা দরকারঃ এক চা চামচ অ্যাভোকাডো তেল

পদ্ধতিঃ
বিছানার আগে পায়ে তেল মাখুন
মোজা পরে এবং সারা রাত ছেড়ে দিন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ আপনার ত্বক নিরাময় না হওয়া অবধি নিয়মিত এটি করুন।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ অ্যাভোকাডো স্ক্র্যাপ, ফাটা এবং ফাটলযুক্ত ত্বকের নিরাময়ের জন্য উপযুক্ত কারণ এটিতে প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

সাবধানতার টিপসঃ আপনি যদি হাইপারসেনসিটিভ বা গর্ভবতী হন তবে অ্যাভোকাডো তেল আপনার ত্বকে জ্বালা তৈরি করতে পারে।

১৪. শেয়া বাটার

এই ময়েশ্চারাইজিং মাখনটি ত্বকের জন্য দুর্দান্ত।

আপনার যা দরকারঃ এক টেবিল চামচ শেয়া মাখন

পদ্ধতিঃ
শেয়া মাখন দিয়ে পা ম্যাসাজ করুন এবং মোজা দিয়ে ঢেকে দিন।
সারা রাত ছেড়ে দিন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ আপনার পা আরোগ্য লাভ করা পর্যন্ত প্রতিদিন ব্যবহার করুন।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ শিয়া মাখনে ভিটামিন, প্রয়োজনীয় ফ্যাটি অ্যাসিড এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা শুষ্ক ত্বক নিরাময় করতে পারে।

সাবধানতার টিপসঃ শেয়া মাখন ব্যবহার করা নিরাপদ, যদি না আপনি অ্যালার্জি না করেন।

১৫. লেবু এবং চিনির স্ক্রাব

এটি আপনার পায়ের জন্য একটি হালকা স্ক্রাব।

আপনার যা দরকারঃ একটি লেবু, অর্ধেক কাটা, চিনি

পদ্ধতি
চিনিতে লেবুর অর্ধেকটা ডুবিয়ে রাখুন এবং আলতো করে সেগুলি দিয়ে আপনার পায়ে স্ক্রাব করুন
ধুয়ে ফেলুন, শুকনো করুন এবং ময়শ্চারাইজ করুন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ আপনি কোনও উন্নতি লক্ষ্য না করা পর্যন্ত এটি প্রতিদিন করতে পারেন।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ লেবুর হালকা অম্লীয় প্রকৃতি ত্বককে নরম করে এবং চিনি মরা, শুকনো ত্বককে পা থেকে তুলে দেয়।

সাবধানতার টিপসঃ লেবুর অ্যাসিড আপনার ত্বককে জ্বালাতন করতে পারে।

১৬. ল্যাভেন্ডার এবং অলিভ তেল

ল্যাভেন্ডার একটি দুর্দান্ত নিরাময় তেল।

আপনার যা দরকারঃ এক টেবিল চামচ অলিভ তেল, ৪ ফোঁটা ল্যাভেন্ডার এসেনশিয়াল তেল

পদ্ধতিঃ
বিছানার যাওয়ার আগে ত্বকে তেল মেশান
মোজা পরুন এবং সারা রাত রাখুন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ প্রতি রাতে বিছানার যাওয়ার আগে।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ ল্যাভেন্ডার তেলের পুনরুৎপাদনশীল এবং অ্যান্টিসেপটিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ত্বককে নিরাময় করে।

সাবধানতার টিপসঃ ত্বকের জ্বালা এড়াতে সর্বদা এসেনশিয়াল তেলকে একটি ক্যারিয়ার তেল মিশ্রণ করুন।

১৭. পেপারমিন্ট স্ক্রাব

এটি একটি প্রশংসনীয় এবং শীতল প্রতিকার।

আপনার যা দরকারঃ এক কাপ কর্নমিল, এক কাপ শুকনো ওটমিল, ১/৪ কাপ মোটা সমুদ্রের লবণ, এক চা চামচ পেপারমিন্ট এসেনশিয়াল তেল

পদ্ধতিঃ
এক্সফোলিয়েটারের মতো আপনার পায়ে উপাদানগুলি ম্যাসেজ করুন
ধুয়ে ফেলুন, শুকনো করুন এবং ময়শ্চারাইজ করুন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ সপ্তাহে দু’বার বা তিনবার।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডযুক্ত, পেপারমিন্ট ত্বকের জন্য খুব পুষ্টিকর এবং শীতল হয়।

সাবধানতার টিপসঃ উপরের উপাদানগুলির যে কোনও একটিতেও আপনার অ্যালার্জি নেই তা নিশ্চিত করুন।

১৮. নারকেল তেল

এটি সবচেয়ে সহজ এবং কার্যকর প্রতিকার।

আপনার যা দরকারঃ নারকেল তেল

পদ্ধতিঃ
আপনার ত্বকে নারকেল তেলটি মালিশ করুন এবং মোজা দিয়ে ঢেকে দিন
সারা রাত ছেড়ে দিন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ প্রতি রাতে বিছানায় যাওয়ার আগে।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ নারকেল তেল আপনার ত্বককে ময়শ্চারাইজড রাখতে সহায়তা করে, অণুজীবকে মেরে ফেলে এবং নিরাময়কে উদ্দীপিত করে, ত্বককে সুস্থ রাখে।

সাবধানতার টিপসঃ আপনার যদি অ্যালার্জি থাকে তবে এটি আপনার ত্বকে জ্বালাতন সৃষ্টি করতে পারে এ বিষয়ে সচেতন থাকুন।

১৯. শালগম মাস্ক

এটি ফাটা গোড়ালি নিরাময়ের জন্য কার্যকর।

আপনার যা দরকারঃ শালগমের এক টুকরো, খোসা ছাড়ানো, কাটা এবং সিদ্ধ করা

পদ্ধতিঃ
সিদ্ধ শালগমের একটি মসৃণ পেস্ট তৈরি করুন
পায়ে লাগিয়ে কমপক্ষে ২ ঘন্টা রেখে দিন
মোজা দিয়ে ঢেকে রাখুন
ধুয়ে নিন, শুকনো করুন ও ময়শ্চারাইজ করুন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ প্রতিদিন এক সপ্তাহের জন্য, তারপর সপ্তাহে দু’বার।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ শালগম আপনার ত্বককে নিরাময় করে কারণ এটি একটি দুর্দান্ত প্রাকৃতিক জেল।

সাবধানতার টিপসঃ শালগম থেকে অ্যালার্জি থাকলে ব্যবহার করবেন না।

২০. হলুদ ও নিম তেল

হলুদ এবং নিম তাদের নিরাময়ের বৈশিষ্ট্যের জন্য পরিচিত।

আপনার যা দরকারঃ ৩ চা চামচ হলুদ, নিম তেল

পদ্ধতিঃ
নিম ও হলুদ দিয়ে পেস্ট তৈরি করুন এবং পায়ে লাগান
৩০ মিনিটের জন্য ছেড়ে দিন
ধুয়ে ফেলুন, শুকনো করুন, ময়শ্চারাইজ করুন এবং মোজা দিয়ে ঢেকে রাখুন

কত ঘন ঘন করণীয়ঃ আপনার পা আরোগ্য লাভ না করা পর্যন্ত প্রতিদিন করুন।

কিভাবে এই প্রতিকার কাজ করেঃ উভয় উপাদানগুলির মধ্যে অ্যান্টি-ফাঙ্গাল, অ্যান্টিসেপটিক এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা আপনার ত্বককে নরম করতে সহায়তা করে।

আপনার মতামত জানানঃ