ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ধর্ম   »   ঋণ পরিশোধে ইসলাম

ঋণ পরিশোধে ইসলাম

অক্টোবর ২১, ২০২০ - ৯:৩১ অপরাহ্ণ

স্বাভাবিক জীবনে আমরা প্রায়ই ঋণ আদান-প্রদান করে থাকি। রাসূলুল্লাহ (সা.) নিজেও মাঝে-মধ্যে ঋণ করতেন। এমনকি তিনি অমুসলিমদের থেকেও ঋণ গ্রহণ করতেন। এবং তা পরিশোধে করতেন।

প্রিয় নবীজি (সা.)-এর জীবনালেখ্য থেকে আমরা এ অনুগ্রহের শিক্ষা পাই। সাহাবি হজরত জাবের (রা.) বলেছেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) আমার কাছ থেকে একবার ঋণ নিয়েছিলেন। পরে যখন তিনি তা আমাকে পরিশোধ করলেন, তখন আমার পাওনার চেয়েও বাড়িয়ে দিলেন। -আবু দাউদ

এ হাদিস থেকে প্রতীয়মান হয় যে, ঋণ আদায়ের সময় নিজের পক্ষ থেকে কিছুটা বাড়িয়ে দেওয়া শুধু বৈধই নয়, বরং মুস্তাহাব ও সুন্নত। তবে এ বাড়িয়ে দেওয়াটা যেন কিছুতেই কোনো পূর্বনির্ধারিত শর্ত বা চুক্তির ভিত্তিতে না হয়। আগে থেকে এ ধরনের কোনো চুক্তি থাকলে তা সুদ হয়ে যাবে।

হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) একবার এক অমুসলিমের কাছ থেকে একটি উট কর্জ নিয়েছিলেন। তৎকালীন আরবে এ রীতি চালু ছিল। টাকা-পয়সার মতো মানুষ প্রয়োজনে উট কর্জ নিত। বয়স ও মানের দিক থেকে এমন আরেকটি উট দিয়েই এ ঋণ শোধ করতে হতো।

কিছুদিন পর ঋণদাতা হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে এসে ঋণ পরিশোধের তাগিদ দিলেন এবং কিছুটা কঠোরতা অবলম্বন করলেন। উপস্থিত সাহাবিরা তৎক্ষণাৎ প্রতিবাদের জন্য প্রস্তুত হলেন। কিন্তু হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) তাদের থামালেন এবং বললেন, তাকে কিছু বলো না। আমাদের কাছে তো তার একটি পাওনা আছে। আর পাওনাদাররা একটু শক্ত কথা বলতেই পারে। হ্যাঁ, তোমরা যদি পার, তার পাওনাটা পরিশোধের ব্যবস্থা করো। যে মানের উট সে পায়, সে মানের একটি উট কিনে এনে তাকে দিয়ে দাও। এ কথা শোনে সাহাবায়ে কেরাম অনেক খোঁজাখুঁজি করলেন, কিন্তু সে মানের কোনো উট পেলেন না। যা পেয়েছেন তা আরও ভালো মানের। হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বিষয়টি জেনে বললেন, ভালোটিই কিনে এনে তাকে দিয়ে দাও। উল্লিখিত হাদিসের ভাষ্যমতে, এখানে আরেকটি দিক প্রতিভাত হয়, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) অমুসলমানদের সঙ্গেও লেনদেন করেছেন। তাদের তুচ্ছ ও সাধারণ অধিকারগুলোকেও বেশ গুরুত্ব দিয়েছেন। তার হাতে গড়া মদিনার ইসলামি শাসনে অমুসলিমরা কী পরিমাণ নিরাপত্তা ও স্বাধীনতা পেত, এ হাদিসে তা ফুটে ওঠে।

বস্তুত পাওনা পরিশোধকালে পাওনাদারের কৃতজ্ঞতা জানানো এবং তার জন্য কল্যাণের দোয়া করা ইসলামের এক অনন্য শিক্ষা। রাসূলুল্লাহ (সা.) একবার সাহাবি হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আবী রবীয়া (রা.) থেকে চার হাজার দিরহাম ঋণ করেছিলেন। যখন তা পরিশোধ করলেন, তখন তিনি তার জন্য এ দোয়াও করলেন- আল্লাহতায়ালা তোমার পরিবার-পরিজন ও ধন-সম্পদে বরকত দান করুন। -নাসায়ি শরীফ

আপনার মতামত জানানঃ