ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   ৬ প্রাকৃতিক উপাদান ত্বকে ব্যবহারে সাবধানতা

৬ প্রাকৃতিক উপাদান ত্বকে ব্যবহারে সাবধানতা

নভেম্বর ২১, ২০২০ - ১১:৩২ পূর্বাহ্ণ

ত্বক ভালো রাখতে র জুড়ি নেই। তবে সঠিকভাবে না জানার কারণে অনেকেই ভুল ভাবে ভুল উপাদান ব্যবহার করেন।

১। লেবু: লেবু খাওয়া উপকারী। কিন্তু সরাসরি এটা করা মোটেও নিরাপদ নয়। লেবু অনেক বেশি ক্ষারীয় এবং এর পিএইচ’য়ের মাত্রা প্রায় দুই। আমাদের ত্বকের প্রাকৃতিক পিএইচ মাত্রা হল ৪.৭-৫.৮। তাই ত্বকে লেবুর রস ব্যবহার ত্বককে আলোর প্রতি সংবেদনশীল করে ফেলে। যে কারণে ত্বকে ছোপ ছোপ দাগ ও রোদেপোড়ার সমস্যা দেখা দিতে পারে।

২। নারিকেল তেল: ত্বকের যত্নে অনেকেই নারিকেল তেল ব্যবহার করে থাকেন। এটা অ্যান্টি ব্যাক্টেরিয়াল ও অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল উপাদান সমৃদ্ধ যা ত্বকের জন্য ভালো কাজ করলেও লোমকূপ আবদ্ধ করে ফেলে। তাই ত্বকে নানান সমস্যা দেখা দিতে পারে। নারিকেল তেল চুল ও শরীরের জন্য ভালো। তবে মুখে ব্যবহার করা মোটেও বুদ্ধিমানের কাজ নয়।

৩। বেইকিং সোডা: লেবুর মতো বেইকিং সোডাও ত্বকে পিএইচয়ের মাত্রা নষ্ট করে। পিএইচয়ের ৮ম মাত্রায় এটা অত্যন্ত ক্ষারীয় যা ত্বকে জন্য ক্ষতিকারক। এর ফলে ত্বক শুষ্ক, ব্রণের সংক্রমণ ও দ্রুত বয়সের ছাপ দেখা দিতে পারে।

৪। দারুচিনি: মসলা খাওয়ার জন্য, ত্বকের জন্য নয়। দারুচিনি সংবেদনশীল ত্বকে জ্বলুনি, র‌্যাশ, পোড়াভাব সৃষ্টি করে। এছাড়াও, এটা ত্বকের সুরক্ষার স্তরকে ক্ষতিগ্রস্ত করে প্রদাহ সৃষ্টি ও শুষ্ক করে ফেলতে পারে।

৫। অ্যাপল সিডার  ভিনিগার: এটা প্রাকৃতিক টোনার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। দীর্ঘদিন অ্যাপল সাইডার ব্যবহারে ত্বকের অভ্যন্তরের জন্য ভালো হলেও বাইরের জন্য তা ভালো নয়। এর পিএইচ’য়ের মাত্রা প্রায় ২-৩, যা ত্বকের জন্য অনেক বেশি অ্যাসিডিক। যেখানে টোনার ত্বকের পিএইচ স্বাভাবিক করে সেখানে অ্যাপল সিডার ভিনিগার বরং কমিয়ে ফেলে। এতে ত্বকে জ্বলুনি ও পোড়াভাবের সমস্যা দেখা দেয়।

৬। চিনি ও কফির গুঁড়া: মুখ স্ক্রাব করতে অনেকেই চিনি ও কফির দানা ব্যবহার করেন। এর ধারালো পাশ ত্বকে ক্ষতের সৃষ্টি করে যা পরে দ্রুত বয়সের ছাপ ফেলতে ভূমিকা রাখে। ত্বকের পক্ষে অনেক বেশি রুক্ষ হওয়ায় এটা ত্বকে প্রদাহ সৃষ্টি করে।

আপনার মতামত জানানঃ