ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   ৬২’র যুদ্ধের পর চীন-ভারতের সম্পর্ক সবচেয়ে খারাপ

৬২’র যুদ্ধের পর চীন-ভারতের সম্পর্ক সবচেয়ে খারাপ

আগস্ট ২৭, ২০২০ - ৯:৪৩ অপরাহ্ণ

পূর্ব লাদাখে চীনের সঙ্গে চলমান বৈরিতাকে ১৯৬২ সালের পর দেশটির সঙ্গে ভারতের সবেচেয় খারাপ সম্পর্ক বলে অভিহিত করেছেন ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়সঙ্কর। ১৯৬২ সালে ভারত-চীন যুদ্ধে জড়িয়ে ছিল। যা ইন্দো-চীন যুদ্ধ নামে পরিচিত।

বলেন, নিশ্চিতভাবে ১৯৬২ সালের পর সবচেয় খারাপ পরিস্থিতি এটা। বাস্তবতা হচ্ছে ৪৫ বছর পর সীমান্তে সামরিক সংঘাতের ঘটনা ঘটলো। লাইন অব কন্ট্রোলে উভয় দেশের সেনা মোতায়েন রয়েছে। যা নজিরবিহীন।

ভারত ও চীনের মধ্যে কয়েক দফায় সামরিক ও কূটনৈতি পর্যায়ে বৈঠক হয়েছে। পূর্ব লাদাখ পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে খুবই সামান্য।

গেলো মে থেকে দু’দেশের মধ্যে সীমান্ত উত্তেজনা চলছে। ১৫ জুন সামরিক সংঘাতে নিহত হয় ২০ ভারতীয় সেনা। উত্তেজনা নিরসনে বৈঠক হয় জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা পর্যায়ে।

ভারতের পররাষ্ট্রমন্তী জানান, আমরা চীনকে স্পষ্টভাবে জানিয়েছি, সীমান্তে শান্তি এবং স্থিতিশীলতা প্রতিবেশী দু’দেশের মধ্যকার সম্পর্কের মূলনীতি। তিন দশক আগে তাকালে আমরা প্রমাণ পেয়ে যাবো। কিন্তু এখন? গেলো সাড়ে তিন মাস ধরে পূর্ব লাদাখ সীমান্তে দু’পক্ষের সেনারা পরস্পরকে অস্ত্র তাক করে দাঁড়িয়ে আছে। বেশ কয়েক দফা আলোচনার পরও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়নি।

অতীতে সীমান্ত সমস্যা কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে সমাধান হয়েছে। আমরা যদি গেলো দশকের দিকে তাকাই; সে সময়ে দেপস্যাং, ছুমার এবং দোকলামসহ সীমান্তে নানারকম পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। সেইদিক বিবেচনা করেলে এবারের বিষয়টি নিশ্চিতভাবে একটু ভিন্ন। তবে অতীতের সব সীমান্ত সমস্যা আলোচনার মাধ্যমেই হয়েছে। বলেন, এস জয়সঙ্কর।

এস জয়সঙ্কর বলেন, চুক্তি এবং সমঝোতার ভিত্তিতে চীনের সঙ্গে চলমান সংকটের সমাধান চায় ভারত। এক্ষেত্রে, একতরফা কোনো সিদ্ধান্ত সমর্থন করে না নয়াদিল্লি।

আপনার মতামত জানানঃ