ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   ৩ লাখ ৪৪ হাজার টন ফার্নেস অয়েল আমদানি করবে সরকার

৩ লাখ ৪৪ হাজার টন ফার্নেস অয়েল আমদানি করবে সরকার

August 31, 2016 - 1:51 PM

বিশেষ প্রতিবেদক : সরকারি-বেসরকারি বিদ্যুৎকেন্দ্র ও শিল্পকারখানায় ব্যবহারের জন্য ৩ লাখ ৪৪ হাজার টন ফার্নেস অয়েল আমদানি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এজন্য ব্যয় হবে ৬৯৪ কোটি ৬৭ লাখ টাকা। দুটি পৃথক প্রস্তাবে এ ফার্নেস অয়েল কেনা হবে।

বুধবার সচিবালয়ে সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে ক্রয়প্রস্তাবটি অনুমোদন করা হয়েছে।

কমিটির সভাপতি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের অনুপস্থিতিতে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। বৈঠকে কমিটির সদস্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিবসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে সচিবরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে অনুমোদিত ক্রয়প্রস্তাবের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তফিজুর রহমান। বৈঠকে ছয়টি ক্রয়প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে অতিরিক্ত সচিব জানান।

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, জি টু জি-এর আওতায় তিন দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান থেকে ১ লাখ ৮৪ হাজার টন এবং আন্তর্জাতিক কোটেশনের মাধ্যমে ১ লাখ ৬০ হাজার টন ফার্নেস অয়েল আমদানি করার প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। প্রিমিয়ামসহ এতে সরকারের ব্যয় হবে আট কোটি ৭৯ লাখ ডলার, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৬৯৪ কোটি ৬৭ লাখ টাকা।

জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জি টু জি-এর আওতায় তিন দফায় ১ লাখ ৮৪ হাজার টন ফার্নেস অয়েল আমদানির কোটেশন আহ্বানের বিপরীতে চলতি বছরের জুনে সাতটি, জুলাইয়ে ছয়টি ও আগস্টে পাঁচটি দরপত্র জমা পড়ে। এর মধ্যে জুনে তিনটি পার্সেলে মোট ৬৯ হাজার টন ফার্নেস অয়েল সরবরাহের জন্য সর্বনিম্ন দরদাতা মনোনীত হয়েছে ফিলিপাইন ন্যাশনাল অয়েল কোম্পানি (পিনক ইসি)। টনপ্রতি এ কোম্পানিকে প্রিমিয়াম দিতে হবে ১৫ ডলার। এতে ব্যয় হবে ১৩৩ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

জুলাইয়ে দুটি পার্সেলে মোট ৪০ হাজার টন ফার্নেস অয়েল সরবরাহের জন্য সর্বনিম্ন দরদাতা মনোনীত হয়েছে সিঙ্গাপুরের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান পিটিটি ইন্টারন্যাশনাল ট্রেডিং পিটিই লিমিটেড। টনপ্রতি এ কোম্পানিকে প্রিমিয়াম দিতে হবে ১৪ ডলার। এতে ব্যয় হবে ৮১ কোটি ২ লাখ টাকা।

আগস্টে তিনটি পার্সেলে মোট ৭৫ হাজার টন ফার্নেস অয়েল সরবরাহের জন্য সর্বনিম্ন দরদাতা মনোনীত হয়েছে ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান পিপি বুমি সিয়াক পুসাকো। টনপ্রতি এ কোম্পানিকে প্রিমিয়াম দিতে হবে ১৬ ডলার। এতে ব্যয় হবে ১৫৭ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। তিনটি প্রতিষ্ঠান থেকে ফার্নেস অয়েল ক্রয়ের গড় প্রিমিয়াম হচ্ছে টনপ্রতি ১৫ দশমিক ৪৩ ডলার।

সূত্র জানায়, আন্তর্জাতিক কোটেশনের মাধ্যমে চলতি বছরের আগস্ট-ডিসেম্বর সময়ের জন্য ১ লাখ ৬০ হাজার টন ফার্নেস অয়েল সরবরাহের জন্য নয়টি দরপত্র জমা পড়ে। গত ১০ জুলাই দরপত্র আহ্বান করা হয়। প্রাপ্ত দরপত্রগুলোর মধ্যে চারটি দরপত্র নন-রেসপন্সিভ বলে বিবেচিত হয়। অবশিষ্ট পাঁচটির মধ্যে সিঙ্গাপুরভিত্তিক কোম্পানি ভিটল এশিয়া পিটিই লিমিটেড সর্বনিম্ন দরদাতা হিসেবে মনোনীত হয়েছে। টনপ্রতি এ কোম্পানিকে প্রিমিয়াম দিতে হবে ১৫ দশমিক ৮০ ডলার। এতে ব্যয় হবে ৩২২ কোটি ৭১ লাখ টাকা।

বৈঠকে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের ‘পল্লী বিদ্যুতায়ন সম্প্রসারণ ঢাকা বিভাগীয় কার্যক্রম-২’শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ১০ হাজার ৮৬৭ কিলোমিটার কন্ডাক্টর, এসিএসআর, বেয়ার ক্রয়ের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এজন্য মোট ব্যয় হবে ১৫০ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। মেসার্স পলিকেবল ইন্ডাস্ট্রি এসব পণ্য সরবরাহ করবে বলে অতিরিক্ত সচিব জানান।

এ ছাড়া বৈঠকে ৪ লাখ ৮৬ হাজার ৩২৪ টন গ্যাস অয়েলের প্রতি ব্যারেলের প্রিমিয়াম ২ দশমিক ৩০ ডলার এবং ১ লাখ ২৩ হাজার ১৪৬ টন জেড এ ওয়ান জ্বালানি তেলের প্রতি ব্যারেলের প্রিমিয়াম তিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে।

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড কর্তৃক ‘পল্লী বিদ্যুৎ বিতরণ সিস্টেমের ক্ষমতাবর্ধন (ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগ)’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় তিনটি প্যাকেজে বিভিন্ন পণ্য ক্রয়ের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। মেসার্স এনার্জি প্যাক এসব পণ্য সরবরাহ করবে। এজন্য ব্যয় হবে ৫৪৯ কোটি ৭১ লাখ টাকা।

তিনি বলেন, সিলেট, রংপুর ও রাজশাহী বিদ্যুৎ বিভাগের জন্য দেড় লাখ প্রিপেইড মিটার ক্রয়ের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এজন্য মোট ব্যয় হবে ২৭৮ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। মেসার্স আইডিয়াল ইলেক্ট্রিক এন্টারপ্রাইজ ও চীনের একটি প্রতিষ্ঠান যৌথভাবে প্রিপেইড মিটারগুলো সরবরাহ করবে।

আপনার মতামত জানানঃ