ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  রাজনীতি   »   ৩৬৫ দিনই এদেশের মানুষের মানবাধিকার হরণের দিবস

৩৬৫ দিনই এদেশের মানুষের মানবাধিকার হরণের দিবস

December 9, 2016 - 11:46 AM

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : দেশে মানবাধিকার পরিস্থিতি শূন্যের নিচে অবস্থান করছে দাবি করে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, ৩৬৫ দিনই এদেশের মানুষের মানবাধিকার হরণের দিবস।

জাতিসংঘ ঘোষিত মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে শুক্রবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বাণীতে তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপি নেত্রী বলেন, ‘বর্তমানে বাংলাদেশের মানুষের মানবাধিকার শূন্যের নিচে অবস্থান করছে। এদেশে শুধু মাত্র বিরোধীদলের নেতা-কর্মীরাই শুধু নয়, সাংবাদিক, মানবাধিকার কর্মী, ছাত্র, শিক্ষক, শ্রমিক, নারী, শিশুসহ কারোই কোনো নিরাপত্তা নাই। এদের অধিকাংশই গুম, গুপ্তহত্যা এবং বিচারবহির্ভূত হত্যার শিকার হচ্ছেন।’

তিনি বলেন, ‘সরকারের বিরুদ্ধে সমালোচনা করলেই বিরোধীদলের নেতা-কর্মীরা ছাড়াও দল নিরেপক্ষ রাজনৈতিক বিশ্লেষক, টকশো আলোচকদের বিরুদ্ধেও মিথ্যা মামলা দায়ের করা হচ্ছে এবং কাউকে কাউকে কারান্তরীণও করে রাখা হয়েছে।’

জাতিসংঘ ১৯৫০ সালে ১০ ডিসেম্বরকে ‘মানবাধিকার দিবস’ ঘোষণা করে। সেই থেকে প্রতি বছর ১০ ডিসেম্বর ‘মানবাধিকার দিবস’ পালিত হয়ে আসছে। এ বছরের মানবাধিকার দিবসের স্লোগান হচ্ছে ‘বছরের ৩৬৫ দিনই মানবাধিকার দিবস।

বাণীতে খালেদা জিয়া বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে মনে হয় ৩৬৫ দিনই এদেশের মানুষের মানবাধিকার হরণের দিবস। সুতরাং এই নৈরাজ্যকর দুঃশাসনের ছোবল থেকে মুক্তি পেতে হলে আমাদের এই সময়ে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রকৃত গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য এগিয়ে আসতে হবে।’

মানবাধিকার দিবসে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মৌলিক মানবিক অধিকার হারা নির্যাতিত মানুষের প্রতি সহমর্মিতা জ্ঞাপন করেন বিএনপি প্রধান। পাশপাশি নাগরিক স্বাধীনতার জন্য সোচ্চার হতে গিয়ে ক্ষমতাসীন স্বেচ্ছাচারী গোষ্ঠীর নৃশংস নিপীড়নে আত্মদান করেছেন তাদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান তিনি।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মানবাধিকার হরণের বিষয় তুলে ধরে প্রাক্তন এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশসহ বিশ্বের অনেক দেশে মানুষ একদলীয় স্বেচ্ছাচারী শাসন, গোষ্ঠী, বর্ণ ও জাতিগত সংঘাতে অবলীলায় খুন ও গুপ্তহত্যার শিকার হচ্ছে এবং অদৃশ্য হয়ে যাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের শিকার হচ্ছে অসংখ্য মানুষ।’

তিনি বলেন, ‘জাতিসংঘের সার্বজনিন ঘোষণায় বলা হয়েছে বিশ্বের সব জাতির সব মানুষের মানবাধিকার সংরক্ষণের নিশ্চয়তা থাকতে হবে। কিন্তু দেশে দেশে নিষ্ঠুর স্বৈরাচারী শাসকেরা জাতিসংঘ কর্তৃক মানবাধিকারের সার্বজনিন ঘোষণার নির্দেশনাগুলোকে তাচ্ছিল্য করে নিজ দেশের জনগণের ওপর চালিয়ে যাচ্ছে বর্বোরোচিত আক্রমণ।’

বাংলাদেশে এখন ভয়াবহ দুঃসময় বয়ে চলছে মন্তব্য কনে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশকে বধ্যভূমিতে পরিণত করা হয়েছে। বর্তমান অবৈধ ক্ষমতাসীন জোট সীমাহীন রক্তপাত ও বেপরোয়া নিপীড়ন নির্যাতনের মধ্যদিয়ে জনগণের সকল গণতান্ত্রিক অধিকারকে হরণ করে নিয়েছে।’

মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে অপর এক বাণীতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘বর্তমান সরকার ক্ষমতাসীন হওয়ার পর থেকে বাংলাদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের যে ইতিহাস সৃষ্টি হয়েছে তা নজীরবিহীন। মানুষের জানমালের ন্যুনতম নিরাপত্তাও আজ চরম হুমকির সম্মুখীন।’

শান্তি ও স্থিতিশীলতা সুনিশ্চিত করতে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে বাংলাদেশসহ বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানান বিএনপি মহাসচিব।

আপনার মতামত জানানঃ