ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   ৩১ জুলাই ২০১৬ পথশিশুর পথের ঝুঁকি (ভিডিও)

৩১ জুলাই ২০১৬ পথশিশুর পথের ঝুঁকি (ভিডিও)

October 19, 2016 - 9:55 AM

ঢাকা : ৩১ জুলাই ২০১৬। রাত ৯ টা ৩২ মিনিট। রাজধানীর মতিঝিলে দৈনিক বাংলা মোড়ের কাছেই বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর-পূর্ব কোনে রাস্তার উপর পড়ে আছে একটি সাদা বাটি।

এই বাটির পাশে ছিটিয়ে পড়ে আছে রান্না করা ডালের মত তরল কিছু। রাস্তার বাম পাশ থেকে দুটি শিশু দৌড়ে সেখানে গিয়ে একজন বাটি তুলে মুখে নিয়ে চুমুক দিলো। আরেকজন আঙ্গুলে লাগিয়ে তা মুখে নিলো। রাস্তায় এরই মধ্যে চলে এলো গাড়ি। দুই শিশু দৌড়ে মাঝখান থেকে সরে গেলো রাস্তার পাশে। গাড়ি চলে যাওয়ার পর আবার সেখানে গিয়ে একইভাবে খাওয়া শুরু করলো। গাড়ি এলেই দৌড়ে রাস্তার পাশে সরে যাওয়া আর গাড়ি চলে গেলে রাস্তার মাঝখানে সেই বাটির কাছে চলে আসা- এভাবে কয়েক দফায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তারা ওই খাবার খেলো।

খাওয়া শেষে তারা বায়তুল মোকাররম মসজিদের পাশ দিয়ে পল্টনের দিকে পা বাড়ালো। এসময় এই প্রতিবেদকদের একজন তাদের পিছু নিয়ে কাছে গিয়ে কথা বলেন তাদের সাথে। তারা জানায়, কোন একটি গাড়ির যাত্রীর হাত থেকে রাস্তায় মাঝখানে পড়ে গেছে হালিমের বাটি। সেটি সেখানেই পড়ে ছিলো। তারা সেই হালিম খেয়েছে। খেয়ে খুবই ভাল লেগেছে। শিশুরা জানায়, তারা বায়তুল মোকাররম মসজিদের পাশেই স্টেডিয়াম এলাকায় মা-বাবার সাথে থাকে। সারাদিনই তারা দুজন ভিক্ষা করে।

শুধু এই দুজন নয়, রাজধানীতে এমন অনেক শিশুর দিন কাটছে রাস্তায়। এই পথশিশুরা প্রায়শঃই খাবারের জন্য জীবনের ঝুঁকি নিয়ে থাকে।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ও কথা বলে জানা গেছে, পথশিশুরা রাতে ফুটপাথে বা পার্কে ঘুমায়। বৃষ্টিতে আশ্রয় নিতে হয় উড়াল সেতুতে, গাছের তলে বা অন্য কোথাও। তাদের পিঠের নিচে থাকে না নরম বিছানা। মাথার নিচে থাকে না বালিশ। থাকে না মশারি। প্রতিনিয়ত মশার কামড় খেতে হয় তাদের। খেতে হয় অস্বাস্থ্যকর খাবার। কখনো কখনো থাকতে হয় না খেয়ে।

পথশিশুদের বড় একটি অংশ মাদকাসক্ত। জুতার আঠা দিয়ে তারা নেশা করে যা ড্যান্ডি নামে পরিচিত। তারা মনে করে ড্যান্ডি সেবনে ক্ষুধা কমে। ঠিকমত গোসল করতে পারে না, সে সুযোগ তেমন নেই। এক পোশাকে থাকে দিনের পর দিন। মলত্যাগের জন্য যেতে হয় যেখানে সেখানে। মলত্যাগের পর সাবান দিয়ে হাতও ধোঁয়া হয় না। রোগাক্রান্ত হলে পায়না উন্নত চিকিৎসা। তাদের মধ্যে রয়েছে সচেতনতার অভাব। তাদের বেশিরভাগই শিক্ষা থেকে বঞ্চিত।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতিকুল পরিবেশে বেঁচে থাকার তাগিদে তারা এক সময় অর্থ উপার্জনের জন্য অপরাধের সাথে জড়িয়ে পড়ে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. নেহাল করীম বলেন, ‘রাতে যখন বৃষ্টি হয় তখন আমরা শান্তিতে ঘুমাই। আর সকালে উঠে বলি ঘুমটা খুব ভাল হয়েছে। কিন্তু আমরা কি ভাবি যে রাস্তায় যারা রাত কাটাচ্ছে তাদের কি হয়েছে, তারা কোন অবস্থায় আছে।’ পথশিশুদের বেঁচে থাকার জন্য বিভিন্ন ধরনের ঝুঁকি মোকাবেলা হয় বলে উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘জনপ্রতিনিধিরা জনপ্রিয়তার জন্য বিভিন্ন সময়ে পুনর্বাসনের আশ্বাস দিয়ে থাকেন। যেখানে আমাদের মৌলিক চাহিদাই পূরণ হচ্ছে না, সেখানে পুনর্বাসন হবে কি করে। অর্থনৈতিক দৃঢ়তা না হলে পথশিশু, ভিক্ষুক, যৌনকর্মী এদের কখনই পূনর্বাসন করা সম্ভব না।
ইউনিসেফের এক কর্মকর্তা বলছেন, পথশিশুরা তো ঝুঁকিতেই থাকে। তাছাড়া তাদেরকে ঝুঁকির মধ্যেও ফেলে দেওয়া হয়। যেমন, পার্কে ঘুমালে সেখান থেকে উঠিয়ে দেওয়া, শারীরিকভাবে নির্যাতন ও যৌন হয়রানি করা হয়।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিপার্টমেন্ট অব ক্রিমিনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান বলেন, ‘জীবনধারনের জন্য একজন পথশিশুকে নানা ধরনের কাজ করতে হয়। তার সামাজীকরন হচ্ছে না, সে স্কুলে যেতে পারছে না। এরপর জীবিকার তাগিদে যখন সে রাস্তায় নামছে, তখনই তাকে জড়িয়ে পড়তে হচ্ছে অপরাধী দলের সাথে। তার পেটের দায়ে সে অপরাধ করতে বাধ্য হচ্ছে।’

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বক্ষব্যাধি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. আতিকুর রহমান বলেন, ‘পথশিশুদের মধ্যে যারা ড্যান্ডি নেয়, তাদের শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা থাকে। অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ায় ফলে তাদের পেটের পীড়া, যকৃতে রোগ ও জন্ডিস হওয়ার আশঙ্কা থাকে। সময়মত না খাওয়ার জন্য গ্যাসট্রিক হতে পারে। তারা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে পারে না। সেজন্য তাদের শরীরে বিভিন্ন চর্ম রোগ বাসা বাঁধতে পারে। রাস্তা বা পার্কে ঘুমানোর ফলে মশার কামড়েও তাদের নানা ধরনের রোগ হতে পারে।’

সরকারের পাশাপাশি ব্যক্তি উদ্যোগে অনেকেই পথশিশুদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন, তাদের পড়াচ্ছেন। রাজধানীর ধানমন্ডিতে রবীন্দ্র সরোবরে পথশিশুদের জন্য একটি স্কুল করা হয়েছে। স্কুলটির নাম দেওয়া হয়েছে প্রজেক্ট আলোকিত শিশু। একটি বেসরকারি বিশবিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী হৃদি রবিন এখানে ২০/২৫ জন পথশিশুকে পড়ান।

হৃদি রবিন বলেন, ‘পথশিশুরা যে ভাবে জীবনযাত্রা করে, ওভাবে আসলে কাম্য নয়। তাই তাদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের জন্য তাদের শিক্ষা ও সচেতনতা প্রয়োজন। তাই একবছর ধরে এখানকার শিশুদের আমরা পড়াচ্ছি।’

বর্তমানে রাজধানীতে বা সারাদেশে কতোজন পথশিশু রয়েছে, তা নির্দিষ্ট নয়। ২০১৫ সালে প্রকাশিত বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট (বিআইডিএস)- এর তথ্য এবং ইউনিসেফের গবেষণা তথ্যের বরাত দিয়ে সম্প্রতি গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, দেশে ৯ লাখ ৭৯ হাজার ৭২৮ জন পথশিশু রয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা নগরীতে ৭ লাখ পথশিশু। ওই গবেষণায় বলা হয়েছে, ২০২৪ সাল নাগাদ এ সংখ্যা দাঁড়াবে ১৬ লাখ ১৫ হাজার ৩৩০ জনে।

https://youtu.be/ALB0GTiMFSg

আপনার মতামত জানানঃ