ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   ৩০ জন মিলে কিশোরীকে গণধর্ষণ!

৩০ জন মিলে কিশোরীকে গণধর্ষণ!

আগস্ট ২০, ২০২০ - ১১:৩৫ পূর্বাহ্ণ
৩০ জন মিলে কিশোরীকে গণধর্ষণ!

দক্ষিণ ইসরায়েলের পর্যটন নগরী ইলাতের একটি পর্যটন মোটেলে ১৭ বছরের এক কিশোরীকে গণধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার (১৯ আগস্ট) ওই কিশোরীর অভিযোগের পর দেশটির উত্তরাঞ্চল থেকে ২৭ বছরের এক যুবককে আটক করে পুলিশ।

পুলিশ জানায় মোটেলটির সিসিটিভির ফুটেজ দেখে একজনকে শনাক্ত করা হয়। পরে তাকে অভিযান চালিয়ে আটক করা হয়। অন্যদের আটকে অভিযান চলছে বলে জানায় ইসরায়েল পুলিশ।

পুলিশের বরাত দিয়ে ইসরায়েলের জাতীয় দৈনিক হারেতজ জানায়, লোহিত সাগরের পাড়ে অবস্থিত ইসরায়েলের বন্দর নগরি ইলাত জর্ডান উপত্যাকার পাশে অবস্থিত। প্রাকৃতিক সুন্দর্যমণ্ডিত এলাকাটিতে ঘুরতে আসেন ওই কিশোরী তার এক বন্ধুর সঙ্গে। সেখানে তারা মোটেলের একটি কক্ষ ভাড়া নেন।

ঘটনার সময় ওই কিশোরী মদ্যপ ছিলেন বলে পুলিশকে জানান কিশোরীর বন্ধু। তারা প্রচুর পরিমাণে মদ পান করে অচেতন ছিলেন বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেন তিনি। তাদের অচেতনতার সুযোগে ৩০-৩৫ জনের একটি দল তাদের উপর হোটেল রুমে হামলা করে এবং একের পর এক পালাক্রমে ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে।

আটক হওয়া ওই যুবক প্রাথমিকভাবে নিজেদের অপরাধ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বীকার করেছেন। ভুক্তভোগির সঙ্গে থাকা তার বন্ধু চেষ্টা করেও তাকে রক্ষা করতে পারেননি বলে পুলিশ জানায়।

ইসরায়েলের ধর্ষণ রোধে কাজ করা একটি সংস্থা অ্যাসোসিয়েশন অব রেপ ক্রাইসিস সেন্টার জানায়, শুধু ২০১৮ সালে ৬ হাজার ২২০টি ধর্ষণের ঘটনায় অনুসন্ধ্যান করে পুলিশ। যার মধ্যে ১ হাজার ৭ শ অভিযুক্ত সরাসরি ধর্ষণের সঙ্গে যুক্ত থাকার প্রমাণ পাওয়া যায়। যা তার আগের বছরের তুলনায় ১২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে এবং ৫ বছরের ব্যবধানে ৪০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

২০১৮ সালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দেখা যায় ইসরায়েলে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হওয়া ৬৩ শতাংশ ঘটনায় ভুক্তভোগি ১২ থেকে ১৮ বছরের। প্রতি দশটির ধর্ষণের মামলা প্রমাণের অভাবে ৯টিই কোনো অভিযোগ গঠন ছাড়া বাতিল করা হয় ইসরায়েলে। দেশটিতে প্রতিদিনই ধর্ষনের অভিযোগে মামলার সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে।

গত বছর ১১ সদস্যের এক দল কিশোরকে গণধর্ষণের অভিযোগে আটক করে সাইপ্রাস পুলিশ। পূর্ব ভূমধ্য সাগরীয় দ্বীপটিতে ছুটি কাটাতে গিয়েছিলেন এক ব্রিটিশ নারী। সেখানে তিনি গণধর্ষণের শিকার হন ইসলায়িলি এই কিশোরদের দ্বারা। যদিও তিনি ঘটনা প্রমাণ করতে ব্যার্থ হওয়ায় সাইপ্রাসের পুলিশ আটকদের মুক্তি দেয়।

আপনার মতামত জানানঃ