ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   ২৪টি হাটের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন

২৪টি হাটের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন

September 7, 2016 - 4:35 PM

নির্দিষ্ট সময়ের কয়েকদিন আগেই রাজধানীর পশুর হাটগুলোতে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসতে শুরু হয়েছে কোরবানির পশু। যার ফলে রাজধানীতে বেড়েছে যানজট।

 

ঢাকা সিটি করপোরেশনের নিয়ম অনুযায়ী, ঈদের তিনদিন আগে ঢাকার হাটগুলোতে পশু বিক্রি হওয়ার কথা। সে হিসেবে আগামী শুক্রবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে পশু বিক্রি শুরু হবে। এ ছাড়া পশু বিক্রির তিনদিন আগে থেকে হাট এলাকায় আনার কথা রয়েছে।

 

কিন্তু বরাবরের মতো এবারও নিয়ম ভেঙ্গে ঢকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় নির্দিষ্ট সময়ের পাঁচ থেকে ছয়দিন আগে থেকেই আসতে শুরু করেছে পশু। এমন কী কোন কোন হাটে একটি-দুটি পশু বিক্রির কথাও শোনা গেছে।

 

এদিকে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের নির্ধারিত ২৪টি হাটের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন সংশ্লিষ্ট হাট ইজারাদাররা।

 

অন্যদিকে গরু ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা।

 

সরেজমিনে রাজধানীর একাধিক পশুরহাট ঘুরে দেখা যায়, নির্দিষ্ট স্থান থেকে মূল সড়কে চলে গেছে পশুরহাট। এ ছাড়া বেশকিছু হাট অবৈধভাবে রাস্তায় বসানো হয়েছে।

 

চলতি সপ্তাহের শুরু থেকে ট্রাকের পর ট্রাক ভর্তি হয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে রাজধানীর হাটগুলোতে আনা হচ্ছে গরু-মহিষ-ছাগল-ভেড়া। আর আগামী শুক্রবার থেকে শুরু হবে রাজধানীর পশুহাটের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম।

 

রাজধানীর বিভিন্ন হাট ঘুরে দেখা গেছে, অধিকাংশ পশুর হাটে নির্ধারিত স্থান ছাড়িয়ে প্রধান সড়ক পর্যন্ত বিস্তৃতি ঘটেছে। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) আওতায় গাবতলীর স্থায়ী হাটসহ মোট ১০টি হাট ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) এলাকায় বসেছে ১৪টি অস্থায়ী হাট।

 

নির্ধারিত সময়ের আগেই হাটগুলোতে গরু-ছাগল বিক্রির জন্য তোলা হয়েছে কেন জানতে চাইলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সহকারী সম্পত্তি কর্মকর্তা সামসুল আলম বলেন, এবার কোনো হাট ইজারাদারকে সিটি করপোরেশনের শর্ত ভঙ্গ করতে দেব না। শর্ত ভঙ্গকারীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ৮টি মোবাইল কোর্ট রয়েছে।

 

এদিকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সম্পত্তি বিভাগ থেকেও দাবি করা হয়েছে সবকিছু নিয়ম মাফিক হচ্ছে।

 

সরেজমিনে রাজধানীর পশুর হাটে দেখা গেছে, জমে উঠেছে পশুরহাটগুলো। দেশি ও ভারতীয় গরুসহ ওঠানো হয়েছে উট। এ ছাড়া কিছু কিছু হাটে একটি দুটি করে বিক্রি হচ্ছে পশু।

 

বুধবার ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত প্রতিটি হাট চত্বরে ট্রাকভর্তি গরু-ছাগল ওঠানামা করতে দেখা গেছে। ক্রেতার আগমন ঘটলেও বেচাকেনা তেমন একটা শুরু হয়নি।

 

এদিকে, আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর কোরবানির ঈদ। আর ৯ সেপ্টেম্বর থেকে সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুরু হলে রাজধানীর জনসংখ্যা কমতে শুরু করবে। আর সিটি করপোরেশনের নিয়ম অনুযায়ী শুক্রবার থেকে বিক্রি শুরু হবে কোরবানির পশু।

 

কিন্তু হাট ইজারাদাররা নিয়মের তোয়াক্কা না করেই কোরবানির প্রায় এক সপ্তাহ আগেই পশু প্রবেশ করাচ্ছেন। দিনের যে কোন সময় ট্রাকে করে রাজধানীতে আনা হচ্ছে পশু। সেই কারণে দেখা দিয়েছে যানজট।

 

হাট এলাকার স্থানীয়দের অভিযোগ, নির্দিষ্ট সময়ের আগে থেকে আনা হয়েছে পশু। তাই বাসা থেকে বের হতে পোহাতে হচ্ছে নানা ঝামেলা।

আপনার মতামত জানানঃ