ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  শিক্ষা   »   ১৯৬২ সাল আমাদের জাতির ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় বছর

১৯৬২ সাল আমাদের জাতির ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় বছর

September 17, 2016 - 7:25 AM

শিক্ষা : ১৯৬২ সাল আমাদের জাতির ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় বছর। জাতীয় মূলধারা আন্দোলনের এক গৌরবমন্ডিত মাইলফলক। মনে করা হয়, বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের ঠিক দশ বছর পূর্তি হয় এই বছর। আর পরের দশ বছরেই আসে মুক্তিযুদ্ধের বিজয়। অর্থাৎ বায়ান্নর যোগ্য উত্তরসূরি হচ্ছে বাষট্টি আর বাষট্টির যোগ্য উত্তরসূরি হচ্ছে একাত্তর। এই বিবেচনায় বাষট্টি সালটা আমাদের জাতীয় ইতিহাসে তাৎপর্যমন্ডিত। এই বাষট্টির একটি অন্যতম তাৎপর্যময় দিন ১৭ সেপ্টেম্বর।

১৯৬২ সালের এইদিনে স্বৈরশাসক আইয়ুব খান গঠিত শিক্ষা কমিশনের শিক্ষানীতির প্রতিবাদে ছাত্রদের আহুত হরতালে পুলিশের দফায় দফায় লাঠিচার্জ, কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ ও গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে। এতে একজন নিহত এবং শতাধিক আহত হন। সেই থেকে সংগ্রাম ও ঐতিহ্যের মহান শিক্ষা দিবস হিসাবে দিনটি স্মরণীয় একটি দিনে পরিনত হয়।

আইয়ুব খান ক্ষমতা দখলের মাত্র ২ মাস পরেই (৩০ ডিসেম্বর, ১৯৫৮) এই শিক্ষা কমিশন গঠন করেছিলেন। ‘শরীফ কমিশন’ নামে খ্যাত এসএম শরীফের নেতৃত্বে গঠিত এই কমিশন ১৯৫৯ সালের ২৬ আগস্ট তাদের প্রতিবেদন পেশ করে। এতে শিক্ষা বিষয়ে যেসব প্রস্তাবনা ছিল, তা ছিল প্রকারান্তরে শিক্ষা সংকোচনের পক্ষে।

প্রস্তাবিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল- সস্তায় শিক্ষা করা যায় বলে যে ভুল ধারণা রয়েছে তা ত্যাগ করতে হবে। এতে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রেও ছাত্র বেতন বর্ধিত করার প্রস্তাব ছিল। ২৭ অধ্যায়ে বিভক্ত শরীফ কমিশনের ওই প্রতিবেদনে প্রাথমিক স্তর থেকে উচ্চতর স্তর পর্যন্ত সাধারণ, পেশামূলক শিক্ষা, শিক্ষক প্রসঙ্গ, শিক্ষার মাধ্যম, পাঠ্যপুস্তক, হরফ সমস্যা, প্রশাসন, অর্থবরাদ্দ, শিক্ষার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বিষয়ে বিস্তারিত সুপারিশ উপস্থাপন করা হয়। আইয়ুব সরকার এই রিপোর্টের সুপারিশ গ্রহণ এবং তা ১৯৬২ সাল থেকে বাস্তবায়ন করতে শুরু করে।

এই কমিশন বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বায়ত্তশাসনের পরিবর্তে পূর্ণ সরকারি নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা, বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে রাজনীতি নিষিদ্ধ করা, ছাত্র-শিক্ষকদের কার্যকলাপের ওপর তীক্ষè নজর রাখার প্রস্তাব করে। শিক্ষকদের কঠোর পরিশ্রম করাতে ১৫ ঘণ্টা কাজের বিধান রাখা হয়েছিল। রিপোর্টে বর্ণমালা সংস্কারেরও প্রস্তাব ছিল। ছাত্ররা আইয়ুবের এই শিক্ষানীতির বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়।

ছাত্রদের আন্দোলনের ধারাক্রম ছিল এ রকম- ১৯৫৯ সালে বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের সমন্বয়ে একুশ উদযাপন। ১৯৬০ ও ১৯৬১ সালে এ ধরনের উদ্যোগ অব্যাহত থাকে। ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্ব-স্ব দাবির ভিত্তিতে জুলাই-আগস্ট মাস জুড়ে আন্দোলন চলতে থাকে। এ আন্দোলন কর্মসূচির ধারাবাহিকতায় ১০ সেপ্টেম্বর ছিল সচিবালয় ঘেরাও কর্মসূচি। পরে আন্দোলনকে বেগবান করতে ১০ সেপ্টেম্বরের কর্মসূচি বাতিল করে ১৭ সেপ্টেম্বর দেশব্যাপী হরতাল ডাকা হয়।

ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বে ১৭ সেপ্টেম্বর দেশব্যাপী হরতাল পালিত হয়। ছাত্রদের সঙ্গে সাধারণ মানুষও পিকেটিংয়ে অংশ নেয়। ওই দিন সকাল ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে হাজার হাজার মানুষ সমাবেশে উপস্থিত হন। সমাবেশ শেষে মিছিল বের হয়। জগন্নাথ কলেজে গুলি হয়েছে- এ গুজব শুনে মিছিল নবাবপুরের দিকে যাত্রা শুরু করে। কিন্তু হাইকোর্টের সামনে পুলিশ বাধা দেয়। মিছিল আবদুল গনি রোডে অগ্রসর হয়। তখন পুলিশ মিছিলের পেছন থেকে লাঠিচার্জ, কাঁদানে গ্যাস ও গুলিবর্ষণ করে।

কেবল সরকারি হিসাবেই বলা হয়েছে, সেখানে ৫৯ জন গ্রেফতার, ৭৩ জন আহত ও ১ জন শহীদ হয়েছিলেন। তবে ৩ জন শহীদ হয় বলে জানা যায়। ওই দিন শুধু ঢাকা নয়, সারা দেশে মিছিলের ওপর পুলিশ হামলা চালায়। এদিন টঙ্গীতে ছাত্র-শ্রমিক মিছিলে পুলিশের গুলিতে সুন্দর আলী নামে এক শ্রমিকেরও হত্যার খবর রয়েছে।

স্বৈরাচারী শাসনের সেন্সরশিপের মধ্যেও সেদিনের দৈনিক পাকিস্তান অবজারভারে প্রকাশিত রিপোর্ট ছিল এ রকম- গতকাল (সোমবার) ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষুব্ধ জনতার উপর প্রথমে কয়েক দফা লাঠিচার্জ এবং কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপের পর পুলিশের গুলিবর্ষণে একজন নিহত এবং শতাধিক আহত হয়েছে। শিক্ষা কমিশনের রিপোর্ট বাতিলের দাবিতে এদিন সর্বাত্মক ধর্মঘট পালিত হয়েছে এবং ছাত্রদের শোভাযাত্রার সঙ্গে বিক্ষুব্ধ জনতা এসে সমবেত হয়েছে। ‘শান্তি ও শৃঙ্খলা রাখার জন্য’ গতকাল দুপুর নাগাদ ঢাকা শহরে সামরিক বাহিনীকে আহ্বান করা হয়েছে। উপরন্তু প্রাদেশিক রাজধানীর ৫টি থানাতে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে।

গভীর রাত পর্যন্ত প্রাপ্ত খবরে দেখা যায় যে, প্রদেশের সর্বত্র গতকাল হরতাল পালিত হয়েছে। যশোরে পুলিশ বিক্ষুব্ধ জনতার উপর গুলিবর্ষণ করেছে এবং চট্টগ্রামে পুলিশ ও ছাত্রদের সংঘর্ষের পর রাস্তায় রাস্তায় সামরিক বাহিনী টহল দিচ্ছে।

গতরাতে সরকার প্রদত্ত এক প্রেসনোটে স্বীকার করা হয় যে, ১৭ সেপ্টেম্বর পুলিশের গুলিতে একজন নিহত এবং ৭৩ জন আহত হয়েছে। এ ছাড়া সন্ধ্যা নাগাদ ৫৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এদিকে বেলা আড়াইটা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমগ্র এলাকার প্রতিটি রাস্তায় এবং বিশেষ করে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চারদিকে সৈন্যবাহিনী মোতায়েন করা হয়।

যশোর থেকে এপিপির খবরে বলা হয় যে, হরতাল চলাকালীন সংঘর্ষে ৪১ জন পুলিশসহ মোট ৪৩ ব্যক্তি আহত হয়েছে। এদের মধ্যে যশোরের পুলিশ সুপারও রয়েছে। চট্টগ্রামে সমস্ত দিনব্যাপী পুলিশ ও ছাত্র-জনতার সংঘর্ষের ফলে ৫০ জন পুলিশসহ শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছে। ফলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য চট্টগ্রামের সামরিক বাহিনীকে তলব করা হয়েছে। এ দিন চট্টগ্রামে ২৭ জন ছাত্রসহ মোট একশ জনকে আটক করা হয়েছে।

এইভাবে আন্দোলন চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছলে আইয়ুব খান পিছু হটে এবং শেষ পর্যন্ত সোহরাওয়ার্দীর প্রচেষ্টায় সরকার ২০ সেপ্টেম্বর শিক্ষা কমিশন রিপোর্ট বাস্তবায়ন স্থগিত রাখার ঘোষণা দেয়। সামরিক শাসন প্রত্যাহার, সোহরাওয়ার্দী ও শেখ মুজিবসহ নেতাদের মুক্তি ও শিক্ষা কমিশন রিপোর্ট স্থগিত হলে আন্দোলনে আংশিক বিজয় সূচিত হয়।

আপনার মতামত জানানঃ