ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   ১৭ সেপ্টেম্বর স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য একটি অনন্য ঐতিহাসিক দিন

১৭ সেপ্টেম্বর স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য একটি অনন্য ঐতিহাসিক দিন

September 17, 2016 - 10:21 AM

জাতীয় : ১৭ সেপ্টেম্বর স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য একটি অনন্য ঐতিহাসিক দিন। বাংলাদেশ ১৯৭৪ সালের এইদিনে আনুষ্ঠানিকভাবে ১৩৬ তম সদস্য হিসেবে জাতিসংঘে যোগদান করে।

যোগদানের এক সপ্তাহ পর ২৫ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বাংলায় ভাষণ প্রদান করে বিশ্বসভায় বাংলাদেশকে নজিরবিহীন সম্মানের আসনে অধিষ্ঠিত করেন।

মূলত, বাংলাদেশের সঙ্গে জাতিসংঘের সম্পর্কের সূচনা হয় ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা সংগ্রামের সময়ে। মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণ ও শরণার্থীদের সহায়তা দানকে কেন্দ্র করেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে যুক্ত হয়েছিল জাতিসংঘ।

জাতিসংঘের সদস্যপদ প্রাপ্তি বাংলাদেশের জন্য মোটেই সহজ ব্যাপার ছিলনা। কেবল বঙ্গবন্ধুর প্রবল ব্যক্তিত্বর জন্যই বাংলাদেশের এই প্রাপ্তি দ্রুত সম্ভব হয়ে ওঠে।

স্বাধীনতার অব্যবহিত পরেই জাতিসংঘের সদস্যপদ প্রাপ্তির লক্ষ্যে বাংলাদেশ নিরবচ্ছিন্ন প্রচেষ্টা চালায়। ১৯৭২ সালে জাতিসংঘ সদরদপ্তরে সাধারণ পরিষদের অধিবেশন চলাকালে বাংলাদেশের তৎকালীন পররাষ্ট্র মন্ত্রির নেতৃত্বে একটি পর্যবেক্ষক দল বাংলাদেশের সদস্যপদ প্রাপ্তির লক্ষ্যে তৎপরতা চালায়। কিন্তু জুলফিকার আলী ভুট্রোর সময়ে পাকিস্তান সরকারের প্ররোচনায় নিরাপত্তা পরিষদে চীনের ভেটো প্রয়োগের কারণে পর পর দু’বারই বাংলাদেশ জাতিসংঘের সদস্য হতে ব্যর্থ হয়।

অর্থাৎ আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলেও বাংলাদেশ নিয়ে বঙ্গবন্ধুকে আরো বড় রাজনৈতিক লড়াইয়ে অবতীর্ণ হতে হয়। ১৯৭৪ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের ওআইসির সদস্যপদ লাভের পর সে বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সদস্যপদ লাভ এবং ২৫ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘে প্রথম বাংলায় ভাষণদান- এত অল্প সময়ে এতগুলো মৌলিক কাজ সম্পাদন করা ছিল জাতির পিতার জন্য একটি বিশাল অর্জন।

বাংলাদেশ ১৯৭৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘে সদস্যপদ লাভ করলেও এর পূর্ব থেকেই জাতিসংঘের বিভিন্ন অঙ্গ সংস্থায় সদস্যপদ লাভ করতে শুরু করে। প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশকে প্রথম জাতিসংঘ সংস্থায় সদস্যরূপে স্বাগত জানায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। এর পরপরই বাংলাদেশ জাতিসংঘের বেশিরভাগ বিশেষায়িত অঙ্গ সংস্থার সদস্যপদ লাভ করে।

বর্তমানে বাংলাদেশে জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার কার্যক্রম ব্যাপক আকারে দেখা যায়। বাংলাদেশের জনগণের উন্নয়ন ও অগ্রগতির লক্ষ্যে ১০ টির বেশি জাতিসংঘ সংস্থা বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে সরকার এবং জনগণের সাথে একত্রিত হয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

জাতিসংঘ সংস্থাসমূহের কাজের ক্ষেত্রগুলো হচ্ছে অর্থনীতি, বিদ্যুৎ শক্তি, পরিবেশ, জরুরী সহায়তা, শিক্ষা, দুর্যোগ, খাদ্য, জেন্ডার ইস্যু, সুশাসন, স্বাস্থ্য, মানবাধিকার, আদিবাসী জনগোষ্ঠী, অভিগমন, পুষ্টি, অংশীদারিত্ব, জনসংখ্যা, দারিদ্র, শরণার্থী, শহরায়ন, কর্মসংস্থান এবং জীবনধারণ।

বাংলাদেশে অবস্থিত জাতিসংঘের অনেক সংস্থা আর্থ-সামজিক প্রজেক্ট তৈরিতে সহায়তার লক্ষ্যে দেশের জনগোষ্ঠীকে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কর্মসূচী, ফেলোশিপ অথবা গবেষণার জন্য ফান্ড প্রদান করে থাকে। বাংলাদেশের উন্নয়ন কৌশল জাতিসংঘের সংস্থা সমূহের সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে সম্পন্ন হয় এবং জাতিসংঘের এই সংস্থাসমূহের একটি করে অফিসও বাংলাদেশে রয়েছে।

বাংলাদেশের ভাবমূর্তি জাতিসংঘের মাধ্যমে বিশ্বে আরো সমুন্নত হয়েছে। বাংলাদেশ জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৪১তম অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেছে, দু’বার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ ও মানবাধিকার পরিষদের সদস্য ছিলো এবং জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কমিশন ও নিরস্ত্রীকরণ সম্মেলনের চেয়ারম্যান ছিলো।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষায় বাংলাদেশ শীর্ষস্থানীয় ভূমিকা পালন করছে। বাংলাদেশের লক্ষাধিক শান্তিরক্ষী জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা অভিযানে অবদান রেখে চলেছে।

 

আপনার মতামত জানানঃ