ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   ১৫ লাখ যাত্রী পরিবহনে প্রস্তুত রাখা হয়েছে ২২ লঞ্চ ও স্টিমার

১৫ লাখ যাত্রী পরিবহনে প্রস্তুত রাখা হয়েছে ২২ লঞ্চ ও স্টিমার

September 4, 2016 - 1:50 PM

বরিশাল : পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে ঢাকা-বরিশাল নৌ রুটে দক্ষিণের ১৫ লাখ যাত্রী পরিবহনে প্রস্তুত রাখা হয়েছে ২২ লঞ্চ ও স্টিমার।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে পবিত্র ঈদুল আজহা। তাই লঞ্চের স্পেশাল সার্ভিসও একদিন পেছানো হয়েছে। তবে অপরিবর্তিত রয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিউটিসি) স্টিমার সার্ভিস।

আগামী ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ঢাকা-বরিশাল নৌ রুটে লঞ্চের স্পেশাল সার্ভিস শুরু হচ্ছে। এ ছাড়া এই রুটে বিআইডব্লিউটিসির স্টিমারের বিশেষ সার্ভিস শুরু হবে ৮ সেপ্টেম্বর থেকে।

রোববার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল সংস্থার (যাপ) সহ-সভাপতি সাইদুর রহমান রিন্টু ও বিআইডব্লিউটিসির বরিশালের সহকারী মহা-ব্যবস্থাপক মো. আবুল কালাম আজাদ।

যাপ-এর সহসভাপতি সাইদুর রহমান রিন্টু জানান, ইতোপূর্বে ১২ সেপ্টেম্বর পবিত্র ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হবে ভেবে লঞ্চের যাত্রীদের জন্য ঢাকা-বরিশাল নৌ রুটে ৮ সেপ্টেম্বর লঞ্চের বিশেষ সার্ভিস নির্ধারণ করা হয়েছিল। কিন্তু শনিবার মালিক সমিতির নেতাদের নিয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে একদিন পেছানো হয়েছে। সে সূত্রে আগামী ৯ সেপ্টেম্বর থেকে এ সার্ভিস শুরু হবে।

তিনি বলেন, বিশেষ সার্ভিসে ঢাকা থেকে ১০, ১১ ও ১২ সেপ্টেম্বর ও বরিশাল থেকে ১৫, ১৬, ১৭ ও ১৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অব্যহত থাকবে। এ ছাড়া যাত্রীচাপ থাকলে ১৯ ও ২০ সেপ্টেম্বর কিংবা ঢাকা থেকে ৮ সেপ্টেম্বর বিশেষ সার্ভিস চালু করা হবে।

রিন্টু আরো বলেন, ঢাকা থেকে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন রুটে প্রায় ১৫ লাখ যাত্রী চলাচল করবে। বিশেষ সার্ভিসে বরিশাল-ঢাকা রুটে সরাসরি ১৭টি লঞ্চ চলাচল করবে। এ ছাড়া ৬টি লঞ্চ ঢাকা-বরিশালের পাশাপাশি ঝালকাঠী ও চাঁদপুরের যাত্রী পরিবহন করবে। বিশেষ সার্ভিসে প্রতিদিন মোট ২৩টি লঞ্চ চলাচল করবে।

বরিশাল-ঢাকা নৌরুটে যে ১৭টি লঞ্চ চলাচল করবে সেগুলো হলে পারাবত কোম্পানির পাঁচটি, সুন্দরবন কোম্পানির তিনটি, সুরভী কোম্পানির তিনটি, কীর্তনখোলার দুটি, এমভি টিপু, এমভি ফারহান, কালাম খান ও দ্বীপরাজ।

এ ছাড়া বরাবরের মতো দিবা সার্ভিসের গ্রিন লাইন ওয়াটার ওয়েজের দুইটি জাহাজ এ রুটে যাত্রী পরিবহন করবে।

এ দিকে আগামী ৮ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে বিআইডব্লিউটিসির স্টিমার সার্ভিস। এ বছর ঢাকা-বরিশাল রুটে চলাচল করবে সরকারি পাঁচটি স্টিমার। সেগুলো হলো পিএস আস্ট্রিজ, এমভি মধুমতি, এমভি বাঙালি, এমভি লেপচা ও পিএস টার্ন।

বিআইডব্লিউটিসির বরিশালের সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. আবুল কালাম আজাদ জানান, বরিশাল-ঢাকা রুটে ৮ সেপ্টেম্বর থেকে বিশেষ সার্ভিস শুরু হবে। এ বছর পাঁচটি স্টিমার এ সার্ভিস দিবে। তবে গত ঈদুল ফিতরে এমভি মাহসুদ দুর্ঘটনায় কবলে পড়ায় সেটি মেরামত করা সম্ভব হয়নি। এ সার্ভিস চলবে ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

আপনার মতামত জানানঃ