ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়প্রধান সংবাদ   »   ১০ টাকায় চাল বিতরণ শুরু : প্রধানমন্ত্রী

১০ টাকায় চাল বিতরণ শুরু : প্রধানমন্ত্রী

September 7, 2016 - 9:33 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘খাদ্যবান্ধব’ কর্মসূচির আওতায় দেশের ৫০ লাখ পরিবারকে ১০ টাকা কেজিতে চাল বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেছেন।  বুধবার দুপুরে কুড়িগ্রামের চিলমারী থানাহাট এ ইউ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এক সুধী সমাবেশে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।  শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশে কোনো মানুষ যেন দরিদ্র না থাকে, বাংলাদেশ উন্নত হবে, সমৃদ্ধ হবে- সে লক্ষ্যে আমরা এই কর্মসূচি চালু করেছি।’  ‘শেখ হাসিনার বাংলাদেশ, ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ’ এই শ্লোগানে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচিতে হতদরিদ্রদের মাঝে বছরে সাড়ে সাত লাখ টন চাল বিতরণ করা হবে।  হতদরিদ্র ৫০ লাখ পরিবার মার্চ, এপ্রিল এবং সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বর- এই পাঁচ মাস এই সুবিধা পাবেন। ১০ টাকা কেজি দরে মাসে ৩০ কেজি পর্যন্ত চাল কিনতে পারবে তারা।
এ কর্মসূচিতে নারী, বিধবা ও প্রতিবন্ধী নারী প্রধান পরিবারকেই প্রাধান্য দেওয়া হবে।  কর্মসূচি বাস্তবায়নে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে সংশ্লিষ্ট কমিটি প্রতি পাঁচশ পরিবারের জন্য একজন করে ডিলার নিয়োগ দিচ্ছে। আর সুবিধাভোগী প্রত্যেক পরিবারকে দেওয়া হচ্ছে একটি করে কার্ড। সেই কার্ড তুলে দিয়েই কর্মসূচির সূচনা করেন প্রধানমন্ত্রী।  অনুষ্ঠানে স্থানীয় বাসিন্দা হালিমা বেগম, জিয়ারা খাতুন, মালতী রায়, বাসন্তী রানী, ফাতেমা বেগম, রশিদা, জাহাঙ্গীর আলম, আবু বক্কর সিদ্দিক, খালেক উদ্দিন, ফরিদউদ্দিন, আব্দুল হক, আজিজুল হকসহ বেশ কয়েকজনের হাতে ১০টাকা কেজির চালের কার্ড তুলে দেন তিনি।
কুড়িগ্রাম জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের অফিস থেকে জানা যায়, জেলায় মোট এক লাখ ২৫ হাজার ২৭৯টি পরিবার খাদ্যবান্ধব কার্ডের মাধ্যমে এ কর্মসূচির সুফল পাবে।  এর মধ্যে চিলমারীর আট হাজার ২১টি দরিদ্র পরিবারকে এই কার্ড দেওয়া হয়েছে। কুড়িগ্রাম সদরে ১৭ হাজার ৭২২টি, নাগেশ্বরীতে ২৪ হাজার ২০, ভুরুঙ্গামারীতে ১৩ হাজার ৯৮৫, ফুলবাড়ীতে ৯ হাজার ২৯৮, রাজারহাটে ১০ হাজার ৬০২, উলিপুরে ২৪ হাজার ২০৮, রৌমারীতে ১২ হাজার ৬৮৫ এবং রাজীবপুর উপজেলায় ৪ হাজার ৭৩৮টি কার্ড বিতরণ প্রক্রিয়াধীন।  এই চাল বিক্রির জন্য জেলায় ২৪৭ জন সম্ভাব্য ডিলারের মধ্যে ১২৬ জনকে ইতোমধ্যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। অনুষ্ঠানে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলামের সভাপতিত্বে মন্ত্রণালয়ের সচিব এ এম বদরুদ্দোজা স্বাগত বক্তব্য দেন। তিনি জানান, সরকার প্রতি কিলোগ্রাম চালে ২৭ টাকা ভর্তুকি দিচ্ছে। সরকারকে মোট দুই হাজার ১০০ কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হচ্ছে।  সভাপতির বক্তব্যে মন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, ‘হতদরিদ্রদের মাঝে বছরে পাঁচ মাস এই চাল দেওয়া হবে। যখন কাজের একটু অভাব থাকে তখন।’  তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, কোনো রকম ‘ভুল-ত্রুটি ছাড়া’ চালিয়ে নেওয়া গেলে সামাজিক নিরাপত্তার এই নতুন কর্মসূচি সফল হবে।

আপনার মতামত জানানঃ