ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  বিনোদন   »   হুমায়ূন আহমেদের স্মৃতি চারণে আবুল হায়াত

হুমায়ূন আহমেদের স্মৃতি চারণে আবুল হায়াত

নভেম্বর ১৩, ২০২০ - ৫:৪১ অপরাহ্ণ

আবুল হায়াত বহুবছর ধরে টিভি নাটকে, সিনেমায় আর বিজ্ঞাপনে সফলতার সাথে অভিনয় করে আসছেন। তার প্রথম নাটক ইডিপাস ১৯৬৯ সালে বের হয়েছিল। জনপ্রিয় লেখক হুমায়ুন আহমেদ রচিত প্রচুর নাটকে তিনি অংশ নিয়েছেন। মিসির আলি তার একটি স্মরণীয় চরিত্র। এর পর একে একে ৫০০ এরও অধিক নাটকে অভিনয় করেছেন।

আবুল হায়াত বলেন বন্ধু বলতে যা বোঝায় তা ঠিক নয়। তবে খুব ক্লোজ ছিলাম। দারুণ আন্তরিকতা ছিলো আমাদের মধ্যে। সিনিয়র-জুনিয়র ব্যাপারটাও নয়। কাজের সূত্রে পরিচয়, তারপর আন্তরিকতা। সম্ভবত ১৯৮৪ সালে হুমায়ূন আহমেদ প্রথম নাটক নির্মাণ করেন। সে নাটকে কাজ করেছিলাম। এরপর আরও অসংখ্যবার তার সঙ্গে কাজ করেছি। তিনি চিত্রনাট্যে বড় বড় অক্ষরে আমার নাম লিখে উল্লেখ করে দিতেন, এই চরিত্রটি হায়াত ভাইয়ের।

অত্যন্ত উঁচু মানের একজন নাট্যকার ও গল্পকার। তার সংলাপ খুব সহজেই দর্শকের হৃদয়ে গেঁথে যেত। চমৎকার করে গল্প বলতে পারতেন। দর্শক মুগ্ধ হয়ে সেই গল্প দেখতেন। শিল্পীরাও মুগ্ধ হয়ে অভিনয় করতেন। আমি তাকে সাহিত্যিক, চিত্রনাট্যকার হিসেবেই বেশি এগিয়ে রাখবো।

তিনি বন্ধুবৎসল মানুষ। অনেকদিন একসঙ্গে কাটিয়েছি। অনেক অনেক স্মৃতি আমাদের। তাকে হারিয়ে ফেলাটা তো বিষাদের বটেই। আর তার না থাকার শূন্যতাও আছে।

আবুল হায়াত বলেন খুব মনে পড়ে। তিনি আড্ডাবাজ মানুষ ছিলেন। একটা সময় বিটিভিতে আমরা রেগুলার প্রচুর আড্ডা দিতাম। রিহার্সালগুলোতে উৎসব হতো। তিনি জমজমাট সব উৎসবের আয়োজন করে নানা রকম আইডিয়া নিয়ে। সেইসব আড্ডা ছিলো সুন্দর, নির্মল। সেইসব দিনগুলো মিস করি। বিশেষ বিশেষ স্টাইলে সংলাপগুলো পড়তেন তিনি। আমাদের সেসব মুগ্ধ করতো। আমার সঙ্গে তার সম্পর্কটা বন্ধুর মতো না হলেও বললাম না যে খুব আন্তরিক ছিলাম আমরা। আমাদের মধ্যে পারিবারিক সম্পর্কটাও ছিলো দারুণ।

আসলে হুমায়ূন আহমেদ বহু বহু গুণে গুনান্বিত একজন মেধাবী মানুষ। তাকে মনে পড়ে যায় বারবার, তার কর্ম ও গুণের কারণেই। তার চলে যাওয়াটা জাতির জন্য একটা বিরাট লস। আমাদের শোবিজের জন্যও বিরাট ক্ষতি হয়েছে।

কাশেমের চরিত্রটি আমার কাছে খুব প্রিয়। মাল্টি ডাইমেনশনাল ক্যারেক্টার। সাধারণ জেলে থেকে চোর, চোর থেকে ব্যবসায়ী, সেখান থেকে জমিদার, জমিদার থেকে খুনী। সে আবার গান হায়, ঢোল বাজায়। সে আবার একজন স্নেহময়ী পিতা। মানে এমন পরিবর্তনশীল একটি চরিত্র আমি নিজে তো কখনো করিইনি আমার ধারণা এমন চরিত্র আমি কোথাও দেখিওনি। এই কাশেম চরিত্রটি হুমায়ূন আহমেদের অসাধারণ এক সৃষ্টি।

তারপর বলবো মিসির আলি চরিত্রটিও আমার খুব প্রিয়। অসাধারণ একটি চরিত্র এটি। এখনো অনেকে আমাকে মিসির আলি বলে ডাকে। অনেকে আবার সেই বহুব্রীহি নাটকের সোবহান সাহেব বলেও ডাকে। ওই চরিত্রটিও আমি খুব ভালোবাসি। আরেকটা নাটক ছিলো একা একা। এখানে ৯০ বছরের বৃদ্ধ চরিত্র করেছিলাম। খুব প্রশংসিত সেই চরিত্র। এইসব চরিত্রের নাটকগুলো হুমায়ূনের আউটস্ট্যান্ডিং নাটক। যুগ যুগ ধরে দর্শককে মুগ্ধ করে রেখেছে। আমি তার কাছে কৃতজ্ঞ যে এমন কালজয়ী, দুর্দান্ত সব চরিত্রে তিনি আমাকে কাজের সুযোগ করে দিয়েছেন।

হুমায়ূনের সঙ্গে অনেকদিন দেখা সাক্ষাৎ হতো না। ঢাকা ক্লাবেরই কোনো একটা অনুষ্ঠানে হয়তো শেষ তাকে দেখেছিলাম। সালটা মনে নেই। তবে অনেকে এসে বলতেন যে হুমায়ূন আহমেদ আপনার কথা খুব বলেন। আমি শুনতাম। আমারও তাকে মনে পড়তো। দেখা না হওয়ার আরেকটি কারণ ছিলো আমি কখনো নুহাশ পল্লীতে যাইনি। হুমায়ূন তখন নুহাশ পল্লীতেই বেশি সময় কাটাতেন। সেখানে আড্ডা-উৎসব হতো। আমি কখনো যাাইনি। এবং এখনো না।

আসলে একটা সময় তার চারদিকে অনেক লোক জুটে গেল, বিভিন্ন পেশার লোকজন। যারা তাকে ঘিরে থাকতো। তিনিও তাদের নিয়ে ব্যস্ত থাকতেন। আমি একজন পেশাদার অভিনেতা, পরিচালক, চিত্রনাট্যকার হিসেবে। এখানে প্রতিদিন আমাকে কাজ করতে হয়েছে। সে কাজ ফেলে ওখানে গিয়ে যেসব মিলনমেলা, জমজমাট আড্ডা হতো সেসবে অংশ নিয়ে সময় নষ্ট করা আমার পক্ষে সম্ভব ছিলো না। এমনও শুনতাম যে একটি নাটক হয়তো দুদিনে হবার কথা সেটা চারদিনে গিয়ে ঠেকেছে। আমি চাইলেও তার সঙ্গে তখন কাজ করা হয়ে উঠতো না শিডিউলের জন্য।

আজকের প্রেক্ষাপটে আমি তার লেখা গল্প, চিত্রনাট্য, সংলাপগুলো খুব মিস করি। ছোট গল্প বা খন্ড নাটকের ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন মাস্টারপিস। আমি অবাক হয়ে যাই তার ছোটগল্পগুলো দেখে যে এভাবেও চিন্তা করা সম্ভব। নাটকে তার সংলাপগুলো ম্যাজিকের মতো। বিশেষ করে নাটকে আবেগের দৃশ্যগুলো তিনি দারুণভাবে ফুটিয়ে তুলতেন সংলাপের মধ্য দিয়ে।

আপনার মতামত জানানঃ