ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   হরিপুরে অসহায় ফাতেমার জায়গা জমি

দেখভালের কথা বলে লেখে নিলেও ঘরে ঠাই নেই

হরিপুরে অসহায় ফাতেমার জায়গা জমি

January 18, 2021 - 8:42 PM

মোঃ আনোয়ার হোসেন, হরিপুর উপজেলা প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁও জেলা হরিপুর উপজেলার ৩ নং বকুয়া ইউনিয়নের নারগুন গ্রামের মৃত কেংকর এর স্ত্রী মোছাঃ ফাতেমা বেওয়া (৬০)। স্বামীর কিছু জায়গা জমি নিয়ে সুখের সংসার ছিল। হঠাৎ স্বামীর মৃত্যু হলে অসহায় হয়ে পরে। ছেলে মোঃ আব্দুস সালাম কাজের সন্ধানে ঢাকায় চলে যায় সেখানে অজ্ঞাত কারণে দূর্বৃত্তের হাতে মারা যায় । ফাতেমা বেওয়ার জীবনে নেমে আসে চরম দুর্ভোগ আর হতাশা ।সংসারে তাকে দেখার মত কেউ রইল না। যেটুকু সম্পত্তি ছিল তার লোভে গ্রামের অনেকে দেখভাল করবে আর নানান স্বপ্ন দেখাতে থাকে ।

এপর্যায়ে প্রতিবেশীর নামে রেজিস্ট্রি করে দেয়। কিছু দিন খাওয়ানো পর বৃদ্ধা ফাতেমা বেওয়া কে খাওয়া বন্ধ করে দেয়। এদিকে চাচার সম্পত্তি দাবী করে বৃদ্ধা কে, স্বামীর বাড়ি থেকে ভাতিজা বের করে দিয়ে যাদুরানী হাটের ঘরে থাকার জন্য বলে দেয়।বৃদ্ধার কেউ না থাকায় ভিক্ষা বৃত্তি করে চলতো জীবন, এর বাড়ি ওরবাড়ি যেখানে সেখানে রাত্রি যাপন করতো।অজান্তে ১২-১২ -২০২০ ইং তারিখে হঠাৎ করে গভীর রাতে অসুস্থ অবস্থায় খাগরতলা ব্রিজ নিকট পরে থাকে। অপরিচিত দুই যুবক তুলে এনে হরিপুর হাসপাতালে ভর্তি করে চলে যায়।

হরিপুর হাসপাতালের আর এমও ডাক্তার মোঃ আসাদুজ্জামান জানান, বৃদ্ধার প্রচন্ড জ্বর শ্বাসকষ্ট ছিল।তিনি নিজে ২৫০০ টাকা খরচ করে বৃদ্ধার চিকিৎসা করেন।এবং পরবর্তীতে ব্যক্তিগত ভাবে হরিপুর সমাজ সেবা অফিসে বৃদ্ধা চিকিৎসার জন্য যোগাযোগ করে,এবং ১০০০ টাকা পায় এবং সে টাকা দিয়ে চিকিৎসার জন্য খরচ করা হয়। চিকিৎসা শেষে যে নিজ বাড়িতে ফিরবে সে আশাটুকু নেই। বৃদ্ধার আকুল আবেদন সমাজের বিত্তবান শ্রেণীর মানুষের নিকট, সে যেন স্বামীর ভিটা মাঠিতে ফিরে পায়। আর যে খাওয়ানোর কথা বলে জমি লিখে নিয়েছে, সেই প্রতারকের বিচার সৃষ্টি কর্তার চায়।

আর ফাতেমা বেওয়ার কান্না দু,মুঠো ভাত কে আমাকে দিবে? স্বামী সন্তান হারিয়ে পৃথিবীতে একা, চোখের জল শুকিয়ে গেছে। দেহে শক্তি নেই, বর্তমানে হরিপুর হাসপাতালে বসে অপলক দৃষ্টি তাকিয়ে আছে? কি হবে তার কোথায় যাবে, ঠিকানা কোথায়।

আপনার মতামত জানানঃ