ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আইন-আদালত   »   হবিগঞ্জের দুই রাজাকারের অভিযোগ গঠন ১ নভেম্বর

হবিগঞ্জের দুই রাজাকারের অভিযোগ গঠন ১ নভেম্বর

September 29, 2016 - 7:45 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় পলাতক হবিগঞ্জের প্রাক্তন ইউপি চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী ও আমিনুল ইসলাম ওরফে রজব আলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি শেষ হয়েছে।

এ বিষয়ে আদেশের জন্য ১ নভেম্বর ধার্য করেছেন ট্রাইব্যুনাল।

বৃহস্পতিবার বিচারপতি মো. আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এই আদেশ দেন।

আদালতের রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন প্রসিকিউটর রানা দাশ গুপ্ত এবং রেজিয়া সুলতানা চমন। আসামিদের পক্ষে ছিলেন রাষ্ট্র নিযুক্ত আইনজীবী গাজী এম এইচ তামিম।

এর আগে গত ১৮ মে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেন ট্রাইব্যুনাল। তবে মামলার দুই আসামি পলাতক থাকায় প্রসিকিউশনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ট্রাইব্যুনাল।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল থেকে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির পরেও আসামিদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। তাই গত ২১ জুন তাই আসামিদের হাজির হওয়ার জন্য তাদের বিরুদ্ধে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তির প্রকাশের নির্দেশ দেন আদালত।

হবিগঞ্জের লিয়াকত আলী ও আমিনুল ইসলাম ওরফে রজব আলীর বিরুদ্ধে হত্যা, গণহত্যা, আটক, অপহরণ, নির্যাতন ও লুটপাটের সাতটি মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে।

একাত্তরের লাখাই থানার ফান্দাউক ইউনিয়ন রাজাকার কমান্ডার সে সময়কার মুসলিম লীগ নেতা মো. লিয়াকত আলী ও হবিগঞ্জের অধিবাসী কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রাম থানার আলবদর কমান্ডার রজব আলীর বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর মামলার তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেন ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা। তাদের বিরুদ্ধে তারা দুজনে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে কাছাকাছি তিন থানা হবিগঞ্জ জেলার লাখাই, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর ও কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রামে এসব মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছেন।

৩১৩ পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদনে ১৭৯ পৃষ্ঠার দালিলিক প্রমাণ, ৭২ পৃষ্ঠার মূল প্রতিবেদন এবং ৬২ পৃষ্ঠার সাক্ষীদের জবানবন্দি রয়েছে। এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. নূর হোসেন ২০১৪ সালের ৫ নভেম্বর থেকে ২০১৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত তদন্তকাজ সম্পন্ন করেন। ঘটনার ২৭ জন ও জব্দ তালিকার দুজনসহ মোট ২৯ জন সাক্ষী দুই আসামির বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেবেন।

আপনার মতামত জানানঃ