ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   হঠাৎ করে হাত-পা অবশ

হঠাৎ করে হাত-পা অবশ

অক্টোবর ২৯, ২০২০ - ১১:২৭ পূর্বাহ্ণ

অনেক সময় মানুষের শরীরের স্নায়ু আকস্মিকভাবে আক্রান্ত হয়ে হাত-পা অবশ হয়ে পড়ে। এ রোগকে গুলেইন-বারি সিনড্রোম (জিবিএস) বলে। ১৯১৬ সালে ফরাসি স্নায়ুবিদ জর্জ গুলেইন এবং জ্যাঁ আলেকজান্দ্রে বারি প্রথম এই রোগের কথা বর্ণনা করেন। এই রোগে যেকোনো বয়সের মানুষ যেকোনো সময় আক্রান্ত হতে পারেন। জেনে নেওয়া যাক রোগটির বিস্তারিত।

যে কারণে হয়

ধারণা করা হয়, কিছু ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাস এই রোগের কার্যকারণের সঙ্গে সম্পর্কিত। যেমন ক্যাম্পেইলোবেকটার জেজুনি, এপসটেইন-বার ভাইরাস ইত্যাদি। এসব জীবাণু দিয়ে শরীরে সংক্রমণের তিন সপ্তাহের মধ্যে সাধারণত এই রোগ শুরু হয়। টিকা দেওয়ার পর গুলেইন-বারি সিনড্রোমে আক্রান্ত হয়েছেন, এমন রোগীও পাওয়া গেছে। গুলেইন-বারি সিনড্রোম একটি অটো ইমিউন রোগ বা আমাদের ইমিউন ব্যবস্থার ত্রুটির কারণে হয়ে থাকে।

বুঝবেন যেভাবে

লক্ষণ শুনে ও হাত-পায়ের স্নায়ু পরীক্ষা করে অনেকটাই ধারণা করা সম্ভব যে জিবিএস হয়েছে। রোগ নির্ণয় করার জন্য কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা হলো নার্ভ কন্ডাকশন স্টাডি। এ ছাড়া সিএসএফ স্টাডি বা স্পাইনাল ফ্লুইড পরীক্ষা, কিছু রক্ত পরীক্ষা, ইসিজিও করা হয়। রোগীর শ্বাসকষ্ট হলে আরও কিছু পরীক্ষা লাগতে পারে, যেমন স্পাইরোমেট্রি।

চিকিৎসা

লক্ষণ শুনে জিবিএস সন্দেহ হলে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া উচিত। চিকিৎসা নির্ভর করে রোগের লক্ষণ ও তীব্রতার ওপর। ফিজিওথেরাপি, নিবিড়ভাবে রক্তচাপ, হৃৎস্পন্দন, শ্বাসপ্রশ্বাস পর্যবেক্ষণ করা খুব জরুরি। অনেক সময় পাঁজরের পেশি অবশ হয়ে গেলে ও শ্বাসকষ্ট বেশি হলে ভেন্টিলেটর সাপোর্ট লাগতে পারে। তাই বিশেষ ধরনের মোজা ব্যবহার, রক্ত তরল রাখার ওষুধ লাগতে পারে। ফিজিওথেরাপি ও অকুপেশনাল থেরাপি এসব রোগীর জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ।

আপনার মতামত জানানঃ