ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   স্মার্ট কার্ড পেয়ে খুশি বিলুপ্ত ছিটের বাসিন্দারা

স্মার্ট কার্ড পেয়ে খুশি বিলুপ্ত ছিটের বাসিন্দারা

October 3, 2016 - 12:18 PM

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র পেয়ে দারুণ খুশি কুড়িগ্রামের অধুনালুপ্ত ছিটমহল দাসিয়ারছড়ার ভোটাররা।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দীন আহমেদ সোমবার দুপুরে বিলুপ্ত ছিটের বাসিন্দাদের হাতে স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র তুলে দেন।

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার অধুনালুপ্ত ছিটমহল দাসিয়ারছড়ার কালিরহাট বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে জাঁকজমক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ উদ্বোধন করা হয়। আর এর মধ্য দিয়ে এক বছর দু’মাস পর ভোটার হওয়াসহ নাগরিকত্বের পূর্ণতা পেলেন ছিটবাসীরা।

স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র পেয়ে খুশি বিলুপ্ত ছিটের মানুষেরা। এর মধ্য দিয়ে তারা ভোটাধিকার প্রয়োগ, ব্যাংক হিসাব, চাকরির আবেদন, বিয়ে ও তালাক রেজিস্ট্রেশনসহ ২২টি সেবাখাতের সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।

প্রথম দিনে সদ্য ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হওয়া অধুনালুপ্ত ছিটবাসীর ২১৯ জনসহ ৯৮৫ জনের মাঝে জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ করা হবে। পর্যায়ক্রমে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত জেলার অভ্যন্তরে বিলুপ্ত অন্যান্য ছিটমহলের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের ভোটারদের মাঝে স্মার্ট কার্ড বিতরণ করা হবে।

স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব মোখলেসুর রহমানের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল মোবারক, মোহাম্মদ আবু হাফিজ, মো. শাহ্ নেওয়াজ, নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব বেগম জেসমিন টুলী, কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক খান মো. নুরুল আমিন ও পুলিশ সুপার মো. তবারক উল্ল্যা প্রমুখ।

১৯৭৪-এ ইন্দিরা-মুজিব চুক্তি ও ২০১১ সালে হাসিনা-মনমোহনের প্রটোকল স্বাক্ষর-পরবর্তীতে ভারতের লোকসভায় চূড়ান্ত অনুমোদনে মুক্তির স্বপ্ন দেখে দু’দেশের অভ্যন্তরে থাকা ১৬২টি ছিটমহলের প্রায় ৫১ হাজার মানুষ। এরপর ২০১৫ সালের ৩১ জুলাই রাত ১২টা ১ মিনিটে বিলুপ্ত ঘটে ছিটমহল নামটি। এরপর থেকে ছিটমহলের উন্নয়নে নানা কর্মকা- চললেও জাতীয় পরিচয় ছিল না তাদের।

স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র পেয়ে খুশি বিলুপ্ত ছিটের মানুষেরা। ভোটাধিকার প্রয়োগ, ব্যাংক হিসাব, চাকরির আবেদন, বিয়ে ও তালাক রেজিস্ট্রেশনসহ ২২টি সেবাখাতের সুবিধা ভোগ করতে পারবেন তারা।

স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়া দাসিয়ারছড়ার ছোট কামাত গ্রামের ইব্রাহীম খা (৬০) জানান, শেষ বয়সে এসে বাংলাদেশের পরিচয়পত্র পেয়েছি। এখন থেকে ভোট দিতে পারব, জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে সব জায়গায় ঘুরতে পারব- এটাই বড় পাওয়া।

দাসিয়ারছড়ার মোছা. চম্পা খাতুন (৩৫) বলেন, আগে আমাদের ছেলে-মেয়ে ভুয়া পরিচয়ে লেখা-পড়া করত এখন আর ভুয়া পরিচয়ে লেখা-পড়া করতে হবে না। আমরা এই জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে দেশের সব সুবিধা ভোগ করব।

প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কাছ থেকে স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র পেয়ে মহা আনন্দিত হয়েছে মছিরন বেগম ও মজনু শেখসহ স্মার্ট কার্ড পাওয়া ছিটমহলের মানুষেরা।

বাংলাদেশ-ভারত ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা জানান, দীর্ঘ প্রতীক্ষার স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়ার মাধ্যমে অবসান হয়েছে পরিচয়হীনতার। শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ নাগরিকত্বের সব মৌলিক অধিকার নিয়ে এগিয়ে যেতে পারবে বন্দিজীবন থেকে মুক্তি পাওয়া মানুষেরা।

স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দীন আহমেদ বলেন, অধুনালুপ্ত ছিটমহলের মানুষের হাতে স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র তুলে দিতে পেরে আমরা গর্ববোধ করছি। আপনার দীর্ঘ ৬৮ বছর অনেক কষ্ট করেছেন আর কষ্ট করতে হবে না। এই স্মার্ট কার্ড পাওয়ার মাধ্যমে আপনারা আপনাদের নাগরিক অধিকার পাবেন।

আপনার মতামত জানানঃ