ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   সেনাবহরে হামলা প্রতিরুদ্ধে তুরস্ক-রাশিয়ার যৌথ মহড়া

সেনাবহরে হামলা প্রতিরুদ্ধে তুরস্ক-রাশিয়ার যৌথ মহড়া

সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০ - ৯:২৬ অপরাহ্ণ
সেনাবহরে হামলা প্রতিরুদ্ধে তুরস্ক-রাশিয়ার যৌথ মহড়া

সিরিয়ার উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় ইদলিবে যৌথ সামরিক মহড়ায় অংশ নিয়েছে তুরস্ক ও রাশিয়ার সেনাবাহিনী। সামরিক বহরে বিদ্রোহী হামলাসহ জরুরি পরিস্থিতি সমন্বয়ে পর্যাপ্ত প্রস্তুতির বিষয়টি মহড়ায় প্রদর্শন করা হয়।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) অসামরিক অঞ্চল ইদলিবের সমন্বয় কেন্দ্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইয়েভগেনি পোলিয়াকোভ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বলেন, টহলে নিয়োজিত যৌথবাহিনীর সদস্যদের মধ্যে সমন্বয় এবং বিশেষ সংকেত ব্যবহার করে যোগাযোগ প্রতিষ্ঠার বিষয়টি মহড়ায় গুরুত্ব পেয়েছে।

পোলিয়োকোভ বলেন, মহড়ার মূল উদ্দেশ্য ছিল দু’দেশের সেনাদের মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন। বিশেষ জরুরি প্রয়োজনে যাতে তারা সঠিকভাবে পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে পারে।

ওই অঞ্চলের সন্ত্রাসীগোষ্ঠীগুলো মাঝে মাঝে তুর্কি-রুশ যৌথ টহল দলের উপর হামলা করে থাকে। তা থেকে নিজেদের কীভাবে রক্ষায় করা যায় তা মহড়ায় উপস্থাপন করা হয়।

গেলো মাসে ওই অঞ্চলে তুর্কি-রুশ যৌথ টহলে আঙ্কারার একটি সামরিক গাড়ি বিস্ফোরণের শিকার হয়। এতে গাড়িটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কেউ নিহত হয়নি বলে জানায় আঙ্কারা। ইদলিবের আরিহা শহরের কাছে সন্ত্রাসীদের চালানো রকেট থেকে ছোড়া গ্রেনেড হামলার শিকার হয় গাড়িটি।

সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে আলাদা দু’টি পক্ষকে সমর্থন করে তুরস্ক ও রাশিয়া। ৫ মার্চ উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় ইদলিবে সামরিক কার্যক্রম বন্ধে একমত হয় তারা। এর আগে বিবাদমান পক্ষগুলোর মধ্যকার সংঘাতে অন্তত ১০ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়।

শরণার্থীর স্রোত এবং ওই অঞ্চলে নিয়োজিত তুর্কি সেনাদের রক্ষায় আঙ্কারার উদ্যোগে রাশিয়ার সঙ্গে ওই চুক্তি করে এরদোয়ান প্রশাসন।

চুক্তি অনুযায়ী সিরিয়ার পূর্ব এবং পশ্চিম এম-ফোর মহাসড়কে যৌথ নিরাপত্তা করিডার তৈরি করে আঙ্কারা-মস্কো। ১৫ মার্চ প্রথম যৌথ টহল শুরু হয়।

দীর্ঘদিন যাবত বাশার আল আসাদ সরকার এবং তার মিত্ররা ইদলিবকে অবরুদ্ধ করে রেখেছে। আগের যুদ্ধবিরতি চুক্তিতে বিবাদমানপক্ষগুলোর অব্যাহত লঙ্ঘনের কারণে মুখ থুবড়ে পড়ে।

২০১৮ সালের এপ্রিলে বিদ্রোহীদের সবশেষ ঘাঁটি ইদলিবে বিদেশি মিত্রদের সহায়তায় হামলা জোরদার করে আসাদ সরকার। তুর্কি সীমান্ত দেখা দেয় বাস্তুচ্যুত মানুষের ঢল। তুরস্ক ৩৭ লাখ সিরীয় শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়ে রেখেছ। নতুন শরণার্থীর চাপে তখন ভয়াবহ পরিস্থিতির তৈরি হয়।

পরে ন্যাটোর দ্বিতীয় সর্ববৃহৎ সেনা সমৃদ্ধ দেশ তুরস্ক সিরিয়ার সরকারের হামলা বন্ধে ওই অঞ্চলে সামরিক বাহিনী এবং সরঞ্জাম পাঠায়। তারপর থেকে সাধারণ মানুষকে রক্ষা এবং সন্ত্রাসীদের প্রতিহত করতে ইদলিবে সেনা মোতায়েন রেখেছে তুরস্ক।

আপনার মতামত জানানঃ