ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   সুরমার দুই পাড়ে ভাসছে গ্রামের পর গ্রাম

দ্বিতীয়বারের মতো ঢলের পানি প্রবেশ

সুরমার দুই পাড়ে ভাসছে গ্রামের পর গ্রাম

জুলাই ১১, ২০২০ - ১১:৩৫ পূর্বাহ্ণ
সুরমা

সুরমা, যাদুকাটা, চলতি রক্তি নদীর দুই পাড়ে উপচে দ্বিতীয়বারের মতো ঢলের পানি প্রবেশ করছে হাওর ও লোকালয়ে। হাওরের পানির উচ্চতা ও চাপ বেড়ে যাওয়ায় আবারও বন্যায় প্লাবিত হচ্ছে সুনামগঞ্জ। নদনদী খাল বিল চারদিক থেকে উপচে প্রবল বেগে পানি ঢুকছে ঘরবাড়িতে।

গবাদি পশু নিয়ে লোকজন উঁচু এলাকার আশ্রয়ে ছুটে চলছেন। পানি আর বাতাসের শোঁ শোঁ আওয়াজে ভীত হয়ে পড়েছেন হাওর এলাকার মানুষ। প্রায় বাড়িতে উঠে গেছে বন্যার পানি। গরু ছাগল ও গৃহপালিত পশু পাখি নিয়ে বিপাকে পড়েছেন হাজার হাজার মানুষ। প্রথম দফার বন্যার পানি নামতে না নামতেই দরিদ্র মানুষের দুয়ারেও হানা দিয়েছে দ্বিতীয় দফা বন্যার পানি। বন্যার সঙ্গে যোগ হয়েছে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ।

জেলার তাহিরপুর দোয়ারাবাজার, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার মেঘালয় সীমান্তের শতাধিক ঝরনা পানি উজান থেকে প্রবল বেগে নামছে ভাটিতে। নামার সময় ভাসিয়ে নিয়ে যাচ্ছে বসতভিটে ঘরবাড়ি, গবাদি পশুর খাবার, পুকুরের মাছসহ নানা ঘরগৃহস্থালীর মূল্যবান সম্পদ।

এরকম চিত্র দেখা যায় সদর উপজেলার লালপুর, রাধানগর, কুতুবপুর, রসুলপুর, চালবন, ভাদেরটেক গ্রামে। যত দূর চোখ যায় পানি আর পানি। সুরমা নদীর দুকুল ছাপিয়ে সড়ক উপচে প্রবল বেগে পানি ঢুকছে দ্বীপের মতো গ্রাম গুলোতে। ঢলে পানিতে সুনামগঞ্জ সাচনা, সুনামগঞ্জ বিশ্বম্ভরপুর, সুনামগঞ্জ তাহিরপুর, সুনামগঞ্জ দোয়ারাবাজার সড়কের পৃথক কুড়িটি স্থান দিয়ে সড়ক উপচে পানি প্রবেশ করছে। বিভিন্ন জায়গায় চলাচলকারী যানবাহন ও পথচারীরা হাঁটু পানি মাড়িয়ে টিপটিপ পায়ে হেঁটে যাচ্ছেন।

এছাড়া সুনামগঞ্জ ছাতক রোডের নবনির্মিত বক্স কালভার্টগুলো দিয়ে বিকট আওয়াজে পানি ঢুকছে আমবাড়ি ও এর আশপাশের এলাকায়। পানির তোড়ে কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত কালভার্টগুলোর সংযোগ সড়ক গুলো থেকে মাটি সরে যাচ্ছে।

সদর উপজেলা গৌরারং ইউনিয়নের লালপুর গ্রামের জামাল উদ্দিন বলেন, ১০ দিনের মধ্যে পরপর দুইবার বন্যায় প্লাবিত হচ্ছে এলাকা। প্রথম দফা বন্যার পানি এখনো ঠিক মতো সরে যায়নি।

আবার দ্বিতীয় দফা বন্যায় আক্রান্ত হচ্ছেন তারা। হানিফ মিয়া বলেন, সুনামগঞ্জ টু বিশ্বম্ভরপুর সড়কের দেড় কিলোমিটার জায়গা দিয়ে প্রবল বেগে পানি ঢুকছে। পানি তোরে সড়কে সৃষ্টি হয়েছে শতশত গর্ত। পানির নিচে গর্ত থাকায় যানবাহনের চালকরা অনেক সময় গাড়ি নিয়ে আটকা পড়ে যান। তিনি বলেন সড়কটি খুব নিচু করে তৈরি করা হয়েছে তাই প্রতিবছর বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

জেলা প্রশাসনের বন্যা নিয়ন্ত্রণ কক্ষ সূত্রে জানা যায়, জেলার ১১ টি উপজেলা ও ৪টি পৌরসভার ৪২ হাজার ৫৭ টি পরিবার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাহিরপুর উপজেলা কম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দিরাই উপজেলা। ৭৯টি আশ্রয় কেন্দ্রে ২৩৭টি পরিবার আশ্রয় নিয়েছেন।

জেলার ৮১ টি ইউনিয়নের ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ২৮০ মেট্রিকটন চাল, ১৬ লাখ ৯৪ হাজার ২৫০ টাকা ও ৩০৫০ প্যাকেট শুকনো খাবারের প্যাকেট। শিশু খাদ্য ঢেউটিন, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট ও প্রয়োজনীয় ওষুধ সরবরাহ করা হয়েছে।

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, গতকাল (১০ জুলাই) শুক্রবার সন্ধ্যায় সুরমা নদীর পানি বিপদ সীমার ২৫ সেন্টিমিটার ও বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার শক্তিয়ারখলা পয়েন্টে সেন্টিমিটার যাদুকাটা নদীর পানি বিপদসীমার ৩০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ১২৩ সেন্টিমিটার ও সুরমা নদীর পানি ৭৬ সেন্টিমিটার বেড়েছে। গেল ২৪ ঘণ্টায় চেরাপুঞ্জিতে ৫৫১ মিলিমিটার। গেল ২৭,২৮, ২৯ শে জুন থেকে প্রথম দফা বন্যা শুরু হয়েছিল। চলতি মাসের ১০ তারিখ থেকে দ্বিতীয় দফা বন্যা শুরু হয়েছে। তখন চেরাপুঞ্জিতে বৃষ্টিপাত হয়েছিলো ৯৭১ মিলিমিটার।

অস্বাভাবিকভাবে পানি বাড়ায় সুনামগঞ্জ শহরের নিম্নাঞ্চল, শান্তিবাগ, নুতনপাড়া, বড়পাড়া, তেঘরিয়া, ষোলঘর, নবীনগর, ওয়েজখালী, পশ্চিমবাজারসহ ৯টি ওয়ার্ডের নিচু এলাকার পানি বেড়েছে। প্রথম দফা বন্যায় ৩ হাজার ২৬৫ হেক্টর জমির ফসল, ১৫০ কিলোমিটার সড়ক, তিন হাজার পুকুরের ২১ কোটি টাকার মাছ ২৫ হাজার গবাদি পশু ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

এছাড়া ৩৬০ মিটার নদী ভাঙন দেখা দেয়। সদর উপজেলার গৌরারং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফুল মিয়া বলেন, দুই সপ্তাহের মধ্যে পরপর দুই বার বন্যায় আক্রান্ত হয়েছেন সুনামগঞ্জবাসী। প্রথম দফা বন্যার পানি এখনো সরে যায়নি দ্বিতীয় দফায় বন্যা চলে এসেছে। এতে গ্রামের লোকজন আরও বেশি বিপাকে পড়েছেন। গৌরারং ইউনিয়নের ত্রিশটি গ্রাম বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। নিচু এলাকার ঘরবাড়িতে আবারও বন্যার পানি প্রবেশ করছে। করোনা ও বন্যায় বিপন্ন মানুষের জন্য আরও বেশি সহযোগিতার প্রয়োজন।

বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রনজিত চৌধুরী রাজন বলেন, করোনার প্রভাবে নিম্ন আয়ের লোকজন এমনিতেই আয়-রোজগার হীন দিন কাটাচ্ছেন। তারপর আবার দ্বিতীয় দফা বন্যা শুরু হলো। দরিদ্র মানুষের জন্য মানবিক সহায়তা কার্যক্রম আরও বাড়ানো প্রয়োজন।

তাহিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল জানান, তাহিরপুর উপজেলার সবকটি ইউনিয়ন প্রথম দফা বন্যায় আক্রান্ত হয়েছে এখন আবার শুরু হয়েছে দ্বিতীয় দফার বন্যা।

এটি আসলেই মড়ার উপর খাড়ার ঘায়ের মতো। দুর্গত মানুষের জন্য বরাদ্দের পরিমাণ আরও বাড়াতে হবে। সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখত বলেন, দ্রুত বেগে পানি বাড়ছে। এতে শহরের নিম্নাঞ্চলে পানি ডুকে পড়েছে। পৌর কর্তৃপক্ষ পরিস্থিতির উপর সতর্ক নজর রাখছে। যেখানে যা প্রয়োজন তার সবটুকু করা হবে।

সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন, সরকার জনপ্রতিনিধি প্রশাসন সবাই বন্যা দুর্গতদের পাশে রয়েছে। বন্যার শুরু থেকে তারা মাঠে কাজ করছেন এখনো মাঠে আছেন। ত্রাণের কোনো অভাব নেই। কোনো মানুষ এক বেলাও না খেয়ে থাকবে না। যখন যা প্রয়োজন তখন তা সরবরাহ করা হচ্ছে। আরও ত্রাণ লাগলে আরও দেয়া হবে। তিনি আওয়ামী লীগের প্রতিটি নেতাকর্মীকে দুর্গতদের পাশে থেকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বন্যা দুর্গতদের খোঁজ খবর নিয়মিত রাখছেন ও প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিচ্ছেন। কোনো মানুষ অসহায় থাকবে না। ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য মানবিক সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।

আপনার মতামত জানানঃ