ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতিসারা বাংলা   »   সাতক্ষীরায় গ্রাহকদের ১১ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

সাতক্ষীরায় গ্রাহকদের ১১ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

January 23, 2021 - 10:21 AM

সাতক্ষীরায় গ্রাহকদের ১১ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে মার্চেন্ট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেডের বিরুদ্ধে। বাবা এমডি আর ছেলে চেয়ারম্যান হিসেবে সরকার অনুমোদিত অর্থ লগ্নিকারী এ প্রতিষ্ঠানের আমানতের বেশির ভাগ টাকাই আত্মীয়স্বজনসহ নিজেরাই ঋণ নিয়ে মূলধন শূন্য করে ফেলেছে।

যদিও সোসাইটির কর্মকর্তারা বলছেন, করোনার কারণে লেনদেনে সমস্যা দেখা দিয়েছে। যা দ্রুতই সমাধান হয়ে যাবে।

২০০৩ সালে সরকার অনুমোদিত অর্থ লগ্নিকারী প্রতিষ্ঠান সাতক্ষীরা মার্চেন্ট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড যাত্রা শুরু করে। যার এমডি মামুনুর রশিদ ও চেয়ারম্যান পুত্র আহসানুর রশিদসহ আত্মীয়-স্বজনদের নিয়ে ৬ সদস্যের পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়। ১৮ থেকে ২০ শতাংশ মুনাফা দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে সাধারণ মানুষকে আকৃষ্ট করা হয়। অধিক মুনাফা পেতে ধীরে ধীরে আমানতকারীর সংখ্যা বাড়তে থাকে। আর আমানতের টাকা হিসেবে সোসাইটির মূলধন দাঁড়ায় ১১ কোটি টাকা। বেশ কয়েক বছর ঠিকভাবে মুনাফা দিয়ে আসছিল কর্তৃপক্ষ।

হঠাৎ করে মাসিক মুনাফা বন্ধ করে দেয় প্রতিষ্ঠানটি। এতে ভোগান্তিতে পড়েন আমানতকারীরা। অনেকে অসুস্থ স্বজনদের চিকিৎসা করাতে পারছেন না। অপরদিকে প্রতিষ্ঠানটির এমডি ও চেয়ারম্যান ঢাকা ও খুলনায় বাড়ি গাড়ি করে বিলাসবহুল জীবনযাপন করছেন। আমানতকারীরা মুনাফাসহ মূলধন ফিরে পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আমানতকারীরা জানিয়েছেন, সোসাইটির মোট টাকার মধ্যে সোসাইটির এমডি মামুনুর রশিদের কাছে দুই কোটি ৩০ লাখ ও তার চেলে চেয়ারম্যান আহসানুর রশিদের কাছে এক কোটি ২৫ লাখসহ চেয়ারম্যানের ভাই মেহেবুবার রহমানের কাছে ৭০ লাখ, বোন তানিয়ার কাছে ৫০ লাখ, মাতা হোসনেয়ারা বেগমের কাছে ৫ লাখ ও শাশুড়ির কাছে ১৯ লাখ টাকা রয়েছে।

নিজেরা ঋণ নেওয়ার কথা স্বীকার করেই প্রতিষ্ঠানটির এমডি জানান, আমাদের লোন পরিশোধ করা হচ্ছে।

সাতক্ষীরা মার্চেন্ট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেডে মধ্যবিত্ত ও বেসরকারি কলেজ শিক্ষকসহ ৭০০ আমানতকারী তাদের শেষ সম্বল আমানতের টাকা ফেরত পেতে প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন।

আপনার মতামত জানানঃ