ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   সর্দি-কাশি আর জ্বর মানেই করোনা নয়

সর্দি-কাশি আর জ্বর মানেই করোনা নয়

নভেম্বর ২৭, ২০২০ - ১২:৩৩ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশ ঋতুবৈচিত্র্যের দেশ। এখানে প্রতি দুই মাসে একেকটি ঋতু পরিবর্তন হয়। পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে আবহাওয়ার পরিবর্তন আসে।

আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে স্বাভাবিকভাবেই অনেকে সর্দি-কাশি-জ্বরে আক্রান্ত হয়। আবার সামান্য ওষুধ সেবনে দ্রুত সুস্থ হয়ে যায়। এর মধ্যে বিশ্বব্যাপী করোনার দ্বিতীয় প্রবাহ শুরু হয়ে গেছে।

এখন জ্বর-কাশি হলেই অনেকে মনে করছেন, এই বুঝি করোনাভাইরাস। আসলে অন্যান্য ভাইরাসজনিত জ্বরের মতোই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে একই রকম উপসর্গ দেখা দেয়। করোনাভাইরাস মূলত ফুসফুসে আক্রমণ করে। সাধারণত জ্বরের সঙ্গে শুকনা কাশি দিয়ে শুরু হয়। জ্বর ও কাশির এক সপ্তাহের মাথায় শ্বাসকষ্ট অনুভূত হয়। এসব লক্ষণ দেখা দিলে রোগীকে হাসপাতালে নেওয়ার প্রয়োজন হয়ে পড়ে। এই ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির লক্ষণ প্রকাশ পেতে ১৪ দিন পর্যন্ত সময় লাগতে পারে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের ৮১ শতাংশের শরীরে হালকা লক্ষণ দেখা দেয়, যা অন্যান্য ভাইরাল জ্বরের মতো চিকিৎসায় ভালো হয়ে যায়। ১৪ শতাংশের শরীরে মাঝারি লক্ষণ এবং মাত্র ৫ শতাংশ মানুষ গুরুতর অসুস্থ হচ্ছেন, যাঁদের বেশির ভাগই বয়স্ক ও অন্যান্য শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন।

দ্বিতীয় ঢেউয়ের শুরুতেই আমাদের দেশেও হুহু করে বাড়ছে সংক্রমণের হার। ঋতু পরিবর্তিন হচ্ছে। অনেকেই সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হচ্ছে। সুতরাং এটা মনে রাখতে হবে যে, সর্দি-কাশি মানেই করোনা নয়।

কাশি কমাতে
ধূমপান ও বায়ুদূষণ কাশির একটি অন্যতম কারণ। তাই ধূমপান বর্জন করুন। ধুলাবালুতে কাশি হলে ঘর ঝাড়ু দেওয়া, ঝুল ঝাড়া ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। ঠান্ডায় সমস্যা হলে গোসলে হালকা গরম পানি ব্যবহার করুন। খুব ঠান্ডা পানি খাবেন না। লিকার চা, কুসুম গরম পানিতে মধু ও লেবুর রস, গরম স্যুপ ইত্যাদি কাশি সারাতে সাহায্য করে। গরম পানির ভাপ নিতে পারেন, দীর্ঘদিন ধরে কাশিতে ভুগলে, বিশেষ করে ধূমপায়ীরা সতর্ক হোন ও চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

আপনার মতামত জানানঃ