ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   সরকারি সব প্রতিষ্ঠান এখন জবাবদিহিতার আওতায়ঃ প্রধানমন্ত্রী

সরকারি সব প্রতিষ্ঠান এখন জবাবদিহিতার আওতায়ঃ প্রধানমন্ত্রী

সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২০ - ৩:৪৩ অপরাহ্ণ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকারি সব প্রতিষ্ঠান এখন জবাবদিহিতার আওতায়। স্বচ্ছতা নিয়ে নিজস্ব কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নে নীতিনির্ধারকদের উদ্যোগী হতে হবে।

বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকালে ২০২০-২১ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষরের ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন গড়তে সব মন্ত্রণালয়কে নিজস্ব কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের তাগিদও দেন সরকার প্রধান।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যথেষ্ট ভালো কাজ করলেও একশ্রেণীর মানুষ সমালোচনায় তৎপর। সরকারি কর্মকর্তাদের আত্মবিশ্বাস নিয়ে কাজ করতে হবে জানিয়ে তিনি বলেছেন, ‘অন্যের কথায় কান দিয়ে কোনো লাভ নেই।’

সরকারি কাজে স্বচ্ছতা, দক্ষতা ও জবাবদিহিতা তৈরি করে সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য পূরণের জন্য ২০১৪-১৫ অর্থবছর থেকে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও প্রতিষ্ঠানের সাথে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির প্রথা চালু হয় দেশে। তারই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার ভার্চুয়াল আয়োজনে নতুন অর্থবছরের কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর করলো ৫১টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবরা। গণভবন থেকে এতে যুক্ত হন সরকার প্রধান শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রত্যেকটা মন্ত্রণালয়ে শুদ্ধতার বিষয়ে পরিকল্পনা নিতে হবে। এই পরিকল্পনা বাস্তবও করতে হবে।

করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় পদক্ষেপ নিয়েছিলো বলেই, মহামারি নিয়ন্ত্রণে রাখা গেছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, অহেতুক সমালোচনা হচ্ছে এসব নিয়ে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নিয়ে অনেকে অনেক সমালোচনা করে, কিন্তু আমি মনে করি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যথেষ্ট দক্ষতার পরিচয় দিয়েছে। সেসময় তাৎক্ষণিক যে কাজগুলো করার কথা ছিল, সেটা তারা যথোপযুক্তভাবে করেছে বলেই আমরা করোনা নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছি। সেই কথা সব সময় মাথায় রাখতে হবে। প্রত্যেকে নিজের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেছে। অনেক ডাক্তার, নার্স মারা গেছে।

এসময় তিনি আরো বলেন, আমাদের দেশে এক শ্রেণীর লোকই থাকে যাদের সমালোচনা করাই অভ্যাস। পান থেকে চুন খসলেই নানা কথা বলবে, কিন্তু নিজেরা কিছু করবে না। আমি তো বেসরকারি টেলিভিশন অনেকগুলো দিয়ে দিয়েছি, তারপর আছে বিদ্যুৎ। কাজেই এখন তারা এয়ার কন্ডিশন চালায়, বিদ্যুৎ আছে। আবার ডিজিটাল বাংলাদেশ করে দিয়েছি। তারাই একসময় ডিজিটাল বাংলাদেশ নিয়ে সমালোচনা করেছে। এখন তারা এগুলোই করবে।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, আমরা সঠিক পথে আছি কিনা সেটা আত্মবিশ্বাসের ওপর নির্ভর করে। সবাই যখন কাজ করবে আত্মবিশ্বাস নিয়ে কাজ করবেন। কে কি বলবে, কে কি লিখল তা নিয়ে মাথা ঘামাবেন না। নিজের কাজ নিজে আত্মবিশ্বাস নিয়ে করবেন।

জনগণের প্রতি সেবার দায়বদ্ধতা পূরণে সরকার বদ্ধপরিকর বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

Tags:

আপনার মতামত জানানঃ