ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  শিক্ষা   »   সরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি শুরু

সরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি শুরু

October 20, 2016 - 12:23 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক : আজ থেকে (বৃহস্পতিবার) সরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি শুরু হয়েছে। আগামী ৩১ অক্টোবরের মধ্যে ভর্তি কার্যক্রম শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

দেশের ৩০টি সরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তির জন্য প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত হয়েছেন তিন হাজার ২১২ জন শিক্ষার্থী। এ ছাড়া ওয়েটিং লিস্টে রয়েছে ৬০০ জন।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে (ঢামেক) গিয়ে দেখা গেছে, ভর্তির কার্যক্রম চলছে। ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ এমবিবিএস কোর্সে ভর্তির জন্য শীর্ষ মেধাবী ১৯৭ জন শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে ১৯৩ জন মেধা কোটায় ও চারজন মুক্তিযোদ্ধা ও সংরক্ষিত কোটায় সুযোগ পাবেন।

ভর্তি হতে আসা তাসনিমুল আরেফিন রাহাত বলেন, ছোটবেলা থেকেই স্বপ্ন দেখেছি একজন চিকিৎসক হওয়ার। এখানে ভর্তি হওয়ার মাধ্যমে আমি স্বপ পূরনের সিঁড়িতে আজ পা রাখলাম। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দেওয়ার পর স্বাস্থ্য পরীক্ষা হয়েছে।

শুভ মহাজন মেধা তালিকায় তিনি ছিলেন ২য়। তিনি বলেন, মেডিক্যালে ভর্তির ইচ্ছাটা ছোটবেলা থেকেই। সে চেষ্টা থেকেই ঢামেকে ভর্তির সুযোগ পেয়েছি। জীবনে একজন ভালো চিকিৎসক হয়ে মানুষের সেবা করতে চাই।

ঢামেকে ২০ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া ভর্তি কার্যক্রমে মেধাক্রম অনুযায়ী প্রতি ‌কার্যদিবসে ভর্তি করা হবে। সকাল সাড়ে আটটা থেকে ৯ টার মধ্যে স্টুডেন্ট সেকশন থেকে রিপোর্টিং ফরম সংগ্রহ করে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে। এরপর যাচাই-বাছাই ও স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী ২০ অক্টোবর মেধাক্রমিক অনুসারে ১ থেকে ৩০ পর্যন্ত, ২২ তারিখে ৩১ থেকে ৬০, ২৩ তারিখ ৬১ থেকে ৯০, ২৪ তারিখ ৯১ থেকে ১২০, ২৫ তারিখ ১২১ থেকে ১৫০, ২৬ তারিখ ১৫০ থেকে ১৮০ এবং ২৭ তারিখ ১৮১ থেকে ১৯৭ মেধাক্রম পর্যন্ত ঢামেকে ভর্তির সুযোগ পাবেন।

ভর্তির জন্য লাগছে, ভর্তি পরীক্ষায় রেজাল্টের কপি, এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশ পত্র, এসএসসি-এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট। এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার পাশের সনদ পত্র/প্রশংসা পত্র। জেলা কোটার দাবির ক্ষেত্রে স্থানীয় সিটি করপোরেশন  মেয়র/পৌরসভার মেয়র/ইউনিয়ন চেয়ারম্যান/কাউন্সিলরের প্রদত্ত নাগরিক সনদপত্র। ৬ কপি পাসপোর্ট সাইজের  রঙিন ছবি (ব্যাকগ্রাউন্ড সাদা)। এ ছাড়া মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কোটার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র  জমা দিতে হবে। পাশাপাশি ও লেভেল, এ লেভেল পরীক্ষার ক্ষেত্রে ডিজি অফিস কর্তৃক ইকিউভেলেন্সি সার্টিফিকেটের মূলকপি জমা দিতে হবে।

নির্ধারিত কমিটি কর্তৃক ভর্তি সংক্রান্ত কাগজ পত্র যাচাই-বাচাই করার পর স্বাস্থ্য পরীক্ষায় উপযুক্ত বলে বিবেচিত হলে, ভর্তি ফি বাবদ নগদ ১০ হাজার টাকা জমা দিতে হবে।

উল্লেখ, গত ৭ অক্টোবর সরকারি ও বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজের এই ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষায় মোট ৮৫ হাজার ২০৭ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। এদের মধ্যে ন্যূনতম ৪০ নম্বর পেয়ে পাস করে ২৯ হাজার ১৮৩ জন। সরকারি ও বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজে আসন রয়েছে যথক্রমে তিন হাজার ১১২ ও ছয় হাজার ২০৫টি। আগামী বছরের জানুয়ারির শুরুতেই ১ম বর্ষের মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের ক্লাস শুরুর কথা রয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ