ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   সবার নজর কেড়েছে জর্দান

সবার নজর কেড়েছে জর্দান

September 7, 2016 - 9:49 AM

ঢাকা : ঈদুল আজহা উপলক্ষে গাবতলীতে কোরবানির পশুর হাটে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় গরু হলো ‘জর্দান’। তাই জর্দানকে ঘিরে গাবতলী পশুর হাটের প্রধান গেটের পেছনে সৃষ্টি হয়েছে মানুষের ভিড়। যেন সবার নজর ‘জর্দান’ একাই কেড়ে নিয়েছে।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর বৃহত্তম পশুর হাট গাবতলীতে গিয়ে এমন দৃশ্যই চোখে পড়েছে।

সেখানে গিয়ে দেখা যায়, ছোট-বড় সবাই জড়ো হচ্ছে জর্দানকে দেখতে। কেউ কেউ তুলছে জর্দানকে নিয়ে ছবি। অনেকে আবার জর্দানের মালিককে জিজ্ঞাসা করে জানত চাইলে, এত বড় গরুর দাম কত।

গরুটির নাম জর্দান কেন রাখা হয়েছে জানতে চাইলে মালিক কুষ্টিয়া থেকে আগত নজরুল ইসলাম (জর্দা) বলেন, ‘এই গরুর নাম আমি আমার নামের সঙ্গে মিল করে রেখেছি। আমার নামের শেষে জর্দা রয়েছে, তাই ওর নাম জর্দান রেখেছি।’

নজরুল ইসলাম আরো বলেন, ‘গত বছর আমি ওকে প্রায় সাড়ে ৪ লাখ টাকায় ক্রয় করি। তার পর থেকে খুব যত্নে জর্দানকে লালনপালন করছি। আমি সব সময় মনে করি যে জর্দান আমার পরিবারের সদস্যের মতোই আপন।’

জর্দানকে কী খাওয়ানো হতো, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি ওকে যখন ক্রয় করি তখন ওর বয়স ছিল ১ বছর ৭ মাস। তার পর থেকে গমের ছাল খেয়েছে প্রতিদিন প্রায় দুই কেজি। সেই সময় থেকে ওকে গমের ছাল, ছোলা ভিজানো খাইয়েছি। জর্দান এখন প্রায় আড়াই কেজি ছোলা ভিজানো খায়। পাশাপাশি সরিষার খৈল, ধানের কুঁড়া, ভুসি খাওয়ানো হয় ওকে।’

জর্দানের পেছনে এযাবৎ কত টাকা খরচ হয়েছে, জানতে চাইলে নজরুল ইসলাম বলেন, ‘এখন পর্যন্ত আনুমানিক প্রায় আড়াই লাখ টাকা খরচ হয়েছে।’

জর্দানের দামের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি ওর দাম নির্ধারণ করেছি ১১ লাখ টাকা। গতকাল অনেকেই ওর দাম ৮ লাখ টাকা পর্যন্ত বলেছে, কিন্তু আমি বিক্রি করিনি। এখন যে দাম আমি বলেছি, সেই দামে তো আর বিক্রি করা যাবে না। একটু কম-বেশি হবে। এটা আসলে পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করছে।’

কোনো ওষুধ খাওয়ানো হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ওকে কোনো ধরনের ওষুধ খাওয়ানো হয়নি। তবে অনেকেই আমাকে বলে যে, কী ওষুধ খাওয়ানো হয়েছে। তবে আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি যদি কোনো ডাক্তার ওর কোনো সমস্যা খুঁজে বের করতে পারেন, তাহলে আমি ওকে বিনা মূল্যে দিয়ে দেব।’

আপনার মতামত জানানঃ