ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ধর্ম   »   সদাচরণে ইসলাম

সদাচরণে ইসলাম

অক্টোবর ২৩, ২০২০ - ৬:৪১ অপরাহ্ণ

ইসলাম সদাচরণের ওপর জোর তাগিদ দিয়েছে। আর মানুষের সদাচরণ পাওয়ার সবচেয়ে বড় পাওনাদার হলেন আপন পিতা-মাতা। এরপর স্বামী-স্ত্রী, সন্তানসহ নিকটবর্তী আত্মীয়-স্বজন এমনকি আল্লাহতায়ালার সব সৃষ্টিই সদাচরণ পাওয়ার দাবিদার।

পিতা-মাতার সাথে সন্তানের আচরণ এবং সন্তানের সাথে পিতা-মাতার আচরণ, স্বামী-স্ত্রীর পারস্পরিক আচরণ, আত্মীয়স্বজন, প্রতিবেশী, বন্ধুবান্ধব, অধীন চাকর-চাকরানী, মুসলিম-অমুসলিম নির্বিশেষে মানুষের সাথে আচার-আচরণের ব্যাপারে ইসলাম নিরপেক্ষ নয়। ইসলাম মানুষের সাথে ব্যবহার কেমন হবে তা সুস্পষ্ট করে দিয়েছে। পিতা-মাতার সাথে সদাচরণের তাগিদ দিয়ে বলা হয়েছে, ‘তারা উভয়ই বা কোনো একজন বার্ধক্যে উপনীত হলে উহ্ শব্দটি উচ্চারণ করো না। ’

হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) আরো বলেন, ‘যারা বড়দের সম্মান ও ছোটদের স্নেহ করে না তারা আমাদের সমাজভুক্ত নয়। ’ ইসলামের শিক্ষা ও দর্শন হলো, মুসলিম সমাজের যদি কেউ না হয়ে থাকে তাহলে তার নামাজ-রোজায় আল্লাহর প্রয়োজনটা কী?

কোনো পশু-পাখিকে আটকে রেখে ক্ষুধায় কষ্ট দেয়া মারাত্মক গোনাহের কাজ। দেখুন, পশু-পাখির সাথে আচরণ যদি এমন হয়ে থাকে তাহলে সৃষ্টির সেরা ও আল্লাহর প্রতিনিধিদের সাথে কেমন আচরণ ইসলাম দাবি করতে পারে- তা সহজেই অনুমেয়। ইসলাম মনে করে, মানুষের সাথে দুর্ব্যবহার তো স্বয়ং আল্লাহর সাথেই দুর্ব্যবহার। এ বিষয়ে আল্লাহর নবী (সা.) বলেন, ‘ভূপৃষ্ঠে যারা রয়েছে তাদের সঙ্গে সদাচরণ করো তাহলে আসমানে যিনি রয়েছেন তিনিও তোমাদের সঙ্গে সদাচরণ করবেন। ’

বলতে কষ্ট হলেও এটা সত্য যে, চলমান সমাজে প্রবীণরা বড় অসহায় ও অবহেলার পাত্র। যার প্রেক্ষিতে বৃদ্ধাশ্রমের ধারণা সমাজে চালু হয়ে গেছে। একজন বৃদ্ধ-বৃদ্ধা তার আত্মীয়-পরিজন পরিবেষ্টিত হয়ে জীবনের শেষ দিনগুলো কাটাবে এটাই স্বাভাবিক। এর ব্যতিক্রম আচরণ যে কতটা কষ্টের তা বলে বুঝানো মুশকিল।

আমাদের সবার উচিত- যারা প্রবীণ, আমাদের বয়োজ্যেষ্ঠ তারা যেন যথাযথ ভক্তি ও সম্মান পান। আমাদের বুঝতে হবে- যে দয়া করে না, সে দয়া পায় না। সেই সঙ্গে যারা কনিষ্ঠ তারাও যেন আমাদের স্নেহ, মায়া-মমতা ও আদর-যত্ন থেকে বঞ্চিত না হয়।

আপনার মতামত জানানঃ