ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার বিচার ট্রাইব্যুনালে করার দাবি

সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার বিচার ট্রাইব্যুনালে করার দাবি

September 24, 2016 - 3:19 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক : সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার বিচার সন্ত্রাস দমন ট্রাইব্যুনালে করার দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানা দাসগুপ্ত।

শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে আলোচনা সভায় তিনি এ দাবি জানান।

‘আসন্ন দুর্গাপূজায় নিরাপত্তা ও হিন্দু সম্প্রদায়ের ভাবনা’ শীর্ষক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট।

রানা দাসগুপ্ত বলেন, ‘শিগগিরই ঢাকা ও চট্টগ্রামে দুটি সন্ত্রাস দমন ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হবে। সংখ্যালঘুদের ওপর বিভিন্ন সময়ে নির্যাতন, হামলা, খুনসহ বিভিন্ন মামলার বিচার ওই ট্রাইব্যুনালে করতে হবে। যেন দ্রুততম সময়ে সেসব মামলার নিষ্পত্তি করা যায়।’

২০১৫ সালের মাঝামাঝি সময় থেকে ২০১৬ এর জুন পর্যন্ত দেশে ২৮ জন সংখ্যালঘুকে খুন করা হয়েছে, উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সংখ্যালঘুদের অধিকার আদায়ে সরকারের আলোচনার টেবিলেই কথা হয়, কিন্তু বাস্তবায়নের জায়গাতেই সমস্যা। সরকার চাইলেই দেশের সকল জনগণের নিরাপত্তা সম্ভব। সেটা নির্ভর করবে রাষ্ট্র ও রাজনৈতিক দলগুলোর ওপর।’

তিনি বলেন, ‘পাকিস্তান আমলে ধর্মকে রাজনৈতিক ও রাষ্ট্রীয় স্বার্থে ব্যবহার করা হতো। কিন্তু বাঙালিরা তা চায়নি। অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র গঠনের চেতনায় উদ্ধুদ্ধ হয়ে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, ১৯৭৫ এর পরবর্তী সময়ে দীর্ঘকাল এ দেশে যারা রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিল, তারা ধর্মকে রাজনৈতিক স্বার্থে ব্যবহার করেছে। এ দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নস্যাৎ করে দিয়েছে। এখনো দেশের জনগণের একটি বড় অংশ স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না, তারাই সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্প ছড়িয়ে যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘ধর্মের নামে যারা মানবতার বিরুদ্ধে ভূমিকা পালন করছে তাদের বিরুদ্ধে মানসিকভাবে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। ধর্ম যেন রাজনৈতিক স্বার্থে ব্যবহৃত না হয়। এ দেশ প্রকৃতপক্ষে ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে ওঠুক।’

আসন্ন দুর্গাপূজা উদযাপন অনুষ্ঠানে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে রানা দাসগুপ্ত বলেন, ‘পূজা চলাকালে জনগণের শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষায় প্রশাসনসহ দলমত নির্বিশেষে সকলকে দায়িত্ব পালন করতে হবে।’

পূজা চলাকালে যেন কেউ নিরাপত্তা বিঘ্নিত করতে না পারে, সে ব্যাপারে প্রশাসনকে সচেষ্ট থাকার আহ্বান জানান তিনি।

‘ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’ উল্লেখ করে প্রবীণ এই আইনজীবী বলেন, ‘ঈদে তিন দিন ছুটির সঙ্গে নির্বাহী আদেশে আরো বাড়তি ছুটি যোগ করা হয়। অথচ বাঙালির সার্বজনীন এই দুর্গাপূজায় একদিনের ছুটি। যেদিন ছুটি সেদিন পূজার সকল আনুষ্ঠানিকতাই শেষ হয়ে যায়। তাই দুর্গাপূজাতেও তিন দিনের ছুটি এখন সার্বজনীন দাবি।’

আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন- আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ড. প্রভাস চন্দ্র রায়, মহাসচিব আনন্দ বিশ্বাস, মুখপাত্র পলাশ কান্তি দে, ইসকন বাংলাদেশের সভাপতি সত্যরঞ্জন বাড়ৈ প্রমুখ।

আপনার মতামত জানানঃ