ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   শিশুদের দাঁত ব্যথায় করনীয়

শিশুদের দাঁত ব্যথায় করনীয়

অক্টোবর ২৫, ২০২০ - ১১:৫৯ পূর্বাহ্ণ

শিশুরা প্রায়ই দাঁতের ব্যথায় কষ্ট পায়। এ ক্ষেত্রে মা–বাবাকেই উদ্যোগী হতে হবে। কারণ, প্রাথমিক পর্যায়ে গুরত্ব না দিলে পরে বিষয়টা গুরুতর হয়ে উঠতে পারে। কাজেই শিশুরা খাবার খেতে অসুবিধা হলে মুখের ভেতর ভালোভাবে খেয়াল করতে হবে।

শিশুদের মুখ ও দাঁতের ব্যথার অন্যতম কারণগুলো হলো:

দাঁতের ব্যথার অন্যতম কারণ ক্যাভিটি। শিশুর দাঁতে ছোট বা বড় কোনো গর্ত দেখলে বুঝতে হবে সে ব্যথায় কষ্ট পাচ্ছে। মাড়ি ফুলে গেলে ও লাল রং হলেও ব্যথা হবে। এটি একধরনের প্রদাহ।

মুখের ভেতর জন্ম নেওয়া ব্যাকটেরিয়া বা অ্যাসিডের কারণে দাঁতের ওপরের শক্ত আবরণ বা এনামেল ক্ষয় হতে পারে। শক্ত কোনো জিনিসে কামড় দিলেও এনামেলে ফাটল দেখা দিতে পারে। এ সমস্যায় দাঁতে শিরশির অনুভূতি ও ব্যথা হয়।

শিশুর মুখে বা দাঁতে ব্যথা হলে যা করবেন যা করবেন

শিশুর মুখে বা দাঁতে ব্যথা হলে অবশ্যই একজন দাঁতের চিকিৎসককে দেখাতে হবে। এ সময় শিশুকে বেশি ঠান্ডা বা গরম ও মিষ্টিজাতীয় খাবার দেওয়া যাবে না।

দাঁতে ব্যথা হলে তাৎক্ষণিক কয়েকটি পদক্ষেপ নিন

ডেন্টাল ফ্লস ব্যবহার করে দাঁতের ফাঁকে জমে থাকা খাদ্য বের করতে হবে। কুসুম গরম পানিতে সামান্য লবণ মিশিয়ে মুখে ৩০ সেকেন্ড রেখে কুলি করলে মুখ ও আক্রান্ত স্থান পরিষ্কার হবে। ব্যথাও অনেকটা কমে যাবে।

প্রতিকার ও প্রতিরোধ

প্রতিটি দুধদাঁত একটি নির্দিষ্ট সময়ে পড়ে নতুন দাঁত ওঠে। ৬ বছর থেকে ১৩ বছর বয়সের মধ্যেই এসব ঘটে। কোন দাঁত কখন নড়ে, সেটা খেয়াল রাখতে হবে। দাঁতে ক্যাভিটি হলে দ্রুত ফিলিং করতে হবে। ক্যাভিটি বড় হয়ে গেলে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা নিতে হবে। শিশুর প্রথম এক বছরে প্রতিবার খাবারের পর পরিষ্কার কাপড় বা তুলা দিয়ে মাড়ি ও জিব মুছে দিন। এর ফলে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া দূর হবে। জিবে ছত্রাকের সংক্রমণও হবে না। শিশুর ৬ মাস বয়স থেকে বিভিন্ন রকমের ফল ও পুষ্টিকর খাবার দিতে হবে। এতে অ্যাপথাস আলসার হওয়ার ঝুঁকি কমে যাবে।

আপনার মতামত জানানঃ