ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতি   »   শিল্পায়নের অভিযাত্রা সফল করতে হলে

শিল্পায়নের অভিযাত্রা সফল করতে হলে

September 24, 2016 - 2:58 PM

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, শিল্পায়নের অভিযাত্রা সফল করতে হলে, বেসরকারি উদ্যোক্তাদের প্রয়োজনীয় নীতি সহায়তা দিতে হবে। পাশাপাশি সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা জোরদার করতে হবে।

আমু বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে শিল্প সমৃদ্ধ মধ্যম আয়ের এবং ২০৪১ সাল নাগাদ উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পরিচালিত বর্তমান সরকারের অন্যতম লক্ষ্য। এ লক্ষ্য অর্জনে এশিয়ার জাপান, চীন, ভারত, তাইওয়ান, ভিয়েতনামের মত দেশগুলোর শিল্পায়ন কৌশল অনুসরণ করে দেশব্যাপী টেকসই ও জ্ঞানভিত্তিক শিল্পায়নের ধারা বেগবান করতে চাই।

শনিবার মতিঝিলে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) আয়োজিত `জাতীয় শিল্পনীতি-২০১৬ বাংলাদেশে শিল্পায়ন ও বিনিয়োগের সম্ভাবনা` শীর্ষক এক সেমিনারে এ কথা বলেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, বাস্তবতা মাথায় রেখে আমরা জাতীয় শিল্পনীতি-২০১৬ প্রণয়ন করেছি। এটি একটি সমন্বিত নীতি এবং এতে শিল্প উদ্যোক্তাদের মতামতের সর্বোচ্চ প্রতিফলন ঘটেছে। অতীতে প্রণীত শিল্পনীতিগুলো বিষয়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনা থাকলেও এবারের শিল্পনীতি নিয়ে এ ধরনের প্রসঙ্গ আসেনি। প্রায় সবাই এ নীতির প্রশংসা করেছেন এবং একে একটি পূর্ণাঙ্গ শিল্পনীতি হিসেবে মন্তব্য করেছেন।

`উৎপাদনশীল কর্মসংস্থান সৃষ্টি, শিল্পায়ন প্রক্রিয়ার মূল ধারায় নারীদের অংশগ্রহণ বৃদ্ধিসহ নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি এবং এর মাধ্যমে দারিদ্র্য দূরীকরণ নতুন এ শিল্পনীতির অন্তর্নিহিত উদ্দেশ্য। আমরা ইতোমধ্যে ৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধির বৃত্ত থেকে বেরিয়ে ৭.০২ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি। এ ধারা অব্যাহত রাখতে নতুন শিল্পনীতিতে পরিবেশবান্ধব সবুজ শিল্পায়ন, শিল্পখাতে মূল্য সংযোজন, রপ্তানি পণ্য বহুমুখীকরণ, নতুন নতুন শিল্প পণ্য উৎপাদন, শিল্পখাতে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের মত বিষয়গুলোকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। এর অন্যতম লক্ষ্য হচ্ছে, আমদানি বিকল্প শিল্প স্থাপন এবং অব্যাহতভাবে অধিক মাত্রায় রপ্তানিমুখী শিল্পের উন্নয়ন। এ লক্ষ্যে শিল্পনীতিতে পণ্যের সংমিশ্রন, পণ্যের গুণগত মানোন্নয়ন, উৎপাদন, সেবা এবং বিপণন কাঠামোয় বৈচিত্রতা আনার বিষয়কে উৎসাহিত করা হয়েছে`।

আমির হোসেন আমু বলেন, `এসব উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের লক্ষ্যে প্রস্তাবিত শিল্পনীতিতে যথাযথ কৌশলাদি ও কর্মপরিকল্পনা বর্ণিত হয়েছে, যা মূল প্রবন্ধ উপস্থাপক এখানে তুলে ধরেছেন। এর মাধ্যমে জাতীয় শিল্পনীতি-২০১৬ এর বিভিন্ন দিক সম্পর্কে আপনাদের ধারণা পরিষ্কার হয়েছে বলে আমি আশা করি। এরপরও আপনাদের কোনো অস্পষ্টতা কিংবা বিভ্রান্তি থেকে থাকলে তা একাডেমিক ডিসকাশনের মাধ্যমে দূরীভূত হতে পারে। এজন্য আপনাদের প্রয়োজনীয় সহায়তা দিতে শিল্প মন্ত্রণালয়ের নীতি সংশ্লিষ্ট শাখার কর্মকর্তারা প্রস্তুত রয়েছেন`।

`যে কোনো নীতি প্রণয়নের পেছনে একটি উন্নয়ন দর্শন থাকে। একটি সুনির্দিষ্ট ভিশন ও মিশন বাস্তবায়নের জন্য নীতি প্রণীত হয়। জাতীয় শিল্পনীতি-২০১৬ প্রণয়নের পেছনেও প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত রূপকল্প-২০২১ এবং রূপকল্প-২০৪১ উন্নয়ন দর্শন হিসেবে কাজ করছে`।

`এ রূপকল্পের সার্থক বাস্তবায়নে আমরা এই শিল্পনীতিকে একটি কার্যকর ইন্সট্রুমেন্ট হিসেবে গ্রহণ করেছি। রূপকল্পের আলোকে শিল্পখাতের কাঙ্খিত উন্নয়নে আমরা এ শিল্পনীতির সুফল কাজে লাগাবো। এর মাধ্যমে আমরা বিনিয়োগ পরিবেশ উন্নয়ন, অর্থনীতিতে বিনিয়োগ ও জিডিপির অনুপাত শতকরা ২৮ ভাগ থেকে ৩৫ ভাগে উন্নীতকরণ এবং প্রতিবছর ১০ লাখ লোকের নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে সংকল্পবদ্ধ`।

মন্ত্রী আরো বলেন, আমরা দেশেই জনগণের জন্য মানসম্মত কর্মসংস্থান সৃষ্টির প্রতি অগ্রাধিকার দিচ্ছি। প্রতিটি পরিবারে ন্যূনতম একজনের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি সরকারের রাজনৈতিক অঙ্গীকার। এ অঙ্গীকার বাস্তবায়নে এসএমই খাতের সুষ্ঠু বিকাশ ও উন্নয়নের পাশাপাশি শ্রমঘন শিল্পের পরিকল্পিত ও ভারসাম্যপূর্ণ উন্নয়নকে শিল্পায়নের চালিকাশক্তি হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের কোনো এলাকাকে উন্নয়ন বঞ্চিত রাখতে চান না। তিনি সুষম উন্নয়নের স্বার্থে এলাকাভিত্তিক শিল্প সম্ভাবনা বিবেচনা করে শিল্পায়নের নির্দেশনা দিয়েছেন।

`জাতীয় শিল্পনীতিও-২০১৬ তে এর প্রতিফলন ঘটেছে। এ লক্ষ্যে এলাকাভিত্তিক শিল্প স্থাপনের উদ্যোগ জোরদার হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার কাজ চলছে। এতে করে তৃণমূল পর্যায়ে শিল্পায়ন অভিযাত্রা জোরদার হবে এবং দেশের অর্থনীতিতে নতুন করে প্রাণ সঞ্চার হবে`।

বিশ্বায়নের প্রতিযোগিতায় টিকে থাকলে হলে, রপ্তানিমুখী পণ্যের বৈচিত্রকরণের কোনো বিকল্প নেই। আমরা ইতোমধ্যে তৈরি পোশাকসহ বেশকিছু শিল্পখাতের প্রবৃদ্ধির উচ্চসীমায় পৌঁছে গেছি। এসব খাতে আর খুব একটা প্রবৃদ্ধি ঘটানো সম্ভব হবে না। তাই রপ্তানি বাড়ানোর লক্ষ্যে দেশে নতুন নতুন শিল্পখাতের বিকাশ জরুরি হয়ে পড়েছে।

এ লক্ষ্যে শিল্পনীতিতে কৃষি/খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং কৃষি যন্ত্রপাতি প্রস্তুতকারী শিল্পকে উচ্চ অগ্রাধিকার খাতের তালিকায় শীর্ষে রাখা হয়েছে। পাশাপাশি আইসিটি/সফটওয়্যার, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, পাট ও পাটজাতপণ্য এবং ওষুধের মত শিল্পখাততে এ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এমনকি বীজ, আগর, আসবাবপত্র, চা, জুয়েলারি, ভেষজ ওষুধ, পলিমার উৎপাদন, বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী যন্ত্রপাতি এবং খেলনার মত কম গুরুত্বপূর্ণ শিল্পকে এবার অগ্রাধিকার প্রাপ্ত খাতের আওতায় আনা হয়েছে।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, রপ্তানি খাতে তৈরি পোশাকের ওপর নির্ভরতা কমাতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। নতুন শিল্পনীতির আওতায় শিল্পায়ন ও বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে শুল্ক ছাড়, করহ্রাস, রপ্তানি ভর্তুকি, শিল্প যন্ত্রপাতি ও মৌলিক কাঁচামাল আমদানিতে শুল্ক সুবিধাসহ দেশীয় শিল্পের স্বার্থ সুরক্ষা দেওয়া হচ্ছে।
এর ফলে শিল্পখাতে দ্রুত বিনিয়োগ ও ব্যবসা বাড়বে। এর মাধ্যমে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা জিডিপিতে শিল্পখাতের অবদান ৩৫ শতাংশ এবং শিল্পখাতের মোট শ্রমশক্তির পরিমাণ ২৫ শতাংশে উন্নীত করতে সক্ষম হবো বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

সেমিনারের সভাপতিত্ব করেন ডিসিসিআইয়ের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হুমায়ুন রশীদ।

আপনার মতামত জানানঃ