ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   শিবির নেতা নাছির যুবলীগে এসে বেপরোয়া

শিবির নেতা নাছির যুবলীগে এসে বেপরোয়া

October 11, 2016 - 5:10 AM

ফেনী প্রতিনিধি : ফেনী ফালাহিয়া মাদ্রাসার সাবেক শিবির নেতা মোঃ নাছির উদ্দিন যুবলীগের রূপধারন করে বেপরোয়া কর্মকান্ডে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ। ফেনী সদর উপজেলার, পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নের বিরলী গ্রামের মৃত আবদুস সাত্তারের ৪র্থ ছেলে মোঃ নাসির উদ্দিন ফেনী ফালাহিয়া মাদ্রাসায় পড়াশুনা করা কালে শিবিরের সক্রিয় একনিষ্ঠ নেতা ছিলো। ২০০৮ পরবর্তীতে সে বিদেশে গা ঢাকা দেয় এবং অল্প সময়ে দেশে ফিরেই ছদ্মবেশে আওয়ামীলীগ ও তার অঙ্গসংগঠনের বিভিন্ন মিছিল মিটিং এ যাতয়াত শুরু করে এবং নিজেকে যুবলীগ কর্মী বলে প্রচার করে। একপর্যায় নাসির অবৈধ গ্যাস সিন্ডিকেটের সাথে জড়িয়ে পড়ে। নাসির বিভিন্ন অবৈধ মাধ্যমে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে অবৈধ গ্যাস লাইন সরবরাহ করে। সুত্রে জানাযায় বিরলী মেহের আলী ভূঞাবাড়ীতে প্রথম অবৈধ গ্যাস সংযোগ সরবরাহ করে এতে নাসির ‘গ্যাস নাছির’ বলে পরিচিতি লাভ করে। শুরু হয় তার অবৈধ গ্যাস কারবারের ব্যবসা। তাকে আর পেছনে তাকাতে হয়নি। পর্যায়ক্রমে নাসির বিরলী গ্রামের কাজী খোকন বাড়ী, মোকসদের বাড়ীর দিকে অবৈধ ভাবে সিঙ্গেল পাইপের মাধ্যমে অন্তত ১হাজার গজ ভিতরে গ্যাস সংযোগ করে দেয়। এছাড়াও পূর্ববিরলী, রতনপুর, মাথিয়ারা, তালতলা, ইলাশপুর, কাশেমপুর, বিজয় সিংহ সহ বিভিন্ন এলাকায় গ্যাস সরবরাহ করে। এর বাইরেও গ্যাস সরবরাহের নামে বিভিন্ন এলাকা থেকে বিপুল পরিমান টাকা হাতিয়ে নেয়ার পাঁয়তারা করছে বলে অভিযোগ উঠে।

অপারেশন টর্চার সেলঃ টর্চার সেল নামে খ্যাত বিরলী বাজারে নাছিরদের নিজস্ব মার্কেটের দোতলায় সে অপারেশন টর্চার সেল গড়ে তোলে। খোজ নিয়ে জানা যায় কম বয়সী তরুনদের বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে সে ‘নাছির বাহিনী’ গড়ে তোলে। এ বাহিনীর হাতে সে তুলে দেয় অ¯্র ও মরণ নেশা ইয়াবা সহ নানান মাদকদ্রব্য। এ মরণ নেশায় একদিকে যেমন সমাজিক অবক্ষয় তেমনি শান্ত বিরলী অশান্তিতে পরিনত হচ্ছে। গড়ে তোলে চাঁদার কারখানা। এলাকার প্রবাসী থেকে শুরু করে নিরীহ গরিবরাও তার বেপরোয়া থাবা থেকে রেহায় পাচ্ছে না।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায় গত ১০/১২দিন আগে বিরলী হাশেম ডাক্তার বাড়ীতে প্রবাসী শাহাবুদ্দিনের বিবাহ উপলক্ষে ঐ পরিবারের কাছে ৫০,০০০ হাজার টাকার চাঁদা দাবি করে। শাহাবুদ্দিনের বিয়ের দিন নাসির ৩/৪ টি হুন্ডা যোগে তার গুন্ডা বাহিনী পাঠায় দাবীকৃত চাঁদা আদায়ের জন্য। এতে ঐ বাড়ীর আবুল বশর প্রতিবাদ করায় গতকাল (০৯অক্টোবর) রবিবার বিকেলে নাসির বশরকে তার টর্চার সেলে ধরে আনে। নাসিরসহ তার বাহিনীরা আবুল বশরকে অপুযপুরী মারধর করতে থাকে। এক পর্যায় বশর বাঁচতে দৌড়ে বাজারে চলে আসলেও তাদের হাত থেকে রেহায় পায়নি। বাজারের শতশত মানুষের সামনে লাঠি দিয়ে মারধর করে। কেউ কোন প্রতিবাদ করার সাহস পায়নি। মনে হয় যেন ৭১ এর চিত্র এটি। কারন এমন কাজ শিবিরের প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত নেতার দ্বারাই সম্ভব। নাসির চাঁদা না ফেলে সে যে কোন হিং¯্ররুপ ধারন করতে পারে।

ভুক্তভোগী বশরের ভাই আইয়ুব আরো জানায়, ১০/১২ দিন আগে আমাদেও বাড়ীর শাহবুদ্দিনের কাছে চাঁদা দাবি করা বশর এর প্রতিবাদ করে বিধায় আমার ভাইকে নাছির এভাবে মারধর কওে মারাত্মক আহত করে। আমি ঘটনাটি বিচারের জন্য আমার ওয়ার্ডের খাজু মেম্বারকে জানিয়েছি। খাজু মেম্বার ঘটনাটি চেয়ারম্যানকে জানানোর জন্য বলেন। বিষয়টি এ প্রতিবেদক অত্রএলাকার বর্তমান মেম্বার খায়েজ আহম্মদের কাছে জানতে চাইলে, তিনি নাছিরের ভয়ে বিষয়টি পাশ কাটিয়ে যান। নাম ও পরিচয় গোপন রাখার শর্তে বিরলী বাজারের কিছু ব্যবসায়ী ও সাধারন জনগন ঘটনাগুলোর সত্যতা নিশ্চিত করেন। অত্র ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মানিকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন বলে জানান।

জেলা যুবলীগের নাম ভাঙিয়ে দাপটের সহিত নাছির প্রভাব বিস্তার করে বলে এলাকা সুত্রে জানিয়েছে। সে স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বার, গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ ও প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতাদেরও কোন তেয়াক্কা করেনা। কিছুদিন পূর্বেও নাছির এলাকার প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা নুরুজ্জমানকে মারধর করে বলে নুরুজ্জামান অভিযোগ করে।

এলাকাবাসীর প্রশ্ন, নাসিরের এরকম বেপরোয়া কর্মকান্ডের খূটির জোর কোথায়। প্রশাসনের নাকের ডগায় বসে তার এধরনের কর্মকান্ডে এলাকার জনগন ক্ষুব্দ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। তার এমন কর্মকান্ডে প্রাচীন এ সংগঠন আওয়ামী লীগের উন্নয়ন যেমন মলিন হচ্ছে তেমনি জেলা নেতৃবৃন্ধের সুনাম, গৌরব ও মর্যাদা হানি হচ্ছে। এখনই যদি নাসিরকে থামানো না যায় তাহলে এ সংগঠনকে দুর্ণামের ভার বইতে হবে। এহেন অপকর্মের বিষয়ে নাছিরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তার নাম্বারটির বন্ধ পাওয়া যায়।

আপনার মতামত জানানঃ