ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  শিক্ষা   »   শিক্ষা হোক স্বল্পব্যয়ে সর্বজনীন

শিক্ষা হোক স্বল্পব্যয়ে সর্বজনীন

September 14, 2016 - 7:25 AM

শিক্ষা : বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ৪ জুন জাতীয় সংসদে ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের বাজেটে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিক্যাল কলেজ ও ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থীদের যাবতীয় লেনদেনের ওপর ১০ শতাংশ ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করেন।

ইতিপূর্বে ২০১০ সালে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি’র ওপর সাড়ে ৪ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করে জুলাই মাসে প্রজ্ঞাপন জারি করলে শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদে সেটি প্রত্যাহার করা হয়।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এক কর্মকর্তার মারফতে উচ্চশিক্ষায় ভ্যাট আরোপের একটি আভাস পেয়ে স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী আরিফ চৌধুরী শুভ ২০১৫ সালের ১৪ মে গণমাধ্যমে একটি চিঠি পাঠান ‘উচ্চশিক্ষায় ভ্যাটের ইঙ্গিত’ শিরোনামে। ৪ জুন অর্থমন্ত্রী সংসদে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১০ শতাংশ ভ্যাটের প্রস্তাব করলে ৫ জুন ৭১ টিভিতে বাংলাদেশ সংলাপে এটি প্রচারিত হয়। সেই অনুষ্ঠানে শিক্ষা সচিব নজরুল ইসলাম খান ভ্যাটের পক্ষে যুক্তি দিলে আরিফ চৌধুরী শুভ শিক্ষা সচিবের যুক্তি খণ্ডন করে শিক্ষায় ভ্যাট আরোপের বিরোধীতা ও প্রতিবাদ করেন। আন্দোলনের বীজটা এভাবে অঙ্কিত হতে থাকে।

আমরা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে ৭ জুন স্টামফোর্ডের সাদ্দাম, নয়ন, ড্যাফোডিলে সাজ্জাদ, ইউডাতে সাজিদ, ইউল্যাবের রফিক, গ্রিনের ওমর ফারুক, পোর্ট সিটিতে আশরাফুল ইসলাম রবি, আইইউতে রায়হান, এআইউইবিতে রিয়াজসহ ১২টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা করি শিক্ষাখাতে ভ্যাট প্রত্যাহারে আন্দোলন করা যায় কিনা? ১৮ জুন ড্যাফেডিল ও বেসরকারি শিক্ষা অধিকার আন্দোলন (বেবিশিআ) রাস্তা ব্লক করে দিয়েছিল। ইউল্যাবের শিক্ষার্থীরা ২১ জুন প্রথম কর্মসূচি পালন করে। ২৯ জুন জাতীয় সংসদে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১০ শতাংশ থেকে আড়াই শতাংশ কমিয়ে সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট আরোপের সুপারিশ করেন। আর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত তা গ্রহণ করে সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট বহাল রাখেন। ৪ জুলাই বাংলাদেশ জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট প্রদানের জন্য প্রজ্ঞাপন জারি করে। ১৫ আগস্ট প্রথম দফা ভ্যাট জমা দেওয়ার তারিখ ঘোষণা করে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে চিঠি পাঠায় এনবিআর। ২৯ জুন ভ্যাট প্রত্যাহারের জন্য সংসদ ভবনের পশ্চিমে বিক্ষোভ সমাবেশে শেরে বাংলা থানার পুলিশ ৪ জনকে গ্রেফতার করে। এখানে পুলিশের অ্যাকশনে ৯ জন শিক্ষার্থী আহত হয়।

এরই পথ ধরে ৩০ জুন ইউল্যাবের ফারহান হাবিবকে প্রধান সমন্বয়ক করে ‘নো ভ্যাট অন এডুকেশন’প্লাটফর্ম গঠন করা হয়। ৫ জুলাই জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করে ৩১ জুলাই পর্যন্ত অর্থমন্ত্রীকে সময় বেধে দেওয়া হয় শিক্ষায় ভ্যাট প্রত্যাহারের জন্য।
স্টেট ইউনিভার্সিটি থেকে নো ভ্যাট অন এডুকেশন প্লাটফর্মে অংশগ্রহণ করি ১৩ জুলাই। সেদিন ধানমন্ডি ১৪ তে ফারহান হাবিব ও ফারুক আমিন জাহিনের সাথে প্রথম কথা হয় আল-ফাহাদের মারফতে। ৬ জুলাই সারাদেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে কালো ব্যাজ বা কালো পোশাক পরে স্বাভাবিক কাজ কর্মে অংশগ্রহণ করা। ৭ জুলাই মুখে কালো কাপড় বেধে নিজ নিজ ক্যাম্পাসের সামনে মানববন্ধন। ৯ জুলাই স্টেট ইউনিভার্সিটির মানববন্ধনে (১) সকল প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন করা। (২) ৯ জুলাই হতে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সকল শিক্ষার্থীর ফেসবুক প্রোফাইলেও ‘ভ্যাটমুক্ত শিক্ষা’ লেখা। (৩) ২৫ থেকে ৩১ জুলাই পর্যন্ত সকল প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি, মেডিক্যাল, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, শিক্ষাবিদ, গণমাধ্যম ব্যক্তিদের কাছ থেকে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করা। (৪) ৩১ জুলাই ছাত্রসমাবেশে নতুন কর্মসূচি ঘোষণাসহ ৪ দফা কর্মসূচি ঘোষণা করি। ১২ জুলাই গোলটেবিল বৈঠক করার কথা ছিল কিন্তু এটি অনুষ্ঠিত হয়নি। ১০-১৪ জুলাই অর্থমন্ত্রী বরাবর ভ্যাট প্রত্যাহারের জন্য চিঠি প্রেরণ, ১৫ জুলাই থেকে ঈদের তিন দিন পর পর্যন্ত ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে প্রধানমন্ত্রীকে ঈদের শুভেচ্ছা প্রেরণ, ফেসবুকের প্রোফাইল, কাভার ফটো পরিবর্তন।

২ আগস্ট জাতীয় জাদুঘরের সামনে সংহতি ও সাংস্কৃতিক সমাবেশ। ৩-৫ আগস্ট সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে শিক্ষার্থীদের গণস্বাক্ষর অভিযান। ৫ আগস্ট নিজ নিজ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ সমাবেশ। ৬ আগস্ট দুপুর সাড়ে ১২টায় জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সাহেবের বাসভবন অভিমুখে পদযাত্রা ও স্মারকলিপি পেশ। ১৩ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন অভিমুখে পদযাত্রা করা হয়। ১৬ আগস্ট স্টামফোর্ডের সজীব ও জ্যোতির্ময়দের সাথে কথাকাটাটি ও মারপিট করে ফারহান হাবিব, জাহিন, জাহিদ গগণ, বিএফটিআইয়ের ফজলে রাব্বি তাজ, ইস্ট ওয়েস্টের মিঠু মোহাম্মদ আন্দোলন থেকে চলে যায়।

তবে গগণ আমাদের সাথে মারপিট থামানোর কাজে অংশ নেন। কে আন্দোলন করে তা দেখে নেয়ার হুমকিও দেন ফারহান। সেই দিন সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধুর বাড়ির ঠিক পশ্চিম দিকে ধানমন্ডি ১১ এর ৯ নং ডা. নাসিরুদ্দিনের বাড়ির সামনে জ্যোতির্ময়ের প্রস্তাবে ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৫ জনের মধ্যে ১৪ জনই আমাকে আন্দোলনটি পরিচালনার দায়িত্ব দেন। তখন প্রধান সমন্বয়কের স্থলে আমাকে মুখপাত্র ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের সমন্বয়কের স্থলে সংগঠক লেখার প্রস্তাব করা হয়। ইতিপূর্বে কাজ করার ক্ষেত্রে ফারহান ভাইরা যেসব প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছিলেন আমরা তা তুলে দেই। সবার মতামতের ভিত্তিতে আন্দোলন পরিচালনা করবো বলে ঐক্যমত হই। তা ছাড়া সেদিন (১) শিক্ষার উপর ৭.৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার করে বিজয়ী হয়ে মায়ের বুকে ফিরে যাব, না হয় আমাদের লাশ যাবে। (২) আমরা বিজয়ী না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন করে যাব, রাজপথ ছাড়বো না। এই দুটি কথার উপর শপথ নিলাম। হাত রাখলাম। একে একে সবাই আমার হাতের উপর হাত রেখে শপথ নিল।

আবার নতুন উদ্যমে আন্দোলনের কাজ শুরু। ২০ আগস্ট মাহফুজুর রহমান নাঈম, জয় বণিক, জ্যোতির্ময়কে নিয়ে ঢাবির মধুর ক্যান্টিনে সাংবাদিক সম্মেলন করে। শিক্ষার্থীদের আন্দোলন নিয়ে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করার প্রতিবাদে ২২ আগস্ট শাহবাগে অর্থমন্ত্রীর কুশপুত্তলিকা দাহ ও দেশব্যাপী বিক্ষোভ মিছিল এবং ২৭ আগস্ট পর্যন্ত অর্থমন্ত্রীকে ম্যাসেজ প্রেরণ কর্মসূচি ঘোষণা করি। পরে কর্মসূচির সময় ১০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়িয়ে দেওয়া হয়। ১৭ সেপ্টেম্বর জাতীয় সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

১ সেপ্টেম্বর উত্তরার ৫টি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বয়ে মানববন্ধনে অংশ নিয়ে দশম জাতীয় সংসদের সপ্তম অধিবেশনেই শিক্ষায় ভ্যাট তুলে নিতে প্রধানমন্ত্রীকে আল্টিমেটাম দিলাম আমরা। ৬ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের ৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজনে শহিদ মিনারে সংহতি ও অভিভাবক সমাবেশে অংশ নিয়ে একই দাবি উত্থাপন করি। ৯ সেপ্টেম্বর ইস্ট ওয়েস্টে শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনে পুলিশ বাধা দেয়। ১৩ জন সংগঠককে নিয়ে সেখানে যাই। তার আগে সন্ধ্যার পর শাহবাগ ও বাংলামোটরের মাঝামাঝি জায়গায় এবি ব্যাংকের সামনে আসতেই বিডিমর্নিং অনলাইন নিউজ পোর্টালের সহযোগী সম্পাদক শাহরিয়ার নিশান আমার একটি সাক্ষাৎকার চান ইস্ট ওয়েস্টে পুলিশের বাধার ব্যাপারে।

নো ভ্যাট অন এডুকেশনের পক্ষে তিনটি দাবিতে- (১) ইস্ট ওয়েস্টে ভ্যাট প্রত্যাহারে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি তৎপরতার ঘটনায় একটি বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি করে দায়ী পুলিশদের চিহ্নিত করে বিচারের মুখোমুখি করতে হবে। (২) আহত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের চিকিৎসার যাবতীয় ব্যয়ভার রাষ্ট্রকে বহন করতে হবে। এবং (৩) শিক্ষাব্যবস্থা থেকে ৭.৫ ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে বৃহস্পতিবার থেকে অনির্দিষ্টকাল পর্যন্ত রাজপথ অবরোধ থাকবে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের অবস্থান কর্মসূচি চলবে’বলে সাক্ষাৎকার দিলাম। তখন নাঈম, জ্যোতির্ময়, আরেফিনরা আমার সাথে ছিল। তাদেরকে বিষয়টি বললাম, তারা কর্মসূচি যথাযথ হয়েছে বলে মন্তব্য করেন। বাংলাদেশ প্রতিদিন, আলোকিত বাংলাদেশ, বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর ডটকম, সময় টেলিভিশন, বৈশাখীসহ কয়েকটি গণমাধ্যমে ফোনে কর্মসূচির কথা জানিয়ে দেই। আমরা রাত ৯টা ২০ মিনিটে ইস্ট ওয়েস্টের অবরোধ তুলে নেই। তারপর ইস্ট ওয়েস্টেরসহ ১৭ জন সংগঠক মিলে একটি মিটিং করি সেখানে কর্মসূচি পালন নিয়ে সবাইকে দায়িত্ব ভাগ করে দেয়া হয়। তার আগে ১৬ আগস্ট ধানমন্ডি, বনানী, বসুন্ধরা, উত্তরা, সাভার, পল্টন শান্তিনগর, পান্থপথ, রাজশাহী, চট্টগ্রাম, রাজশাহীসহ বিভিন্ন জোনে কাজ ভাগ করে দিয়েছিলাম। ১০ সেপ্টেম্বর উল্লেখিত সবগুলো পয়েন্ট ব্লক করি আমরা। সেদিন বিকেলে এনবিআর এই মর্মে প্রেস রিলিজ দেয় যে, শিক্ষার্থীরা নয়, ভ্যাট দেবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

১১ সেপ্টেম্বর স্টামফোর্ডে সাংবাদিক সম্মেলন করে তিনদিনের ছাত্রধর্মঘট ঘোষণা করি। তবে এখানে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জ্যোতির্ময় চক্রবর্তী।

আমি শুধু দুই দফা কর্মসূচি (১) দেশের আর্থ-সামাজিক দিক বিবেচনা করে ইউজিসি কর্তৃক সুনির্দিষ্ট টিউশন ফি নির্ধারণ (২) শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে বেসরকারি বিশ্ববদ্যালয়, মেডিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে ১২, ১৩ ও ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিন দিনের ছাত্রধর্মঘট ঘোষণা করি। সন্ধ্যায় ছাত্রধর্মঘটের সমর্থনে ধানমন্ডিতে মশালমিছিল করি । অবশ্য এর মধ্যে ৯ আগস্ট ড্যাফোডিলের ছাত্র-শিক্ষক, ১৯ আগস্ট ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল, ইস্ট ওয়েস্ট ও বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির ৪ শিক্ষার্থী, ২ সেপ্টেম্বর ইস্ট ওয়েস্ট ও ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির দু’জন শিক্ষার্থীসহ মোট তিনটি রিট আবেদন দায়ের করেন ভ্যাট প্রত্যাহারের জন্যে। আমাদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চলতে থাকে। ১৪ সেপ্টেম্বর মন্ত্রিপরিষদে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ভ্যাট প্রত্যাহারের।
আন্দোলনকে বেগবান করতে স্টেটের মারুফ, বাশার, সকাল, তানভীর, সৌরভ, গালিব, ছনি, কুরশিয়া যমুনা, সাহাব, তুষার, নাদিম, ইউআইইউয়ের নাঈম, মিসবাহ, আতিক, গণবিশ্ববিদ্যালয়ের পলাশ, সোহান, মাহফুজা, স্টামফের্ডের আরিফ শুভ, সজীব, জ্যোতির্ময়, ব্র্যাকের অনিক, রেজওয়ান, বনানীর সজীব, অনি, তানিম, আশার জয়, চট্টগ্রামের আইআইইউসির রায়হান, ফাহাদ, প্রিমিয়ারের শিমুল গুপ্ত, আকাশ, পোর্ট সিটির আলিনুর সিদ্দিক, রাজশাহীর বরেন্দ্রের জুয়েল, নর্থ বেঙ্গলের তামিম, হিমেল, ইস্ট ওয়েস্টের অপু, মিঠু মোহাম্মদ, সানি, কাকন, সিলেটের খুরশেদ, নকিব, তামিম, তানভির, ইয়ামিন, ইস্টার্নের ইভান, ইউল্যাবের ফারহান হাবিব, আল-ফাহাদ, দিপন, রাহুল, ড্যাফোডিলের আয়াজ, মিনাল, পিথিয়া, জহুরুল, রুমি, উত্তরার সৌরভ, সামির, ইমাম, আশার জয়, ইউআইটিএসের অনি, উজ্জ্বলসহ বিভিন্ন কর্মী ও বিভিন্ন সংগঠক বিভিন্নভাবে অশেষ ত্যাগ স্বীকার করেছেন। জাতীয়, আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমকর্মী, ছাত্র-শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষাবিদ, বুদ্ধিজীবীসহ সর্ব মহলের মানুষের সহযোগিতা-সহমর্মিতা আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে।

নো ভ্যাট অন এডুকেশন বিশ্বের ইতিহাসে একমাত্র শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদী আন্দোলন।

শুধু বাংলাদেশে নয়, বিশ্বের কোন প্রান্তেই যেন শিক্ষা ব্যবস্থার ওপর ভ্যাট আরোপিত না হয়। শিক্ষা হোক স্বল্পব্যয়ে সর্বজনীন। ২০১৫ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর মন্ত্রিপরিষদে আলোচনার মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষার্থীদের দীর্ঘ ৪ মাসের আন্দোলনের দাবি শিক্ষায় ভ্যাট প্রত্যাহার করার নির্দেশ দিয়ে একটি সিদ্ধান্ত দেন। আমরা বিশ্বাস করি, এটিই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক জীবনের সবচেয়ে সুন্দরতম সিদ্ধান্ত। ধন্যবাদ ও বিনম্রশ্রদ্ধা বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। প্রতিবছর ১৪ সেপ্টেম্বর ‘ভ্যাটমুক্ত শিক্ষা দিবস’ হিসেবে শুধু বাংলাদেশ নয়, জাতিসংঘের ঘোষণার মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী এই দিসব পালিত হোক। সহজ উপায়ে শিক্ষা ব্যবস্থা সকল মানুষের দ্বারে উপস্থিত হোক। প্রতিটি মানুষ সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে সৃষ্টির কল্যাণে নিয়োজিত থাকুক- নো ভ্যাট অন এডুকেশন।

লেখক : মুখপাত্র,নো ভ্যাট অন এডুকেশন।
ই-মেইল : [email protected]

আপনার মতামত জানানঃ