ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   শিক্ষার্থী ধর্ষণ করে ভিডিও ইন্টারনেটে, ধর্ষক গ্রেফতার

শিক্ষার্থী ধর্ষণ করে ভিডিও ইন্টারনেটে, ধর্ষক গ্রেফতার

আগস্ট ১৯, ২০২০ - ৫:৫৪ অপরাহ্ণ

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করার ভিডিও মোবাইলে ধারণ করে তা ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে সিয়ামুর রহমান খোকন (১৯) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাকে মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) বিকেলে ভূরুঙ্গামারী সরকারি কলেজ এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে ওই দিন সকালে ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে সিয়ামুর রহমান খোকন ও তার দুই সহযোগী নাজমুল হাসান রনি (২০) ও বাবলু মিয়া (৩২) আসামি করে থানায় মামলা করেন।

বুধবার (১৯ আগস্ট) গ্রেফতার সিয়ামুর রহমান খোকনকে আদালতে সোপর্দ করা হয়। অপর দুই আসামি পলাতক রয়েছেন। সিয়ামুর রহমান খোকন উপজেলার পাথরডুবি ইউনিয়নের দক্ষিণ পাথরডুবি গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে। আর একই এলাকার শওকত আলীর ছেলে হচ্ছে নাজমুল হাসান রনি এবং গেন্দা খলিফার ছেলে হচ্ছে বাবলু মিয়া।

পুলিশ এবং ভিকটিমের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া ১৪ বছর বয়সী কিশোরী তার পাথরডুবি এলাকার নানা বাড়িতে থেকে লেখাপড়া করে। এ অবস্থায় দীর্ঘ দিন ধরে বিদ্যালয়ে যাওয়া আসার পথে তাকে প্রেম নিবেদনসহ নানা ধরনের কুপ্রস্তাব দিয়ে উত্ত্যক্ত করতো সিয়ামুর রহমান খোকন। এ অবস্থায় গত ২০১৯ সালের ২২ অক্টোবর বিকেল ৪টার দিকে বিদ্যালয় থেকে নানাবাড়ি ফেরার পথে তার পথরোধ করে সিয়ামুর। এরপর নানারকম ভয়ভীতি দেখিয়ে নাজমুল হাসান রনির সহযোগিতায় তাকে জোরপূর্বক পাশের বাবলু মিয়ার বাড়িতে নিয়ে গিয়ে একটি ঘরে আটকে রাখে। এরপর সিয়ামুর রহমান খোকন তাকে ধর্ষণ করলে জানালার ফাঁক দিয়ে মোবাইলে সে দৃশ্য ধারণ করে নাজমুল হাসান রনি। এরপর মোবাইল ধারণ করা সেই ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখালে লোকলজ্জার ভয়ে ভিকটিম কাউকে কিছু না বলে চুপ থাকে।

কিন্তু তাতে দমে যায়নি সিয়ামুর রহমান খোকন। সে আবারও ভিকটিমকে কু-প্রস্তাব দিতে থাকে। তাতে রাজী না হওয়ায় কয়েক দিন আগে মোবাইলে ধারণ করা ভিডিওটি স্থানীয় একটি কম্পিউটারের দোকানে নিয়ে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়। এ খবর জানার পর ভিকটিমের স্বজনরা ভেঙে পড়েন। উপায়ন্তর না দেখে ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত ৩ জনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন।

এ প্রসঙ্গে ভূরুঙ্গামারী থানার অফিসার ইনচার্জ মুহা. আতিয়ার জানান, মামলা দায়েরের সাথে সাথে অভিযানে চালিয়ে মূল আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এছাড়া মোবাইলে ধারণকৃত ভিডিওটি উদ্ধার করা হয়েছে। ভিডিওটি আরও কোথাও আছে কিনা তাও অনুসন্ধান করে উদ্ধারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

আপনার মতামত জানানঃ