ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  শিক্ষা   »   শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিয়মিত মনিটরিংয়ের আহ্বান শিক্ষামন্ত্রীর

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিয়মিত মনিটরিংয়ের আহ্বান শিক্ষামন্ত্রীর

August 30, 2016 - 11:59 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : শিক্ষার মানোন্নয়নে নিয়মিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন ও মনিটরিংয়ের জন্য শিক্ষা বিভাগীয় কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

তিনি বলেন, পাবলিক পরীক্ষায় এমপিওভুক্ত অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হতাশাব্যঞ্জক ফলাফল হচ্ছে। সেসব প্রতিষ্ঠানের পেছনে সরকারি অর্থ ব্যয়ের যোক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক।

মঙ্গলবার ঢাকার মোহাম্মদপুরে ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজ মিলনায়তনে দেশের মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মূল্যায়ন-২০১৫ এর চূড়ান্ত প্রতিবেদনের ওপর জাতীয় কর্মশালায় এসব কথা বলেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, নিয়মিত পরিদর্শন ও মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা থাকলে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দুর্বলতা জানার জন্য পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতো না, অনেক আগেই ব্যবস্থা নেওয়া যেত।

দেশের উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা এ কর্মশালায় অংশ নেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, কোনো কোনো শিক্ষক ক্লাসে শিক্ষার্থীদের যথাযথভাবে না পড়িয়ে কোচিংয়ে বাধ্য করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। শিক্ষার্থীদের নোট বই পড়তে উদ্বুদ্ধ করা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনিয়মিত উপস্থিতি প্রভৃতি অভিযোগও কোনো কোনো শিক্ষকের বিরুদ্ধে পাওয়া যায়। নিয়মিত পরিদর্শন ও মনিটরিংয়ের মাধ্যমে এ সব শিক্ষক নামধারী দুর্জন ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে শিক্ষার মানোন্নয়নে উদ্যোগী হওয়ার জন্য শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষা বিভাগীয় কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে গত বছর দেশব্যাপী পরিচালিত মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মূল্যায়ন প্রতিবেদন প্রকাশ করে জানানো হয়, মূল্যায়নকৃত ৫২৭টি স্কুল ও মাদরাসার মধ্যে শিক্ষার মানের দিক থেকে সবচেয়ে ভালো বলে বিবেচিত হয়েছে রাজশাহীর বোয়ালিয়ার খাদেমুল ইসলাম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ এবং সবচেয়ে দুর্বল বলে বিবেচিত হয়েছে সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে উত্তর কুশিয়ারা মাধ্যমিক বিদ্যালয়।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. এস এম ওয়াহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শিক্ষা সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, টিকিউআই প্রকল্প পরিচালক জহির উদ্দিন বাবর, সেকায়েপের প্রকল্প পরিচালক ড. মো. মাহামুদুল হক এবং মাউশির পরিচালক প্রফেসর ড. মো. সেলিম মিয়া বক্তব্য রাখেন।

আপনার মতামত জানানঃ