ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   শহীদ প্রফুল্ল চাকী

শহীদ প্রফুল্ল চাকী

December 10, 2016 - 4:55 AM

নিউজ ডেস্ক : তখন হাইস্কুলে পড়ি। বাড়িতে জাতীয় দৈনিক ভোরের কাগজের পাশাপাশি স্থানীয় দৈনিক করতোয়া রাখা হতো।

একদিন করতোয়া পত্রিকার একটি ছবিতে চোখ আটকে যায়। সাদাকালো ছবি। সুঠাম দেহের তরুণের শরীরে ভাঁজ করা একটি চাদর বা অন্যকিছু জড়ানো। চেহারায় গভীর প্রত্যয় এবং দুচোখ দিয়ে বেরিয়ে আসছে প্রতিবাদের এক শীতল আগুন। লেখার শিরোনামের একটি অংশে তার নাম যুক্ত ‘প্রফুল্ল চাকী’।

খবরটি ছিল বগুড়া শিবগঞ্জ উপজেলার বিহার গ্রামে সম্ভবত এক পাঠাগার উদ্বোধনের ওপর। এক লাইন দুই লাইন করে খবরের ভেতর প্রবেশ করে খুঁজে পাই এক আত্মত্যাগের কথা। তিনি ছিলেন ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে বঙ্গের সর্বপ্রথম আত্মোৎসর্গী। প্রথম পর্বের ঘটনা এতটুকুই, ব্যাস।

এরপর বেশ কয়েক বছর কেটে যায়। স্বাভাবিকভাবেই ভুলে যাই পত্রিকা মারফত জানা গ্রামটি সম্বন্ধে আমার সেই প্রথম অভিজ্ঞতার কথা। যদিও মাঝে একবার ২০০৩ সালে কলকাতা ভিক্টোরিয়া প্যালেস মিউজিয়ামে গেলে সেখানকার বাস্তব পরিস্থিতি প্রফুল্ল চাকীর কথা মনে করে দিয়েছিল। এর মাঝে জীবনে জুটে যায় অনেক বন্ধুবান্ধব। তাদের মধ্যে একজন অগ্রজতুল্য বন্ধু সিরাজুল ইসলাম। বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ চুকিয়ে মনোযোগী হয়েছে শিল্প সাহিত্যের পাঠচক্র ও পাঠাগার আন্দোলন নিয়ে। সেই সুবাদে তার সাথে ঘনিষ্ঠতা। নানান বিষয়ের ভিড়ের মধ্যে প্রত্নতত্ত্বের ওপর জন্মে গেছে এক বিশেষ আগ্রহ। আমরা জানি বঙ্গের প্রাচীন রাজধানী ’পুন্ড্রবর্ধন’ বর্তমান মহাস্থানের চারিদিকের ৮ থেকে ১০কিমি এলাকার মধ্যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে বহু মূল্যবান প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা নিদর্শন। তার মধ্যে একটির নাম ভাসুবিহার, যার অবস্থান ঐ বিহার গ্রামে।

ভাসুবিহার দেখতে এক বিকেল বেলায় দুই বন্ধু মোটর সাইকেল নিয়ে বেরিয়ে পড়ি, দূবত্ব ১৮ কিমি। বিহারের প্রাচীন স্থাপনা নিদর্শনটি দেখে ফেরার পথে দেখি গ্রামের বাজারের মাঝে সারা শরীরে কাদার প্রলেপ দেওয়া দুই কিশোরকে ঘিরে মানুষের জটলা। হাতে রাইফেল ও বোমা সদৃশ্য বস্তু, হেঁটে যাচ্ছে প্রতিবাদী মূর্তি নিয়ে। পিঠে সুতায় লটকানো শক্ত কাগজে লেখা ’মুক্তিযোদ্ধা’ (আয়োজনটা কোনো অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে হয়ে থাকবে)। ঘটনার প্রভাবে স্মৃতির আড়ালে হারিয়ে যাওয়া সেই নামটি হঠাৎ মনে পড়ে যায়, বিপ্লবী ’প্রফুল্ল চাকী’। হ্যাঁ, এই তো সেই বিহার নামক গ্রাম, যেখানে প্রফুল্ল চাকীর জন্ম! সন্ধ্যা নেমে আসায় সেদিনের জন্য ও-পর্যন্তই রাখতে হয়েছিল।

পরেরদিন দুজনে আবার রওনা করি। শান্ত সুনিবিড় পাথারের মাঝ দিয়ে পিচঢালা কালো পথের পর বিহার বাজার। স্থানিয় দুই-তিনজন যুবককে জিজ্ঞেস করে কিছুই জানতে পারলাম না। জানতে চেয়েছিলাম, প্রফুল্ল’র জন্ম স্থানটা কোথায়? ভাবনায় পড়ে যাই, স্কুলে পড়তে পত্রিকার সেই খবরটা কি ভুল জেনেছিলাম! না, তা তো হতে পারে না! পরিস্কার মনে আছে, এই সেই বিহার। এরপর স্বচেতন ও শিক্ষিত গোছের এক যুবককে জিজ্ঞেস করে যা শুনলাম, তাতে তো তালগোল পাকিয়ে যাওয়ার উপক্রম। বলে, ও ক্ষুদিরামের ভিটার কথা বলছেন? পরিস্থিতি প্রত্যক্ষ করে এক সার-কিটনাশক ব্যবসায়ী  এগিয়ে এসে বলেন, সেই থেকে দেখছি একে ওকে ধরে কি যেন জানার চেষ্টা করছেন, আমি কি জানতে পারি? আমাদের অভিপ্রায় জানার পর তারও একই কথা, এখানে তো একটা জায়গা আছে, যাকে সকলেই ক্ষুদিরামের ভিটা বলে থাকে। তবে প্রকৃত খবর জানার জন্য স্থানীয়  অবসরপ্রাপ্ত স্কুলশিক্ষক রওশন মাস্টারের সাথে যোগাযোগ করার পরামর্শ দিলেন। ঠিক আছে তা না হয় করা যাবে, তার আগে বলুন ঐ ক্ষুদিরামের ভিটাইবা কোথায়? যেতে কয়েক মিনিট লাগবে বলে পাশে দাঁড়ানো এক কিশোরকে বলে দিল আমাদেরকে নিয়ে যেতে।

বাঁশঝাড়ের নিচ দিয়ে মেঠোপথের পর বয়ে গেছে সরু  একটি খাল। খালের উত্তর পাড়ে একটি ভুট্টাক্ষেত। দুই দিকে ঘরবাড়ি আর এক পাশে বাঁশঝাড়। কিশোরটি দেখিয়ে দিয়ে পেছন থেকে কখন যে বিদায় হয়েছে টের পাইনি। পাশের বাড়ির উঠানে নারীরা ক্রুশকাঁটা দিয়ে মাথার টুপি বোনার কাজে ব্যস্ত। জানতে চাইলে তাদেরও ঐ এক কথা, ক্ষুদিরামের ভিটা। গরু-ছাগলের চোনা-গোবর ফেলার জায়গাটা ভিটার সীমানা ঘেঁষে, পাশ দিয়ে এগিয়ে দুহাতে ভুট্টা গাছ সরিয়ে প্রবেশ করি ক্ষেতের মাঝখানে। দেখি একটি স্মৃতিস্তম্ভ। অযত্ন আর অবহেলায় জরাজীর্ণ হয়ে পরে রয়েছে। নিকটে গিয়ে লক্ষ করি ফলকের লেখাগুলো মিশে গেছে অনেক আগেই, কেবল সালটা কোনমতে বোঝা যাচ্ছে। স্থানীয় প্রফুল্ল চাকী সংঘের উদ্যোগে ১৯৯৭ সালে স্তম্ভটি স্থাপন করা হয়েছিল। সেদিনের কথা আজও মনে আছে, এক শহীদ বিপ্লবীর জন্মস্থানে দাঁড়িয়ে আছি ভাবতেই আমার মাথার তালু থেকে মেরুদণ্ডের মাঝ দিয়ে প্রবাহিত হয়ে গিয়েছিল এক হিম শীতল ঠান্ডা অনুভূতি। ১৩ শতাংশের জায়গাটি এখনও সংরক্ষিত রয়েছে অরক্ষিতভাবেই। যে যেমনে পারে ব্যাবহার করতে মানা নেই।

পৃথিবীর ইতিহাসে বোধহয় এমন আর একটি ঘটনা খুঁজে পাওয়া যাবে না, যেখানে মাত্র একশ বছরেই নিজ জন্মস্থান থেকে মুছে গেছে শোষণের শৃঙ্খল থেকে মুক্তির লড়াইয়ে জীবন দানকারী এক শহীদের কথা (৩০-৪-২০১৬ তারিখে -তে একটি লেখা প্রকাশিত হয়েছিল যেখানে তার সংগ্রামী জীবন ও আত্মত্যাগের  ওপর আলোকপাত করার চেষ্টা করেছিলাম)।

কিটনাশক ব্যবসায়ীর দেওয়া তথ্য মতে বিস্তারিত জানতে উপস্থিত হই রওশন মাস্টারের বাড়িতে। রওশন মাস্টার আমাদের আগ্রহের কথা জানার পর বাড়ির ভেতর যেতে আমন্ত্রণ জানালেন। তিনি প্রফুল্ল চাকী সংঘের সাধারণ সম্পাদক। আমাদেরকে বসতে বলে ট্রাঙ্কের ভেতর থেকে বেশ কিছু পুরনো কাগজপত্র ও দলিল বের করে আনলেন। চায়ে চুমুক দিতে দিতে প্রফুল্ল চাকী সম্বন্ধে তার আহরিত জ্ঞান থেকে বর্ণনা করলেন।

চাকী পরিবারের সঙ্গে তাদের ঘনিষ্ঠতা ছিল বেশ। বগুড়ার নবাব এস্টেটে কর্মরত রাজনারায়ণ চাকীর ৬ ছেলে-মেয়ের মধ্যে প্রফুল্ল ছিল ছোট। তার বড় ভাইয়ের  ৩য় স্ত্রী স্নেহলতাকে তিনি দেখেছেন। শুধু তাই নয় স্নেহলতা তাকে (রওশন মাস্টার) ছোট বেলায় অনেক কোলে-পিঠে নিয়েছেন। স্থানীয় স্কুলে পড়াশুনার এক পর্যায়ে প্রফুল্লকে ভর্তি করানো হয় রংপুর জেলা স্কুলে। ৯ম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে যুক্ত হওয়ার অপরাধে স্কুল থেকে তাকে বহিস্কার করা হয়। তারপর অন্য স্কুলে ভর্তি হলেও পড়ালেখা আর হয়নি। কারণ স্বদেশি আন্দোলনের অহিংস নীতিতে আস্থা না রাখতে পেরে অনেকের মত তিনিও ইতিমধ্যেই গোপন বিপ্লবী ধারার দীক্ষা নিয়ে ফেলেছেন, গ্রহণ করেছেন ছদ্মনাম দীনেশ রায়। আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় গমন করেন কলকাতায়। মাতৃভূমিকে শত্রুমুক্ত করার বৃহৎ লক্ষের অংশ হিসেবে স্যার ফুলারকে হত্যা পরিকল্পনা করা হয়। এই হত্যা প্রচেষ্টায় প্রফুল্ল অংশগ্রহণ করেন। যদিও তাঁরা ব্যর্থ হয়েছিল।

অত্যাচারী ও বর্বর বিচারক ডগলাস কিংসফোর্ড আন্দোলনকারী তথা বিপ্লবীদের বিরুদ্ধে প্রহসনমূলক সাজা ঘোষণা করতে থাকলেন। বিপ্লবীরা এবার তাকে হত্যার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হল। দায়িত্ব অর্পিত হয় প্রফুল্ল ও ক্ষুদিরাম বসুর ওপর। এরইমধ্যে কিংসফোর্ডকে বদলি করা হয় বিহার রাজ্যের মোজাফ্ফরপুর। কলকাতা থেকে দুজনে সেখানে গিয়ে কিংসফোর্ডের অবস্থান নিশ্চিত করেন। অতঃপর সুযোগ বুঝে বোমা হামলা চালালে ভুলক্রমে নিহত হন দুইজন ইংরেজ রমণী। দিনটি ছিল ৩০ এপ্রিল, ১৯০৮। ক্ষুদিরাম পুলিশের হাতে ধরা পড়েন। তার পরের ইতিহাস আমাদের জানা, এক প্রহসনের বিচারে তাকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করা হয়। এদিকে প্রফুল্ল ছদ্মবেশে কলকাতা পালানোর পথে মোকামাঘাট রেলস্টেশনে নিশ্চিত ধরা পড়ার আগেই কোমরে গুঁজে রাখা নিজ পিস্তল দিয়ে মাথায় গুলি চালিয়ে আত্মাহুতি দেয়ন। ছদ্মনামধারী বিপ্লবী দীনেশ রায়কে সনাক্ত করা বা তার প্রকৃত পরিচয় বের করা প্রশাসনের পক্ষে কঠিন হয়ে দাঁড়াল। প্রথমে তার মৃতদেহটি মইয়ের সঙ্গে বেঁধে দাঁড় করিয়ে ছবি তোলা হয়। সেই ছবি কলকাতায় পাঠানো হয় এবং পত্র-পত্রিকাতেও ছাপানো হয়। অতঃপর ধড় থেকে মাথা কেটে আলাদা করে কলকাতায় পরীক্ষা নিরীক্ষার পর সেটি ইন্টেলিজেন্স ব্যুরোর বাগানে পুঁতে রাখা হয়। পরবর্তী সময়ে অবশ্য একজন আইবি কর্মকর্তা খুলিটি উত্তোলন করে ক্রিমিনাল রেকর্ড রুমে রেখে দেওয়ার জন্য পাঠিয়ে দেন লালবাজার। তদন্তের স্বার্থে গোয়েন্দা বিভাগের লোকেরা চলে আসে বগুড়া বিহার তার গ্রামের বাড়িতে। গোয়েন্দা কর্মকর্তা ছবিটি যখন তার মাকে দেখান, পুত্রশোকে পাথর মাতা স্বর্ণময়ী আবেগকে সামাল দিতে না পেরে ডুকরে কেঁদে বলে ওঠেন ‘ওরে, এ যে আমার ফুলো’ (প্রফুল্ল চাকীর ডাক নাম)! ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের সর্ব কনিষ্ঠতম এবং সর্ব প্রথম বাঙ্গালি আত্মাহুতি দানকারী বিপ্লবী প্রফুল্ল চাকী। এমন একটি ইতিহাস শুনতে শুনতে শরীরের সমস্ত লোম কখন যে দাঁড়িয়ে গিয়েছিল অনুমান করতে পারিনি। ৮৫ বছরের বৃদ্ধ শ্বাসকষ্টের রুগী রওশন মাস্টার কিছুক্ষন পর পর জোরে একটা শ্বাস টেনে মৃদু স্বরে বর্ণনা করছিলেন। একপর্যায়ে খানিকটা আবেগপ্রবণ হয়ে মাথাটা হালকা উঁচু করে বাহিরের দিকে তাকালেন। আম, কড়ই ও অন্যান্য গাছের নিচ দিয়ে দিনের শেষ আলোয় দেখা যায় পুকুরের ওপাড়ের বাঁশঝাড়ের নিচে প্রফুল্ল’র জন্মভিটা। তিনি দুঃখভরা হৃদয়ে বলেছিলেন, তাজমিলুর রহমান (প্রফুল্ল চাকী সংঘের সভাপতি) এবং আমি দুজনেই অথর্ব হয়ে গেছি। আমাদের অনুপস্থিতিতে প্রফুল্ল চাকী সংঘ বোধহয় আর টিকে থাকবে না! তবে আমাদেরকে দেখে অনেক আশাবাদী হয়েছিলেন যে, জীবনে দেখে গেলেন বিষয়টি নিয়ে কেউ অন্তত স্ব-উদ্যোগে খোঁজ খবর বা অনুসন্ধান চালাচ্ছে।

মেদিনীপুরে ক্ষুদিরাম বসুর জন্মভিটায় স্থাপিত বিপ্লবের স্পৃহায় উদ্দীপ্ত ভাস্কর্যটিতে নজর পড়লে যে কারও হৃদয় কেঁপে ওঠে। তার সেই আত্মত্যাগের চেতনা ধারণ করে বাঁকুড়ার লোককবি পীতাম্বর দাস রচনা করেছিলেন কালজয়ী গান, ‘একবার বিদায় দে মা ঘুরে আসি/ হাসি হাসি পড়ব ফাঁসি দেখবে জগৎবাসী।’

সম্প্রতি মনোজ বাজপেয়ী অভিনিত মাস্টারদার সতীর্থ ঝুংকুর ডায়েরি অবলম্বনে নির্মিত বেদাব্রত পাইন-এর ‘চিটাগাং’ চলচ্চিত্রেও একই বিষয়ের উল্লেখ পাওয়া যায়। অনুরুপভাবে আজ এখানকার নারীদের নিকট আন্দোলন সংগ্রাম ও বিপ্লবের প্রতিক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার। এর পেছনে সর্বাধিক অবদান দেশের রাজনীতিবিদ ও শিল্পী-সাহিত্যিকদের। অথচ, প্রফুল্ল চাকীকে নিয়ে চোখে পড়ার মত কোনো কাজ আমরা দেখতে পাই না। জানামতে দেশে একমাত্র রংপুর জেলাস্কুলে প্রফুল্ল চাকীর আত্মাহুতি দিবস পালিত হয়ে থাকে।

মর্মাহত হয়েছিলাম কলকাতা ভিক্টোরিয়া প্যালেস মিউজিয়ামে গিয়েও (২০০৩)। গ্যালারিতে টানানো  পোট্রেট, হাফ হাতা গেঞ্জি ও ধুতি পড়া তরুণ ক্ষুদিরাম ঝোপঝাড়ের আড়ালে হাতে বোমা নিয়ে সন্তর্পণে দাঁড়িয়ে রয়েছেন, কখন কিংসফোর্ডের গাড়িটি আয়ত্বের মধ্যে চলে আসবে! পোট্রেটটি দেখে অনেক উজ্জীবিত হয়েছিলাম এবং আশাবাদী হয়েছিলাম।

রওশন মাস্টারের মত আজ বলতেই হয় নবাবীর অতি নিকটে অবস্থান করা পরিবারে জন্ম নিলেন। গতানুগতিক জীবন গড়ায় মনোযোগী হলে হয়তো সুবিধাপ্রাপ্ত এক সৌখিন ভবিষ্যতের দিকে নিজেকে ঠিকই এগিয়ে নিতে পারতেন কিন্তু তা তিনি করেননি। সুখ সম্ভোগকে দূরে ঠেলে জীবনটা অকাতরে বিলিয়ে দিলেন মাতৃভূমির মুক্তির জন্য।

আপনার মতামত জানানঃ