ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   শর্তসাপেক্ষে আলোচনায় রাজি তালেবান

শর্তসাপেক্ষে আলোচনায় রাজি তালেবান

জুলাই ২৪, ২০২০ - ১:০২ অপরাহ্ণ
তালেবান

আফগানিস্তানের তালেবান শর্তসাপেক্ষে দেশটির সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসার আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

দোহায় তালেবানের রাজনৈতিক দপ্তরের মুখপাত্র সোহেল শাহিন বৃহস্পতিবার এক টুইটার বার্তায় তার সংগঠনের এ আগ্রহের কথা জানান। দেশটিতে সরকারি বাহিনীর বিমান হামলায় বেসামরিক নাগরিক ও তালেবান যোদ্ধাসহ ৪৫ জন নিহত হওয়ার পর এ টুইট করেন সোহেল শাহিন।

তিনি ওই বার্তায় বলেন, আসন্ন ঈদুল আজহার আগে তালেবান তাদের হাতে থাকা সব সরকারি বন্দীকে মুক্তি দিতে রাজি আছে। তবে শর্ত হচ্ছে, তারা সরকারের কাছে যে তালিকা দিয়েছেন সে অনুযায়ী সরকারি কারাগারগুলোতে আটক সকল তালেবানবন্দীকে মুক্তি দিতে হবে।

তালেবান দীর্ঘদিন ধরে আমেরিকার সঙ্গে কথিত শান্তি আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার পর চলতি বছরের মার্চ মাসে কাতারের রাজধানী দোহায় চুক্তি সই করে। তবে আমেরিকার সঙ্গে আলোচনা করলেও কাবুল সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসতে এখন পর্যন্ত অস্বীকৃতি জানিয়ে এসেছে তালেবান।

সোহেল শাহিন তার টুইটার বার্তায় আরো বলেন, বন্দীমুক্তির প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে ঈদুল আজহার পর আফগান সরকারের সঙ্গে তারা আলোচনায় বসার জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত রয়েছেন।

তবে তালেবান এমন সময় তাদের তালিকা ধরে বন্দীমুক্তির দাবি জানাচ্ছে যখন আফগান সরকার বলছে, আদালতে মামলা বিচারাধীন থাকায় এবং আদালত প্রদত্ত শাস্তির মেয়াদ শেষ না হওয়ায় তালেবানের দেয়া তালিকার প্রায় ৬০০ বন্দীকে মুক্তি দেয়া সম্ভব হবে না। কাজেই তালেবান যেন মুক্তির জন্য তাদের বন্দীদের নতুন তালিকা তৈরি করে।

চলতি বছরের মার্চ মাসে তালেবানের সঙ্গে আমেরিকার স্বাক্ষরিত ব্যর্থ চুক্তিতে বলা হয়েছে, আফগান সরকার তালেবানের পাঁচ হাজার বন্দীকে এবং তালেবানআফগান সরকারের এক হাজার বন্দীকে মুক্তি দেয়ার পর দু’পক্ষের মধ্যে সরাসরি শান্তি আলোচনা শুরু হবে।

তালিবান (পশতু ভাষায়: طالبان, তালেবান-ও ব্যবহৃত হয়) সুন্নি ইসলামী এবং পশতুন জাতীয়তাবাদী আন্দোলন। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আফগানিস্তানে এই আন্দোলনের নেতারা ক্ষমতাসীন ছিলেন। ২০০১ সালে নর্দার্ন অ্যালায়েন্স এবং ন্যাটো দেশগুলো কর্তৃক পরিচালিত এক যৌথ অভিযানের মাধ্যমে সেদেশে তালিবান শাসনের অবসান ঘটানো হয়, তালিবান নেতারা অনেকেই বন্দী হন, বাকিরা পালিয়ে যান। “তালিবান” শব্দের অর্থ “ছাত্র”।

বর্তমানেও দৃঢ় চেতনার অধিকারী তালিবান সমর্থকেরা পাকিস্তান-আফগানিস্তান সীমান্তের উপজাতীয় অঞ্চলে ক্ষমতাসীন আফগান সরকার, অপারেশন এন্ডিউরিং ফ্রিডম-এ অংশগ্রহণকারী ন্যাটো সৈন্যবাহিনী এবং ন্যাটো পরিচালিত ইন্টারন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যাসিস্টেন্স ফোর্সের (আইএসএএফ) বিরুদ্ধে গেরিলা যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে।

আপনার মতামত জানানঃ