ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  খেলাধুলা   »   শনিবার চট্টগ্রাম টেস্টের সকালের সেশনে ৫৫ রানে দুই দল হারায় ৮ উইকেট

শনিবার চট্টগ্রাম টেস্টের সকালের সেশনে ৫৫ রানে দুই দল হারায় ৮ উইকেট

October 22, 2016 - 2:42 PM

চট্টগ্রাম থেকে : শনিবার চট্টগ্রাম টেস্টের সকালের সেশনে ৫৫ রানে দুই দল হারায় ৮ উইকেট। বাংলাদেশ ৬৬ মিনিটে ২৭ রানে ৫টি এবং ইংল্যান্ড ৪১ মিনিটে ২৮ রানে ৩টি উইকেট হারায়। দিনের বাকিটা সময় কেমন যাবে তা একটু-আধটু রৌদ্যজ্জ্বল সকাল থেকেই অনুমান করা যাচ্ছিল। পুরোদিন রান হয়েছে মাত্র ২৫৫। দুই দল উইকেট হারিয়েছে ১৩টি। ইংলিশরা প্রথম সেশনে দাপট দেখানোর পর দ্বিতীয় সেশনে দাপট দেখায় বাংলাদেশ। শেষ সেশন ভাগ করে নেয় দুই দল। সফরকারীদের তৃতীয় দিন শেষে সংগ্রহ ৮ উইকেটে ২২৮ রান। বাংলাদেশের বিপক্ষে তাদের লিড ২৭৩ রানের। ৭২ রানে পিছিয়ে থেকে তৃতীয় দিনের যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশ। ২২১ রানে থাকা বাংলাদেশ ইংল্যান্ডের করা ২৯৩ রান প্রথমবারের মত টপকে যাওয়ার স্বপ্ন দেখতে থাকে দ্বিতীয় দিন থেকেই। স্বপ্ন পূরণে ব্যাটিংয়ে আসেন সাকিব আল হাসান ও শফিউল ইসলাম। কিন্তু তৃতীয় দিন লিডের স্বপ্নে গুড়েবালি। বড় ধাক্কাটা সাকিবই দিয়েছেন। দ্বিতীয় দিনের প্রথম বলে তাইজুল নিয়েছিলেন উইকেট। তৃতীয় দিনের দ্বিতীয় বলে উইকেট নিলেন মঈন আলী। নিজের উইকেট আত্মাহুতি দিয়ে আসেন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় তারকা সাকিব আল হাসান। অফ স্পিনারের ঝুলানো বলে ডাউন দ্য উইকেটে এসে খেলতে গিয়ে স্টাম্পড হন সাকিব। দিনের দ্বিতীয় বলে সাকিব কেন ডাউন দ্যা উইকেট যাবেন? প্রশ্নের উত্তর দেবেন কে! সিনিয়র ক্রিকেটারের এ রকম দায়িত্বহীন ব্যাটিংয়ের পর জুনিয়ররা কী করবেন, তা অনুমিতই ছিল। অভিষিক্ত মেহেদী হাসান মিরাজের ইনিংস স্থায়ী হয় মাত্র ৪ বল। তৃতীয় বলে রানের খাতা খোলার পর চতুর্থ বলে এলবিডব্লিউ মিরাজ। বল করেছিলেন বেন স্টোকস। রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি তরুণ তুর্কি। এরপর স্টোকসের আগুনে পুড়েছেন সাব্বির রহমান ও কামরুল ইসলাম রাব্বি। ২৪৮ রানে শেষ বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস। তৃতীয় দিন বাংলাদেশ শেষ ৫ উইকেট হারায় মাত্র ২৭ রানে। ৬৬ মিনিটে ১২ ওভারেই শেষ প্রথম লিডের স্বপ্ন। অবশ্য শেষ ৬ উইকেট হারায় মাত্র ২৭ রানেই। কারণ দ্বিতীয় দিন দলীয় ২২১ রানে মুশফিকুর রহিম আউট হওয়ার পর সাকিব-শফিউল কোনো রানই স্কোরবোর্ডে যোগ করতে পারেননি। স্পিনে ইংল্যান্ড সব উইকেট হারালেও বাংলাদেশের বিপক্ষে দাপট দেখিয়েছে বেন স্টোকস। ১৪ ওভারে ২৬ রানে নিয়েছেন ৪ উইকেট। অবশিষ্ট ৬ উইকেট পেয়েছেন অবশ্য তিন স্পিনার।
৪৫ রানে এগিয়ে থেকে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই আবারও চাপে ইংল্যান্ড। প্রথম ইনিংসে ২১ রানে ৩ উইকেট হারানো ইংল্যান্ড দ্বিতীয় ইনিংসে ৩ উইকেট হারায় ২৮ রানে। স্পিনার মিরাজের স্ট্যাম্পের উপরের বল ব্লক করতে গিয়ে স্লিপে মাহমুদউল্লাহর তালুবন্দি হন কুক (১২)। এরপর মধ্যাহ্ন বিরতির আগে সাকিবের জোড়া আঘাত। ১ রান করা জো রুট সাকিবের ফুলার লেন্থেও বল সুইপ করতে গিয়ে এলবিডব্লিউর শিকার। এ উইকেট নিয়ে টেস্ট ক্যারিয়ারে ১৫০তম উইকেটের স্বাদ নেন বিশ্বের অন্যতম সেরা এ অলরাউন্ডার। রুটকে বিদায় করার পরবর্তী ওভারে অভিষিক্ত বেন ডাকেট শর্ট লেগে ক্যাচ দেন। বিরতির পর ইংলিশদের চেপে ধরে বাংলাদেশ। তাইজুল গ্যারি ব্যালেন্সের (৯) উইকেট নেওয়ার পর সাকিবের শিকার হন মঈন আলী (১৪)। অবশ্য ৬ রানে ‘জীবন’ পেয়েছিলেন মঈন। শর্ট লেগে ক্যাচ দিয়েছিলেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। মুমিনুল হক ক্যাচটিও নিয়েছিলেন। কিন্তু বল তালুবন্দি হওয়ার আগে হেলমেটে লাগায় তৃতীয় আম্পায়ার সুরিন্দম রবি নট আউটের সিদ্ধান্ত দেন। পঞ্চম উইকেট হারানোর পর ষষ্ঠ উইকেটে প্রতিরোধ গড়ে তুলে ইংল্যান্ড। দলীয় রান ৬২ থেকে ১৮৯ পর্যন্ত টেনে নেন জনি ব্রেয়ারস্টো ও বেন স্টোকস। ১২৭ রানের জুটি গড়ে লিড বাড়াতে থাকে এ দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান। ভয়ংকর হয়ে উঠা এ জুটি দলীয় ১৮৯ রানে ভাঙেন অভিষিক্ত পেসার কামরুল ইসলাম রাব্বী। ৪৭ রান করে ব্রেয়ারস্টো বোল্ড হন রাব্বীর বলে। সঙ্গী হারানোর পর স্টোকস বেশিক্ষণ টিকে থাকতে পারেননি। ৮৫ রান করা স্টোকস এলবিডাব্লিউর শিকার। ১৫১ বলে ৬ চার ও ৩ ছক্কায় ৮৫ রান করা স্টোকস চেয়েছিলেন আম্পায়ার ধর্মসেনার সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানাতে। কিন্তু আঙুল তোলার ১৫ সেকেন্ড পর চ্যালেঞ্জ জানানোর কারণে রিভিউয়ের চ্যালেঞ্জ বাতিল হয়ে যায়। পরবর্তীতে আদীল রশিদের উইকেট নিয়ে ক্যারিয়ারের ১৫তম ৫ উইকেটের স্বাদ নেন সাকিব আল হাসান। একই সঙ্গে ইংল্যান্ড ও বাংলাদেশের মধ্যকার দ্বিপাক্ষীয় সিরিজে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি বোলার হিসেবে নিজেকে শীর্ষে নিয়ে যান সাকিব। তৃতীয় দিন শেষে ম্যাচের নাটাই অনেকটাই ইংল্যান্ডের হাতে। বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংসে এখনও ২৭৩ রানে পিছিয়ে। সফরকারীদের হাতে এখনও ২ উইকেট আছে। নিশ্চিতভাবেই শেষ ২ উইকেটে যত সম্ভব রান বাড়াতে চাইবে সফরকারীরা। চতুর্থ ইনিংসে ৪১৩ রান করার রেকর্ড আছে বাংলাদেশের। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি হেরেছিল টাইগাররা। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে চতুর্থ ইনিংসে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সংগ্রহ ৩৩১। ২০১০ সালে ৫১৩ রানের টার্গেটে ৩১৩ রান করে ১৮১ রানে হেরেছিল সাকিব আল হাসানের দল। এছাড়া ৩৭৪ রানের টার্গেটে ৫ উইকেটে ২৮৫ করে ড্র করেছিল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। অতীত পরিসংখ্যান বলছে চতুর্থ ইনিংসে খুব ভালো রেকর্ড নেই বাংলাদেশের। তবুও বদলে যাওয়া বাংলাদেশের থেকে ‘অস্বাভাবিক কিছুর’ প্রত্যাশা থাকতেই পারে। শেষ পর্যন্ত সাগরিকায় বাঘের গর্জন না সিংহের হুংকার শোনা যায় সেজন্য অপেক্ষা করতে হবে আরও বেশ কয়েকটি সেশন।

আপনার মতামত জানানঃ