ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   লালমোহন রূপালী ব্যাংক ম্যানেজার আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে ঘুষ বাণিজ্যসহ নানা রকম অনিয়মের অভিযোগ

লালমোহন রূপালী ব্যাংক ম্যানেজার আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে ঘুষ বাণিজ্যসহ নানা রকম অনিয়মের অভিযোগ

August 31, 2016 - 4:19 PM

এম এ হান্নান বরিশাল :

লালমোহন রূপালী ব্যাংক ম্যানেজার আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে ঘুষ বাণিজ্যসহ নানা রকম অনিয়মের অভিযোগ মিলেছে। উপজেলার বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার শিক্ষকরা প্রভাবশালী ম্যানেজারের ঘুষ বাণিজ্যের কারণে অসহায় হয়ে পড়েছেন। তথ্য সূত্রে জানা গেছে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার শিক্ষকদেরকে তাদের বেতন অনুপাতে ঋণ প্রদান করা হয়, যা প্রতি মাসে মাসে মাসিক বেতন থেকে কর্তন করা হয়। শিক্ষকদের ঋণ প্রদানের সময় বিভিন্ন অজুহাতে তাদের কাজ থেকে মোটা অংকের উৎকোচ নেওয়া হয় বলে জানা যায়। কোন শিক্ষক ঘুষ দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তাকে আর ঋণ দেওয়া হয় না। ঘুষের টাকা শিক্ষকদের কাছ থেকে অগ্রিম নিয়ে তার পর তাকে ঋণ আবেদন ফরম, স্ট্যাম্প, ব্যাংক ফরম, ভাউচার সরবরাহ করা হয়। যে শিক্ষক ঘুষের টাকা অগ্রিম দেয়না তাকে বলা হয় বর্তমানে ফান্ড নেই, ঋণ প্রদানের অনুমতি নেই ইত্যাদি ইত্যাদি অজুহাত দেখিয়ে মাসের পর মাস ঘুরাতে থাকে। কিন্তু ঋণ দেওয়া হয়না। ঘুষের টাকা অগ্রিম পরিশোধ করলেই আর কোন অজুহাত নেই। ডান হাত, বা হাত সমানে চলে এক থেকে দেড় ঘন্টার মধ্যে ঋনের চেক হস্তান্তর করা হয়। স্থানীয় ভাবে রূপালী ব্যাংকের ম্যানেজার আবুল কাশেম প্রভাবশালী হওয়ায় তার অনিয়ম তথা ঘুষ বাণিজ্যের বিরুদ্ধে কোন শিক্ষক প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। কোন শিক্ষক প্রতিবাদ জানালে তাকে মাসের পর মাস এর খেসারত দিতে হয়। নানা ভাবে হয়রানী করা হয়। শিক্ষকদের ঋণ প্রদানে ঘুষ বাণিজ্য ছাড়াও রূপালী ব্যাংক, লালমোহন শাখার ম্যানেজার আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে আরও অনেক অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। ভুক্তভোগীরা তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান। রূপালী ব্যাংক ম্যানেজার আবুল কাশেম জানান আপনারা যা শুনেছেন সেটাই লেখেন। এ প্রসঙ্গে আমার কোন বক্তব্যের দরকার নেই। যেটা সত্য সেটাই লেখেন। (চলবে)

আপনার মতামত জানানঃ