ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   ‘রোহিঙ্গা সংকটের দ্রুত সমাধান না হলে অস্থিরতা বাড়বে’

‘রোহিঙ্গা সংকটের দ্রুত সমাধান না হলে অস্থিরতা বাড়বে’

সেপ্টেম্বর ১২, ২০২০ - ৬:৪৫ অপরাহ্ণ
রোহিঙ্গা সংকটের দ্রুত সমাধান না হলে অস্থিরতা বাড়বে

রোহিঙ্গা সংকটের দ্রুত সমাধান না হলে, এই অঞ্চলে অস্থিরতা দেখা দেবে বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

চুক্তির পরও প্রত্যাবাসন না হওয়ায় হতাশা ব্যক্ত করে তিনি বিশ্বশক্তিগুলোর সহযোগিতা চেয়েছেন। প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের টালবাহানায় গভীর উদ্বেগ জানিয়েছে জাতিসংঘ। এদিকে, মিয়ানমারের আরও দুই সেনার রোহিঙ্গা গণহত্যার স্বীকারোক্তিতে সু চি প্রশাসনের বিচার ত্বরান্বিত হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) ভার্চুয়ালি ২৭তম আসিয়ান রিজিওনাল ফোরামে যোগ দিয়ে নানা বিষয়ে কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। এ সময় তিনি রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে আসিয়ানের দেশগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে বলেন, দ্রুত এই সংকট সমাধান না হলে এ অঞ্চলে অস্থিতিশীলতা দেখা দেবে। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারকে আরও কার্যকরী ভূমিকা রাখতে হবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে, মিয়ানমার সেনাবাহিনী রাখাইনে অত্যাচার অব্যাহত রেখেছে বলে জানিয়েছে, জাতিসংঘ। এ নিয়ে সংস্থাটি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। আরাকান আর্মির নাম কোরে, মিয়ানমারের আইনশৃঙ্খলা রক্ষীবাহিনী স্থিতিশীল পরিবেশ বিনষ্ট করছে। এমনকি ৮ নভেম্বরের জাতীয় নির্বাচনেও রোহিঙ্গাদের অংশ নিতে দিচ্ছে না সরকার। যা জাতিগত নিধনের পর, জাতিগত অবমাননা হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকরা। শুক্রবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের রুদ্ধদ্বার বৈঠকে অংশ নেয় আট দেশ। পরে এক বিবৃতিতে এ বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়।

এদিকে, নতুন করে আরও দুই মিয়ানমার সেনা ২০১৭ সালের আগস্টে, রোহিঙ্গা গণহত্যার স্বীকারোক্তি দেয়ায় সু চি প্রশাসনের বিচার করা আরও সহজ হবে বলে মনে করা হচ্ছে। শুক্রবার তাদের নতুন ভিডিও ফুটেজ সামাজিকমাধ্যমে ভাইরাল হয়। এর আগে স্বীকারোক্তি দেন জ নাইং তুন ও মায়ো উইন তুন। এবার তাদের সঙ্গে যোগ দিলেন, চ্যাও মিও অং এবং পার তাও নি। তারা তুলে ধরেন ভয়াবহতার কথা।

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সদস্য চ্যাও মিও অং বলেন, ‘রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর ভয়াবহ নিপীড়ন চালিয়েছে সেনাবাহিনী। বাহিনীর মধ্যে জাতিগতভাবে বৈষম্য করা হয়। অনেক কর্মকর্তা মাদক গ্রহণ করেন। মাদকে পৃষ্ঠপোষকতাও রয়েছে তাদের।’

এই চারজনের বক্তব্যের ভিডিও ধারণ করেছে রাখাইনের আরাকান আর্মি। প্রথম দুজন বক্তব্য দেয়ার পর মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ, যথারীতি একে বানোয়াট হিসেবে আখ্যা দেয়।

Tags:

আপনার মতামত জানানঃ