ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আইন-আদালত   »   রিগেন ছয় দিনের রিমান্ডে

রিগেন ছয় দিনের রিমান্ডে

September 25, 2016 - 12:31 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক : গুলশানের হলি আর্টিসান রেস্টুরেন্টে হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় রাকিবুল হাসান রিগেন নামের এক আসামির ছয় দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

রোববার ঢাকা মহানগর হাকিম গোলাম নবি এই রিমান্ডের আদেশ দেন।

গত ১৯ সেপ্টেম্বর এ মামলায় রিগ্যানকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পুলিশ পরিদর্শক হুমায়ুন কবির আসামি রিগ্যানের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। সেদিন আদালত রিমান্ড শুনানির জন্য আজ রোববার দিন ধার্য করেন।

আসামি রিগ্যানের পক্ষে এদিন কোনো আইনজীবী ছিল না। তার কিছু বলার আছে কিনা তা জিজ্ঞাসা করেন আদালত। রিগ্যান আদালতকে জানান, তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা সত্য নয়।

গত ২৫ জুলাই ভোরে কল্যাণপুরের ৫ নম্বর রোডের ‘জাহাজ বাড়ি’তে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চালানো অপারেশন স্টোর্ম-২৬ এ আহত অবস্থায় আটক হয় রিগ্যান। ওই অভিযানে সন্দেহভাজন ৯ জঙ্গি নিহত হয়। এরপর কল্যাণপুরের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় দুই দফায় তার ১৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এরপর রিগ্যান ওই ঘটনায় দায়ের করা মামলায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

জবানবন্দিতে কল্যাণপুরের জঙ্গিদের সঙ্গে গুলশান হামলার সম্পৃক্ততা পায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এরপর রিগ্যানকে গুলশান হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তার দেখায় পুলিশ।

এদিকে ওই মামলায় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষক হাসনাত রেজা করিম রিমান্ড শেষে কারাগারে রয়েছেন।

একই ঘটনায় ৫৪ ধারায় আটক গ্রেপ্তার টরোন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র তাহমিদ হাসিব খান দুই দফায় ১৪ দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে রয়েছেন।

ওই ঘটনার মামলায় ১১ জন সাক্ষী আদালতে সাক্ষী হিসেবে জবানবন্দি দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, গত ১ জুলাই রাত গুলশানের হলি আর্টিসান রেস্তোরাঁয় অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা হামলা করে এবং দেশি-বিদেশি নাগরিকদের জিম্মি করে। এ সময় অভিযান চালাতে গিয়ে জঙ্গিদের গ্রেনেড হামলায় গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সহকারী কমিশনার রবিউল ইসলাম ও বনানী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সালাউদ্দিন খান নিহত হন। এ ছাড়া তিন বাংলাদেশিসহ ২০ জন জিম্মিকে হত্যা করে জঙ্গিরা।

পরদিন সকালে যৌথ বাহিনী কমান্ডো অভিযান চালায়। এতে ৫ হামলাকারী নিহত এবং একজন গ্রেপ্তার হয়। জীবিত উদ্ধার করা হয় ১৩ জিম্মিকে।

রেস্টুরেন্টে হামলার পর গত ৪ জুলাই রাতে গুলশান থানার এসআই রিপন কুমার দাস বাদী হয়ে সন্ত্রাস দমন আইনে গুলশান থানায় একটি মামলা করেন। বর্তমানে মামলাটির তদন্ত করছে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট।

আপনার মতামত জানানঃ