ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   রাস্তার হাট

রাস্তার হাট

September 7, 2016 - 1:06 PM

ঢাকা : রাজধানীতে কোরবানির পশুর হাট নির্দিষ্ট স্থানের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখার জন্য দুই সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ইজারাদারদের নির্দেশ দেওয়া হলেও হাজারীবাগে তা মানা হচ্ছে না।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের হাজারীবাগ মাঠে পশুর হাট বসানোর অনুমতি দিলেও বুধবার সরেজমিন সেখানে ঘুরে দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। লেদার টেকনোলজি কলেজের পাশের রাস্তা (বটতলা) দখল করে বসানো হয়েছে পশুর হাট। প্রায় এক কিলোমিটারেরও বেশি রাস্তা জুড়ে রয়েছে এ হাট। হাজারীবাগ বাজার, প্রধান সড়ক- সব জায়গার পশুর হাট বসানো হয়েছে। অথচ হাটের জন্য নির্ধারিত মাঠ একেবারে ফাঁকা।

এ ছাড়া বিডিয়ার ৫নং গেটের পাশে হাট বসানো হয়েছে। পশুর হাটের কারণে সেখানে যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে এবং ছোট এ রাস্তাটিতে তৈরি হচ্ছে দীর্ঘ যানজট।

মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে ইজারাদার মনিরুল হক বাবুর ভাই পারভেজ (তিনিও এ হাটের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট) জানান, তার ঠিক জানা নেই- কোন জায়গায় হাট বসানোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এটা নকশা দেখে বলতে পারবেন।

হাটের দায়িত্বে থাকা ইজারাদারের সহযোগী এস এম সানোয়ার হোসেন বলেন, ‘আমাদের এই রাস্তাতেই অনুমতি দেওয়া হয়েছে। লেদার কলেজের পাশের রাস্তা ধরেই হাট শুরু।’

এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, হাজারীবাগ মাঠে হাট বসানোর স্থান নির্ধারণ করে দেওয়া হলেও বাস্তায় হাট বসানোর কারণে চলাচলে খুব সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। এই রাস্তা স্কুলের বাচ্চারাসহ সবাই চলাচলের জন্য ব্যবহার করে। এখন রাস্তায় গরুর মলত্যাগের কারণে একটা নোংরা পরিবেশেরও সৃষ্টি হয়েছে। চলাচল করা যাচ্ছে না। এর বিরুদ্ধে প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

এ বিষয়ে জানতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন সম্পত্তি বিভাগের সহকারী কর্মকর্তা শামসুল আলমের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ‘আমি এ বিষয়টি ঠিক জানি না। আর ম্যাপ দেখে বলতে পারব ঠিক কোন মাঠে হাটের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আপনি একটু পরে আমায় ফোন করেন, আমি আপনাকে জানাচ্ছি।’ এর পরে মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আরেক কর্মকর্তা জানান, তারা আগেই নির্দেশ দিয়েছেন যে, রাস্তা দখল করে অবৈধভাবে হাট বসতে দেওয়া হবে না। পুলিশ প্রশাসনকে এ বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া আছে। তারাই ব্যবস্থা নেবে।

‘আর এ সব অস্থায়ী হাট কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তির ছত্রছায়ায় গড়ে ওঠার কারণে আমরা অনেক সময় ব্যবস্থা নিতে চাইলেও নিতে পারি না।’

হাট গোছানোর বিষয়ে হাজারীবাগ পশুর হাটের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, হাট গোছানোর কাজ শেষ এবং হাটে পর্যাপ্ত পরিমাণে পশু আসবে বলে তারা আশা করছে। দু-এক দিন পরে হাট জমে উঠবে। তবে এখন কিছু গরু বিক্রি হচ্ছে।

মূলত কুষ্টিয়া, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, রাজশাহী, নাটোর, রংপুর ও রাজবাড়ী থেকে ব্যাপারীরা এই হাটে গরু নিয়ে আসে। গত কয়েক দিন বেচা বিক্রি না হলেও মঙ্গলবার থেকে কিছু সংখ্যক বিক্রি শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকে পুরোপুরি বিক্রি শুরু হবে বলে বিক্রেতারা আশা করছেন।

এ সময় কথা হয় কুষ্টিয়া থেকে আসা গরুর ব্যাপারী হায়দার আলীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ১৫টি গরু দুই দিন আগে নিয়ে হাজারীবাগে এসেছেন। কুষ্টিয়া থেকে তার আরো প্রায় ২০টি গরু আগামীকাল আসবে। ১৫টির মধ্যে একটি গরু হাটে ঢোকার আগেই ৪০ হাজার টাকায় বিক্রি করতে পারলেও হাটে এখনো পর্যন্ত একটিও বিক্রি হয়নি। তিনি আশা করছেন এবার বিক্রি ভালো হবে।

তবে শেষ সময়ে যদি বিদেশি গরু হাট দখল করে তবে দেশি গরুর ব্যাপারীরা লোকসানে পড়বে- এমন আশঙ্কা করছেন অধিকাংশ ব্যাপারী।

হাজারীবাগ হাটে ছোট আকারের গরু ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা, মাঝারি ৪৫ থেকে ৬০ হাজার টাকা এবং মোটামুটি বড় আকারের গরু ৭০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত হাঁকা হচ্ছে। হাটে আকারভেদে ছাগল পাওয়া যাচ্ছে ৬ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকার মধ্যে।

এবার রাজধানীতে ২৪টি স্থানে কোরবানির পশুর হাট বসছে এবং সিটি করপোরেশনের নির্দেশনা অনুযায়ী হাটগুলোতে ঈদের তিন দিন আগে বেচাকেনা শুরুর কথা। ঈদ একদিন পিছিয়ে যাওয়ার কারণে একদিন সময় বেড়েছে। আগামী ৯ সেপ্টম্বর থেকে হাটে বেচাকেনা শুরু হবে।

আপনার মতামত জানানঃ