ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   রাত পোহালেই ঈদুল আজহা

রাত পোহালেই ঈদুল আজহা

September 12, 2016 - 6:25 AM

ঢাকা : রাত পোহালেই ঈদুল আজহা । প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ করতে গত বৃহস্পতিবার থেকে রাজধানী ছাড়ছে ঘরমুখো মানুষ। সোমবার সকালে রাজধানীর গুলিস্তান-ফুলবাড়িয়ায় দেখা যায় ঘরমুখো মানুষের স্বাভাবিক ভিড়।

অধিকাংশ যাত্রীর অভিযোগ, বাসের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এ ছাড়া ইচ্ছেমতো ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।

ফুলবাড়িয়া বাস টার্মিনাল ঘুরে দেখা গেছে, টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস, বিআরটিসি, ইলিশ, সোনার তরী, স্বাধীন, গাংচিল, আরাম, আজমীরিসহ বিভিন্ন পরিবহন ছেড়ে যাচ্ছে।

শিডিউল বিপর্যয়, যানজটসহ পদে পদে বিভিন্ন বাধা উপেক্ষা করে সবাই ছুটছেন প্রিয়জনের কাছে। বিভিন্ন রুটের কিছু লোকাল বাসযোগ হয়েছে গুলিস্তান-মাওয়া ও গুলিস্তান-পাটুরিয়া রুটে। এ পরিবহনগুলো ইচ্ছেমতো ভাড়া আদায় করছে বলে অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা।

কেরানীগঞ্জের বাসিন্দা ফাইজুল হক বলেন, ‘বাবা-মা বাড়িতে থাকেন। তাই ঈদ তাদের সঙ্গে করতে হবে। খুব ভোরে ফুলবাড়িয়া বাস টার্মিনালে এসেছি। সকাল ৬টায় টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস গোপালগঞ্জের উদ্দেশে ছাড়ার কথা থাকলেও গাড়ি এসেছে সকাল সাড়ে ১০টায়।’

তিনি বলেন, ‘প্রচণ্ড গরম। পরিবার নিয়ে অনেক পথ যেতে হবে। রাস্তায় যানজট। আবার ফেরি পার হতে হবে। বাড়ি যেতে অনেক কষ্ট পেতে হবে।’

তার মতো ঘরমুখো অনেক মানুষকে ফুলবাড়িয়া বাস টার্মিনালে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। তাদের অভিযোগ অধিকাংশ গাড়িই নির্দিষ্ট সময়ে ছেড়ে যাচ্ছে না।

কথা হয় রবিউল হক নামে এক যাত্রীর সঙ্গে। তার বাড়ি ফরিদপুর জেলায়। তিনি বলেন, ‘বাবা-মা গ্রামে থাকেন। তাই তাদের সঙ্গে ঈদ করতে বাড়ি যাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘গুলিস্তান থেকে পাটুরিয়া ঘাটের ভাড়া ১১০ টাকা হলেও সেখানে ২৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। আর বাসের ছাদে ২০০ টাকা ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। যাত্রীদের কাছ থেকে বেশি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।’

গুলিস্তান থেকে নাজমুল সাকিব তাকওয়া নামে এক যাত্রী বলেন, ‘বিক্রমপুর, শ্রীনগর, ইলিশ, ডিএম, আপনসহ এ রুটের সব বাসে গুলিস্তান থেকে মাওয়ার ভাড়া ৭০ টাকা। কিন্তু সেখানে ২২০ টাকা ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। আর বাসের ছাদে ১৬০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। ঈদের কারণে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।’ নাজমুল সাকিব তাকওয়ার বাড়ি মাদারীপুর জেলায়।

গুলিস্তানের ডিএম পরিবহনের টিকিট মাস্টার মো. আবুল কাশেম বলেন, ‘মাওয়া ঘাটে যাত্রী নামিয়ে খালি গাড়ি নিয়ে ঢাকায় আসতে হয়। এ ছাড়া রাস্তায় প্রচুর যানজট রয়েছে। এ কারণে অতিরিক্ত ভাড়া নিতে হচ্ছে। তারপর রাস্তায় কয়েক স্তরে ঈদ বকশিশ দিতে হয়। এ টাকাও যাত্রীদের কাছ থেকে নিয়ে দিতে হবে। আমরা তো বাড়ি থেকে এনে টাকা দেব না। তাই ঈদের সময় বেশি ভাড়া নেওয়া হচ্ছে।’

আপনার মতামত জানানঃ