ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   রাণীনগরে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে রোপা-আমন আবাদ

রাণীনগরে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে রোপা-আমন আবাদ

October 9, 2016 - 3:31 PM

রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলায় ৮টি ইউনিয়নে বিস্তীর্ণ মাঠ জুড়ে এখন রোপা-আমন ধানের শীষের সবুজ রংঙের বর্ণিল ছোঁটার সমারহ। মাঠে মাঠে যতদূর চোখ যায় শুধু সবুজ আর সবুজ। এ সবুজ রং বলে দিচ্ছে গ্রামবাংলার কৃষকের মাথার ঘাম পায়ে ফেলা রোপা-আমন ধান চাষের দৃশ্য। চলতি মৌসুমে রোপা-আমন ধানের ভাল ফলনের বুকভরা আশা করছে কৃষকরা। কৃষি বিভাগের পরামর্শে আধুনিক পদ্ধতিতে আগাম ধান চাষ করায় কোন প্রকার প্রাকৃতিক দূযোগ সহ এখন পযর্ন্ত বন্যার আশংকা না থাকায় রাণীনগর উপজেলায় রোপা-আমন ধানের চাষ লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে আবাদ হয়েছে। গত ইরি ধানের মৌসুমে কাটা মাড়াই এর সময়ে এই এলাকার কৃষকরা ধানের ভাল মূল্য না পেলেও বর্তমানে ধানের মূল্য বেশি থাকায় আমন ধানের যতেœ বেশি করে মনোযোগ দিচ্ছে রাণীনগরের কৃষক। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে আগাম জাতের রোপা-আমন ধান পাকার সম্ভবনা দেখে ধানের ক্ষেতে কৃষকের ভষিতের স্বপ্ন দোল খাচ্ছে। অন্য দিকে কিছু এলাকায় ধান গাছে ফড়িং সহ বিভিন্ন পোকার আক্রমন ও নানা রোগবালাই এর আশংকায় দুশ্চিন্তাও ভর করছে। তবে স্থাণীয় কৃষি বিভাগ ধানের বাদামী গাছ ফড়িং ও অন্যান্য সকল প্রকার রোগবালাই দমনে ব্যাপক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। এক্ষেত্রে নিবিড় পরির্চচা ও পোকার আক্রমন থেকে চলতি মৌসুমের রোপা-আমন ধান ক্ষেত রক্ষায় কৃষকদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে সরাসরি মাঠ পর্যায়ে চাষিদের সাথে মতবিনিময় সভা, উঠান বৈঠক, লিফলেট বিতরণ ও আলোক ফাঁদ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এবারে উপজেলায় আমন ধানের অনূকূল আবহাওয়া ভাল থাকায় গত বারে চেয়ে প্রায় ৫শ’ হেক্টর জমিতে রোপা-আমন ধান চাষ লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি হয়েছে। শেষ মূহুর্তে আবহাওয়া ঠিকঠাক থাকলে আমন ধানের বাম্পার ফলনের আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
রাণীনগর কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ১৬ হাজার ২শ’ হেক্টর জমিতে রোপা-আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও এই এলাকায় বন্যা না হওয়ায় ১৬ হাজার ৭শ’ হেক্টর জমিতে রোপা-আমন ধানের চাষ করা হয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় প্রায় ৫শ’ হেক্টর জমিতে ধান চাষ বেশি হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় সঠিক সময়ে চারা লাগানো নিবিড় পরিচর্যা, কৃষি অফিসের ব্যবস্থাপনায় পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় রাসায়নিক ও কীটনাশক ব্যবহারে কৃষকদের নিরুৎসাহিত করছেন মাঠ পর্যায়ে থাকা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা আইপিএম (বালাই সমন্বিত শষ্য ব্যবস্থাপনা) ক্লাবের মাধ্যমে আলোক ফাঁদে এবং আমন ক্ষেতে কুি ও গাছের ডাল পুঁতে পোকা মাঁকড় নিধনে কৃষকদের উৎসাহিত করায় রোগবালাই নেই বললেই চলে। মাঝে মধ্যেই ঝিরিঝিরি বৃষ্টিপাতের কারণে সেচ দিতে হচ্ছে না তাই সকল প্রকার উপকরণের খরচ কম হওয়ায় এলাকার চাষিরা আমন ধান চাষে ভাল ফলন সহ অধিক লাভের আশা করছেন। তবে কৃষকদের দাবি রোপা-আমন ধান সরকারি ক্রয় কেন্দ্রে প্রান্তিক চাষিদের কাছ থেকে যেন কেনা হয়।
উপজেলার ভবানিপুর গ্রামের কৃষক মো: জলিল জানান, চলতি আমন মৌসুমে ১৩ বিঘা জমিতে ধান রোপণ করেছি। শুরু থেকেই দফায় দফায় বৃষ্টি হলেও বন্যা না হওয়ার কারণে আমন ধানের আবাদ ভাল হয়েছে। এই এলাকায় গত ২/৩ বছর আত্রাই উপজেলার মিরাপুর নামক স্থানে প্রবল বন্যার তোরে আত্রাই-রাণীনগর সড়ক বার বার ভেঙ্গে যাওয়ার কারণে রোপণকৃত প্রায় অধিকাংশ ধান তলিয়ে যেতো। ফলে এই এলাকায় অনেক জমি পড়ে থাকতো। এবারে ক্ষতিগ্রস্ত সড়কে মেরামত কাজ ভাল হওয়ায় বন্যার পানিতে বাঁধের ক্ষতি না হওয়ায় আশা করছি এবার ভাল ধান পাব।
উপজেলা কৃষি আফিসার কৃষিবিদ এসএম গোলাম সারওয়ার জানান, চলতি মৌসুমে বন্যার ধকল না থাকায় রোপা-আমন ধান লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি হয়েছে। ভাল ফলনের সম্ভাবনার মূল কারণ হিসেবে তিনি বলেন, কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কৃষকদেরকে সঠিক সময়ে চারা লাগানো পরামর্শ, নিবিড় পর্যাবেক্ষন, সার ও কীটনাশক প্রয়োগ সহ আধুনিক পদ্ধিতিতে ধান চাষ করায় শেষ পযর্ন্ত আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে রাণীনগর উপজেলায় রোপা-আমন ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভবনা রয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ