ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতি   »   রাজস্ব লক্ষ্য অর্জনে এনবিআরে চেয়ারম্যানের ৮ নির্দেশনা

রাজস্ব লক্ষ্য অর্জনে এনবিআরে চেয়ারম্যানের ৮ নির্দেশনা

September 1, 2016 - 3:53 PM

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা অর্জনসহ করদাতাবান্ধব পরিবেশ তৈরিতে আটটি নির্দেশনা দিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় এনবিআরের সম্মেলন কক্ষে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের কর্মকৌশল ও জুলাই মাসে রাজস্ব আদায়ের অগ্রগতি বিষয়ক মাসিক রাজস্ব সম্মেলনে তিনি এসব নির্দেশনা দেন।

সভাপতির বক্তব্যে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ২০১৬-১৭ অর্থবছরের ২ লাখ ৩ হাজার ১৫২ কোটি টাকার মধ্যে আয়কর থেকে ৭৬ হাজার ৩৬৮ কোটি টাকা আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। এজন্য স্ব স্ব অবস্থান থেকে কাঙ্ক্ষিত রাজস্ব আহরণের জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। বিশেষ করে, করদাতাবান্ধব পরিবেশ সৃজনে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি পদ্ধতির অধিকতর ব্যবহারে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

সভায় আয়কর অনুবিভাগের সব পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সেবাধর্মী মনোভাব ও করদাতাবান্ধব পরিবেশ সৃজনে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি পদ্ধতির অধিকতর ব্যবহারে কার্যকর পদক্ষেপসহ বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ দিকনির্দেশনা দেন।

এসব নির্দেশনা হলো-
মাঠ পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট সব কমিশনারের নিজ নিজ দপ্তরের স্ট্র্যাটেজিক অ্যাকশন প্ল্যান বাস্তবায়নের লক্ষ্যে অগ্রগতি প্রতিবেদনসহ রাজস্ব আদায়ের অগ্রগতির ওপর একটি পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনা।
বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি কার্যক্রমকে অধিকতর কার্যকর করার জন্য বছরের শুরুতেই প্রতিটি কমিশনারেটের এডিআরের মাধ্যমে সম্ভাব্য নিষ্পত্তিযোগ্য মামলাগুলোর একটি তালিকা করা।
আয়কর, শুল্ক ও মূসক অনুবিভাগের মাঠ পর্যায়ের দপ্তরগুলোর কর্মকর্তাদের এডিআর কার্যক্রমে উদ্বুদ্ধকরণ ও আলোচনা সভা করা।

এনবিআরের আওতাধীন বিভিন্ন কর অঞ্চল, কাস্টম হাউসগুলোর অনিষ্পন্ন মামলাসমূহ ডিজিটাল পদ্ধতিতে দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য করদাতা ও রাজস্ব বিভাগের কর্মকর্তাদের মাঝে বন্ধুত্বপূর্ণ ও পারস্পরিক সহযোগিতামূলক সুসম্পর্কের মাধ্যমে এডিআর পদ্ধতিকে কার্যকর করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

প্রধানমন্ত্রীর সদয় নির্দেশনা অনুসারে জনগণের ওপর করের বোঝা না বাড়িয়ে করের আওতা সম্প্রসারণের জন্য অধিকতর উদ্যোগী হওয়া।

রাজস্ব বোর্ডের মাঠ পর্যায়ের বিভিন্ন কার্যালয়, দপ্তর ও সংস্থা কর্তৃক প্রণীত কৌশলগত পরিকল্পনা বাস্তবায়নের ওপর সর্বোচ্চ গুরুত্ব আরোপ করা।

আধুনিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে অনলাইনে কর প্রদানে জনগণকে উদ্বুদ্ধ ও উৎসাহিত করা এবং জনগণকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে কর প্রদানে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ও কার্যকর প্রচারণার ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

আপনার মতামত জানানঃ