ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   রাজশাহীতে পদ্মার পানি ১৯ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে

রাজশাহীতে পদ্মার পানি ১৯ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে

August 26, 2016 - 2:18 PM

রাজশাহীতে পদ্মার পানি বিপৎসীমার মাত্র ১৯ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। রাজশাহীতে পদ্মার পানির বিপৎসীমা ১৮ দশমিক ৫০ মিটার।

 

শুক্রবার সন্ধ্যায় পদ্মায় পানির উচ্চতা ছিল ১৮ দশমিক ৩১ মিটার। এভাবে পানি বাড়তে থাকলে আগামী সোমবার রাজশাহীতে পদ্মার পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করবে বলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে। ওই দিন পানির উচ্চতা দাঁড়াবে ১৮ দশমিক ৫৪ মিটার।

 

পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, ফারাক্কা বাঁধের সবগুলো গেট খুলে দেওয়ায় পদ্মায় গত এক সপ্তাহ ধরে পানি বাড়ছে। পানি বৃদ্ধির এ হার আরো বাড়বে। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, আশঙ্কার কিছু নেই। পানি বাড়লেও বাঁধকে প্লাবিত করতে পারবে না। কারণ, বাঁধের সর্বোচ্চ উচ্চতা ২১ দশমিক ৫০ মিটার। এর আগে গত ২০১৩ সালে ৭ সেপ্টেম্বর পদ্মার পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করেছিল। ওই দিন পানির উচ্চতা ছিল ১৮ দশমিক ৭০ মিটার। আর বাঁধ যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে বিষয়ে নজর রাখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

 

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোখলেসুর রহমান জানান, এ সময় প্রতিবছর ফারাক্কা বাঁধ খুলে দেওয়া থাকে। ফারাক্কা বাঁধের পানি ধরে রাখার সক্ষমতা ৫০ হাজার কিউসেক। এর অতিরিক্ত পানি ধরে রাখতে পারে না। এ বছর গঙ্গা বেসিনের বিহার, উড়িষ্যা ও উত্তর প্রদেশে প্রবল বর্ষণ হওয়ায় সেই বর্ষণের পানি ফারাক্কা বাঁধ দিয়ে এসে পদ্মার পানির উচ্চতা বাড়িয়ে দিচ্ছে। এটা আরো বাড়বে। ভয়ের কোনো কারণ নেই। যাতে বাঁধ কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

 

এদিকে পদ্মায় অব্যাহতভাবে পানি বেড়ে যাওয়ায় রাজশাহীর গোদাগাড়ী, পবা, চারঘাট ও বাঘার পদ্মাপাড়ের মানুষ দুর্ভোগে পড়েছেন। এসব এলাকায় পানি ঢুকে যাওয়ায় ইতিমধ্যে এসব এলাকার শত শত পরিবার বাড়িঘর ছেড়ে নির্দিষ্ট আশ্রয়কেন্দ্রে ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নিয়েছেন। এসব পরিবারের প্রধান আয়ের উৎস গবাদিপশু। তারা গবাদিপশু নিয়ে পড়েছেন চরম বেকায়দায়।

 

নগরীর পদ্মা নদী সংলগ্ন সিমলা পার্ক, লালন শাহ পার্ক, পদ্মা গার্ডেন, বড়কুঠি, কুমারপাড়া, আলুপট্টি এলাকায় বাঁধের উচ্চতার সমান পানির উচ্চতা হয়ে গেছে। আর কয়েক সেন্টিমিটার পানি বাড়লে পানি শহররক্ষা বাঁধ অতিক্রম করবে। এ ছাড়া নগরীর শ্রীরামপুর এলাকায় পুলিশ লাইন সংলগ্ন বাঁধ গত বছর ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় এবং তা সময়মতো সংস্কার করতে না পারায় তা নিয়েও আশঙ্কা দেখা দিয়েছে নগরীর মানুষদের মধ্যে। ওই বাঁধের বেশ কয়েক জায়গায় লাল পতাকা দিয়ে বিপদসংকেত দেখানো হচ্ছে।

 

পবার হরিয়ান ইউনিয়নের মধ্যচরে নতুনভাবে বসতি স্থাপন করা ২৫০টি পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। পানি উঠেছে চর খিদিরপুর এলাকার খানপুরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও বাড়িঘরে। ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মফিদুল ইসলাম বাচ্চু জানান, মধ্যচরের ২৫০টি পরিবার পানিবন্দি হয়ে অত্যন্ত দুর্ভোগের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। তাদের ৩ হাজার গবাদিপশু নিয়ে পড়েছেন চরম বেকায়দায়। গবাদিপশুর খাদ্যসংকট দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে চরের অনেক পরিবার গবাদিপশু নিয়ে ইউপি মাঠে, কাজলা রেডিও সেন্টার ও সাইন্স ল্যাবরেটরি মাঠে আশ্রয় নিয়েছেন। এই দুর্গত মানুষগুলোকে ত্রাণ সহায়তা দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

 

এদিকে রাজশাহী নগরীর পার্শ্ববর্তী পবার হরিপুর ইউনিয়নের বশরী, হাড়পুর, নবগঙ্গা, সোনাইকান্দি, বেড়পাড়া ও খোলাবোনা এলাকায় পদ্মার পানি ঢুকে পড়েছে। ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বজলে রিজবী আল হাসান মুঞ্জিল জানান, ইতিমধ্যে নবগঙ্গা এলাকার প্রায় ১২টি বাড়ি ভেঙে গেছে। পানিবন্দি রয়েছে প্রায় ২৬০টি পরিবার। ডুবে গেছে প্রায় ১০০ বিঘা সবজি খেত। এ ছাড়া পানিবন্দি অবস্থায় বেকায়দায় পড়েছে চর মাঝাড়দিয়াড় এলাকার লোকজন।

 

এদিকে পদ্মার চর ডুবে যাওয়ায় চরাঞ্চলে বসবাসরত শেয়ালের ‘হুক্কা হুয়া’ ডাক সারাদিন শুনতে পেয়েছেন বাঁধের পাশে অবস্থিত বাসিন্দারা। তাদেরই একজন নগরীর আলুপট্টি এলাকার বাসিন্দা জহির উদ্দিন। তিনি বলেন, শেয়ালগুলোর বাঁচার আর কোনো সম্ভাবনা নাই। কারণ পানিতে শেয়াল কতক্ষণ টিকে থাকতে পারে? আর পানিতে স্রোত থাকায় শেয়ালগুলো পদ্মা পার হতে পারছে না।

 

শ্রীরামপুর এলাকার বাসিন্দা রাকিবুল হাসান বলেন, যেভাবে পদ্মার পানি বাড়ছে তাতে মনে হচ্ছে, বাঁধ ডুবে শহর প্লাবিত হবে। পানি বাঁধ ছুঁই ছুঁই করছে। ইতিমধ্যে আমাদের মহল্লার ভেতর পদ্মার পানি ঢুকে গেছে। এভাবে কয়েকদিন পানি বাড়লে আমি নিশ্চিত বাঁধ ডুবে যাবে।

 

আপনার মতামত জানানঃ