ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্বদ্যিালয়ে দিবসটি সবচেয়ে বেশি উপেক্ষিত

রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্বদ্যিালয়ে দিবসটি সবচেয়ে বেশি উপেক্ষিত

December 9, 2016 - 11:55 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর : বেগম রোকেয়ার নামে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্বদ্যিালয়ে দিবসটি সবচেয়ে বেশি উপেক্ষিত হয়েছে।

রোকেয়া দিবসের অনুষ্ঠান দায়সারাভাবে পালিত হয়েছে। বিশেষ অতিথিরা অনুপস্থিত থাকায় বক্তব্য দেওয়ার মত ব্যক্তি না থাকায় বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পরে আয়োজক কমিটি ।

ক্যাম্পাসে নেই কোনো বেগম রোকেয়ার স্থায়ী প্রতিকৃতি।  নামমাত্র রোকেয়া দিবস উদযাপন আয়োজনের কারণে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। কারোরই স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহণ ছিল না এই কর্মসূচিতে। দিবসটি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কর্মকাণ্ডে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

জানা গেছে, ৯ ডিসেম্বর রোকেয়া দিবস পালনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কোনো কর্মসূচি হাতে না নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগকে দায়িত্ব দিয়ে দায়সারা মনোভাব প্রকাশ করে। দিবসটি পালনে শুধুমাত্র র‌্যালি, রোকেয়ার অস্থায়ী প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও  ক্যাফেটেরিয়া ভবনে ঘরোয়া আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

কিন্তু দিবসটি উদযাপনের কর্মসূচি বিষয়ে কোনো প্রচারণা না থাকায় অনেকটা ভেস্তে গেছে সেই কর্মসূচি। গুটিকয়েক মানুষ আর হাতে গোনা কয়েকটি বিভাগ নিয়ে র‌্যালি শেষে আলোচনা সভায় সর্বোচ্চ ৬০ জনের মত উপস্থিতি প্রশ্নবিদ্ধ করেছে রোকেয়া দিবস উদযাপনকে।

এ ছাড়াও আলোচনা সভার ব্যানারে উল্লেখিত বিশেষ অতিথিরা অনুপস্থিত থাকায় বক্তব্য দেওয়ার মত কাউকে পাওয়া যায়নি।এতে করে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পরে আয়োজক কমিটি। ফলে অনেকটা জোর করে উপস্থিত কয়েকজনকে বক্তব্য দিতে বাধ্য করা হয়।

শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন, অ্যাটেন্ডেনসের (উপস্থিতি) ভয় দেখিয়ে শিক্ষার্থীদের অনুষ্ঠানে থাকতে বাধ্য করা হয় এবং যারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না তাদেরকে নম্বর কম দেওয়ার হুমকি দেওয়া  হয়।

অন্যদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে রোকেয়ার কোনো স্থায়ী প্রতিকৃতি না থাকায় স্বাধীনতা স্মারকে অস্থায়ী প্রতিকৃতি বসিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। তবে দুপুর ১২টায় সরেজমিনে গিয়ে সেখানে কোনো প্রতিকৃতি দেখা যায়নি। বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১টি বিভাগের মধ্যে মাত্র একটি বিভাগের পুষ্পস্তবক দেখা গেছে। বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক ছাত্রসংগঠনগুলোর  অংশগ্রহণ তেমন লক্ষ্য করা যায়নি। এমনকি বাইরে থেকে বিশিষ্ট কোনো অতিথিও আমন্ত্রিত ছিলেন না।

অনুষ্ঠান চলাকালীন সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কমপক্ষে পাঁচটি বিভাগে ক্লাস-পরীক্ষা-সাক্ষাৎকার নিতে দেখা যায়। অনুষ্ঠানে উপস্থিতি কম থাকায় একজনকেই চার-পাঁচটি খাবারের প্যাকেট নিয়ে যেতে দেখা গেছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. আবু সালেহ মো. তুহিন ওয়াদুদ বলেন,  দিবসটি উপলক্ষে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে দেশের সবচেয়ে বড় আয়োজন হওয়ার কথা। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তেমন আয়োজন করলে মহিয়সী নারীর প্রতি শ্রদ্ধার পূর্ণতা পেত।

বেরোবির তথ্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী কর্তৃপক্ষ উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগকে দায়িত্ব দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, শুক্রবার বন্ধের দিন হওয়ায় উপস্থিতি কিছুটা কম হয়েছে।

এ ব্যাপারে রোকেয়া দিবস-২০১৬ উদযাপন কমিটির  আহ্বায়ক মো. হুমায়ূন কবীর জানান, দিবসটি ছুটির দিনে হওয়ায় এমন হয়েছে। তবে আগামী ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে আয়োজনে রোকেয়া দিবসটি ভালোভাবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত রয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ