ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   যৌনপল্লীর শিশুদের সমাজের অংশ হিসেবে গড়ে তুলতে চায় উত্তরণ ফাউন্ডেশন

যৌনপল্লীর শিশুদের সমাজের অংশ হিসেবে গড়ে তুলতে চায় উত্তরণ ফাউন্ডেশন

আগস্ট ১২, ২০২০ - ৮:৪৩ অপরাহ্ণ
উত্তরণ ফাউন্ডেশন

যৌনপল্লীর শিশুদের সমাজের অংশ হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করছে উত্তরণ ফাউন্ডেশন । এবার যৌন কর্মীর সন্তানদের মূল স্রোত ধারায় ফিরিয়ে আনাতে কাজ শুরু করছে উত্তরণ ফাউন্ডেশন । যার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি মোঃ হাবিবুর রহমান পিপিএম (বার) বিপিএম (বার)।

দেশের সবচেয়ে বড় যৌনপল্লী রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া; যা এখন দৌলতদিয়া পূর্ব পাড়া নামে পরিচিত। এখানে বসবাস করে রক্তমাংসে গড়া একদল মানুষ যেখানে রয়েছে ১ হাজার ৩ শত যৌনকর্মী ও তাদের পরিবারের ৩ শতাধিক শিশু। ছোট বেলা থেকে মায়ের পেশা দেখে বড় হয় তারা । মায়ের পেশা দেখে মা ও সমাজের প্রতি ঘৃণা তৈরি হয় তাদের। এক পর্যায়ে অপকর্মে জরিয়ে পড়ে এসব শিশুরা।

রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ায় যৌনকর্মী, বেদে, হিজড়াসহ পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে উত্তরণ ফাউন্ডেশন ও নিজের পরিকল্পনা নিয়ে ডিআইজি মোঃ হাবিবুর রহমান বলেন, সমাজের প্রতিটি পেশারই স্বাধীনতা আছে। দৌলতদিয়া পূর্ব পাড়ার বাসিন্দারা যৌনকর্ম করে শরীর খাটিয়ে জীবন ও জীবিকার জন্য অর্থ আয় করে। সেই অর্থে একদল সুযোগ সন্ধানী এতদিন ভাগ বসিয়ে আসছিলো। ওদের প্রতি নির্যাতন করে ভয়ভীতি দেখিয়ে পদদলিত করে রেখেছিলো। কেউ যাতে তাদের আয়ের অর্থ ছিনিয়ে না নিতে পারে সে জন্য পুলিশ নজর রাখছে।

করোনা-কালীন এই সময়ে দৌলতদিয়া যৌনপল্লী পূর্বপাড়ার বাসিন্দারা লকডাউন মেনে চলেছে। তাদের সাহায্য সহযোগিতা সম্পর্কে ডিআইজি বলেন, করোনা সময়ে সমাজের দরিদ্র মানুষেরা বিভিন্নভাবে বিভিন্ন জায়গা থেকে সাহায্য সহযোগিতা পেয়েছে। ধার দেনা করে হলেও চলতে পেরেছে। কিন্তু ওরা সমাজ থেকে আলাদা ওদের সাথে কারো ব্যক্তিগত সম্পর্ক ও সামাজিক সম্পর্ক নাই। যে কারণে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে উত্তরণ ফাউন্ডেশন। গত পাঁচ মাসে ছয়বার খাদ্য সহায়তা, ঈদুল ফিতরে খাদ্য সামগ্রী, কাপড় ও ঈদুল আযহায় তাদের সকলের এক সাথে মাংস খাওয়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছে উত্তরণ ফাউন্ডেশন।

যৌনপল্লীর শিশু ও তাদের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে ডিআইজি হাবিব বলেন, যৌনপল্লীর শিশুদের মূল স্রোত ধারায় ফিরিয়ে আনা ও তাদের সমাজের অংশ হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করছে উত্তরণ ফাউন্ডেশন। তিনি বলেন প্রতিটি শিশু বড়দের অনুকরণ করে। মায়ের পেশা দেখা বড় হওয়া এসব শিশুরা মা ও সমাজের প্রতি ঘৃণা করতে শিখে। অবশেষে মেয়ে শিশুরা মায়ের পেশায় ফিরে যায় আর ছেলে শিশুরা পথভ্রষ্ট হয়ে সন্ত্রাসী কার্যকলাপে যুক্ত হয়। আমরা যৌনপল্লীর এসব শিশুদের বাহিরে রেখে মানুষের মতো মানুষ তৈরি করে সমাজের একটা অংশ হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। যাতে মা ও মাতৃভূমি এবং সমাজের প্রতি তাদের সম্মান বাড়ে।

মৃত্যুর পরে যৌনকর্মীর শেষ অধিকার জানাজা সম্পর্কে হাবিবুর রহমান বলেন, অতি পুরাতন এই পেশায় তারা এতটাই অবহেলিত যে মৃত্যুর পরে একটি মানুষ তার জানাজা থেকে বঞ্চিত হয়েছে। মানুষের পাপ পুণ্যের বিচারের মালিক সৃষ্টিকর্তা। একজন লোক ডাকাতি করে, মানুষকে হত্যা করে, এমন কি পতিতা পল্লীতে সারারাত অপকর্ম করে মারা গেলে স্বজনরা তার জানাজা করে কিন্তু পেটের দায়ে যে যৌন কর্ম করে তার জানাযা করা হবে না এটা কেমন কথা? এটা তার সামাজিক ও মানবিক অধিকার আমরা সেই দৃষ্টিকোণ থেকে জানাযা প্রথা চালু করেছি। এটা ধরে রাখার দায়িত্ব সমাজের। এ ব্যাপারে সমাজের সচেতন মানুষগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে। বেদে ও হিজড়াসহ পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জীবনমান সম্পর্কে উত্তরণ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ডিআইজি হাবিবুর রহমান বলেন, পিছিয়ে পড়া অবহেলিত এসব জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে উত্তরণ ফাউন্ডেশন সারাদেশে বেশ কয়েকটি ডেইরি ফার্ম, বিউটি পার্লার, বুটিক হাউজ, মিনি গার্মেন্টস, টেইলার্স স্থাপন করে দিয়েছে।

তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠীকে নিয়ে সরকারের উদ্যোগ সম্পর্কে ডিআইজি বলেন, ২০১৩ সালে রাষ্ট্র তাদেরকে ‘তৃতীয় লিঙ্গ’ হিসেবে মর্যাদা প্রদান করেছে, পাশাপাশি সরকার এই জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে বেশকিছু কার্যক্রমও হাতে নিয়েছেন। কিছুদিন আগে আমরা লক্ষ করেছি যে, তৃতীয় লিঙ্গের সদস্যদেরকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বুকে টেনে নিয়েছেন। সরকারের এই মহতী মনোভাবকে তিনি হিজড়াদের ভাগ্য পরিবর্তনের ইতিবাচক দিক হিসেবে মনে করেন এবং উত্তরণ ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে সরকারের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

Tags:

আপনার মতামত জানানঃ