ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   ‘যুব সম্প্রদায়ই করোনার বাহক হিসেবে কাজ করছে’

‘যুব সম্প্রদায়ই করোনার বাহক হিসেবে কাজ করছে’

আগস্ট ১৮, ২০২০ - ৪:৫৩ অপরাহ্ণ
যুব সম্প্রযুব সম্প্রদায়ই করোনার বাহক দায়ই করোনার বাহক

বর্তমানে যুব সম্প্রদায়ই করোনা ভাইরাসের বাহক হিসেবে কাজ করছে। অর্থাৎ যাদের বয়স ২০, ৩০ ও ৪০ বছরের কোটায় এবং যারা অসচেতন তাদের মাধ্যমেই মহামারি ভাইরাসটি দ্রুত ছড়াচ্ছে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ডব্লিউএইচও। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই সম্প্রদায়ের মধ্যে কোন উপসর্গ দেখা যায় না বা থাকলেও তা খুবই মৃদু বলেও সতর্ক করেছে সংস্থাটি।

মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের পরিচালক তাকেশি কাসাই বলেন, এই মহামারি তার ধরণ বদলাচ্ছে। যাদের বয়স ২০, ৩০, ৪০ এর কোটায় তাদের অনেকই সজাগ নয় যে তারা আক্রান্ত, এমনকি তাদের মধ্যে থাকা সংক্রামক জীবাণু অনেকের জন্য ঝুঁকির কারণ হতে পারে তাও তারা খেয়ালে রাখে না।

তিনি বলেন, এই প্রবণতা করোনা মহামারিতে অধিক ঝুঁকি তৈরি করেছে। এতে যারা বয়স্ক, যারা দীর্ঘদিন ধরে কোন রোগের চিকিৎসা নিচ্ছেন কিংবা যারা অধিক ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় বসবাস করেন তাদের জন্য এই তথ্য বেশি আশঙ্কার।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত ৬০ লাখ মানুষের তথ্য বিশ্লেষণ করে সংস্থাটি জানিয়েছে, শিশু ও যুবকদের মধ্যে সংক্রমণ হার বাড়ছে।

সংস্থাটি বলছে, ৪ বছরের কম বয়সী শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ হার ০.৩ শতাংশ থেকে বেড়ে ২.২ শতাংশে দাঁড়িয়েছ। ৫ থেকে ১৪ বছরের মধ্যে যাদের বয়স তাদের মধ্যে সংক্রমণের হার ০.৮ থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪.৬ শতাংশে। আর যাদের বয়স ১৫ থেকে ২৪ বছর, তাদের মধ্যে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার হার দাঁড়িয়েছে ১৫ শতাংশে। অথচ প্রথমদিকে এই হার ছিল ৪.৫ শতাংশ।

এর কয়েকটি সম্ভাব্য কারণও চিহ্নিত করেছে সংস্থাটি। বলা হয়েছে, অনেক অঞ্চলেই করোনা প্রতিরোধে নেয়া লকডাউন তুলে দেয়ার পর ওই সব এলাকার যুব সম্প্রদায়ের মধ্যে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ আচরণ দেখা গেছে। অনেক এলাকাতেই লকডাউন তুলে নেয়ার পাশাপাশি স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতে নেয়া অন্যান্য পদক্ষেপগুলোও শিথিল করা হয়েছে। আবার এর সংক্রমণ নিশ্চিতে অনেক অঞ্চলেই পরীক্ষার পরিধিও বাড়ানো হয়েছে এবং কমিউনিটি সংক্রমণও বাড়ছে।

জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য, বিশ্বব্যাপী ২ কোটি ১৮ লাখ মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে আর এর মধ্যে ১ কোটি ৩৮ লাখ এরই মধ্যে সুস্থও হয়েছেন। এই ভাইরাসের কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মৃত্য হয়েছে ৭ লাখ ৭৪ হাজার মানুষের।

আপনার মতামত জানানঃ