ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   যুক্তরাষ্ট্র বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিধর রাষ্ট্র

যুক্তরাষ্ট্র বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিধর রাষ্ট্র

December 10, 2016 - 6:15 AM

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্র বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিধর রাষ্ট্র। সামরিক, অর্থনৈতিক কিংবা কূটনৈতিক সব দিক থেকেই তারা বিশ্বকে নেতৃত্ব দিচ্ছে। তাই যে ব্যক্তি যুক্তরাষ্ট্রকে নেতৃত্ব দেন অর্থাৎ দেশটির প্রেসিডেন্টও একজন ক্ষমতাধর ব্যক্তি।

গত ৮ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে গেল। সেখানে ৩০৬টি ইলেকটোরাল ভোট পেয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। আগামী ২০ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেবেন ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টরা বেশির ভাগ সময়ই খুবই যোগ্যতাসম্পন্ন হন। তাদেরকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়তে দলীয় টিকিট পেতে যেমন কঠিন পথ পাড়ি দিতে হয়, তেমনি প্রার্থিতা পাওয়ার পরও নির্বাচনের আগে বিরোধী দলের প্রার্থীর সঙ্গে বেশ কঠোর প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হতে হয় এবং নিজের যোগ্যতা ভোটারদের সামনে তুলে ধরতে হয়।

বিভিন্ন সময় মার্কিন প্রেসিডেন্টরা তাদের দায়িত্ব পালনকালে বিখ্যাত নানা কথা বলেছেন। কালের যাত্রায় সেসবের অনেকগুলোই অমরত্ব লাভ করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট জর্জ ওয়াশিংটন থেকে শুরু করে বর্তমান ৪৪তম প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা পর্যন্ত প্রেসিডেন্টদের সেসব বিখ্যাত কিছু উক্তি রাইজিংবিডির পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো। ধারাবাহিক দুই পর্বের আজ থাকছে দ্বিতীয় পর্ব।

২১. চেষ্টার অ্যালান আরথার (১৮৮১-৮৫) : ‘আপনারা যদি সাংবাদিক না হতেন, আমি আপনাদের সত্য কথা বলতাম।’

‘মানুষ মারা যাবে, তবে আমাদের স্বাধীন প্রতিষ্ঠানগুলোর বস্ত্র সবসময়ই অক্ষত থাকবে।’

২২. স্টেফেন গ্রোভার ক্লিভল্যান্ড (১৮৮৫-৮৯) : ‘একজন মানুষকে চেনা যায় তার সঙ্গী দেখে এবং যেসব সঙ্গীদের সে ছেড়ে এসেছে তাদের দেখে।’

‘সবকিছুর ওপরে, সত্য বলুন।’

‘জনগণের দায়িত্ব তাদের সরকারকে সমর্থন করা। সরকারের দায়িত্ব না তার জনগণকে সমর্থন করা।’

২৩. বেঞ্জামিন হ্যারিসন (১৮৮৯-৯৩) : ‘সময়ের ওপর আব্রাহাম লিংকের বিশ্বাস ছিল এবং সময় লিংকনের বিশ্বাসের মূল্য দিয়েছে।’

‘আমেরিকা সারা বিশ্বে পুলিশের দায়িত্ব পালনে সৃষ্টিকর্তার কাছ থেকে আজ্ঞাপ্রাপ্ত নয়।’

২৪. স্টেফেন গ্রোভার ক্লিভল্যান্ড (১৮৯৩-৯৭) : তিনি এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের ২২তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনিই একমাত্র মার্কিন প্রেসিডেন্ট যিনি দুটি ভিন্ন সময়ে প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেন।

২৫. উইলিয়াম ম্যাককিনলি (১৮৯৭-১৯০১) : ‘সব মানুষই চায় তার জীবদ্দশায় একটি উদাহরণ স্থাপন করতে এবং মারা যাওয়ার পর ইতিহাসের অনুপ্রেরণা হতে।’

‘পরাজয়ের অন্ধকারতম সময়ে জয় খুবই সন্নিকটে হতে পারে।’

‘যারা সরকারকে পছন্দ করে না তারা অবজ্ঞার সঙ্গে বলে যে, আমরা কেবল মাথা গণনা করি। হ্যাঁ, আমরা মাথা গণনা করি, তবে সঙ্গে মেধাও।’

২৬. থিওডর রুজভেল্ট (১৯০১-০৯) : ‘নিচু স্বরে কথা বলুন এবং সঙ্গে একটি বড় লাঠি নিয়ে চলুন।’

‘একমাত্র সেই ব্যক্তিই কোনো ভুল করে না, যে কোনো কাজ করে না।’

‘প্রেসিডেন্টের কোনো সমালোচনা হবে না অথবা আমরা সব সময় প্রেসিডেন্টের পাশে থাকব, এই ঘোষণা দেওয়া, সঠিক কিংবা ভুল, শুধু দেশপ্রেমবর্জিত ও নতজানুই নয়, আমেরিকার জনগণের কাছে নৈতিকভাবেও ষড়যন্ত্রমূলক।’

২৭. উইলিয়াম হাওয়ার্ড টাফট (১৯০৯-১৩) : ‘রাজনীতি, যখন আমি এর অংশ, আমাকে অসুস্থ করে।’

‘মুক্তির পাশাপাশি সম্পদের অধিকারও আমাদের সংবিধানে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিগত অধিকার হিসেবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।’

২৮. টমাস উড্রো উইলসন (১৯১৩-২১) : ‘কিছু লোক আমাকে আদর্শবাদী বলে। ভাল, এই কারণেই আমি জানি আমি একজন আমেরিকান। কারণ আমেরিকা বিশ্বের একমাত্র আদর্শবাদী রাষ্ট্র।’

‘স্বপ্নের মাধ্যমেই আমরা মহৎ হই। সব বড় মানুষই স্বপ্নবিলাসী।’

‘আপনি যদি শত্রু বানাতে চান, কিছু পরিবর্তন আনার চেষ্টা করুন।’

২৯. ওয়ারেন গামালিয়েল হারডিং (১৯২১-২৩) : ‘আমাদের সবচেয়ে ভয়ানক প্রবণতা হলো সরকারের কাছ থেকে অনেক কিছু চাওয়া এবং একই সময়ে এর জন্য খুবই কম কিছু করা।’

‘হে সৃষ্টিকর্তা, নরকীয় চাকরি! শত্রুদের কাছ থেকে আমার কোনো ভয় নেই…কিন্তু আমার কাছের বন্ধুরাই সারারাত আমাকে ফ্লোরে হেঁটে বেড়াতে বাধ্য করে।’

‘উচ্চাশা প্রশংনীয়, যা ছাড়া কোনো লোকই সফল হতে পারে না। তবে অবিবেচক উচ্চাশা বিপদ ডেকে আনে।’

৩০. জন ক্যালভিন কুলিজ (১৯২৩-২৯) : ‘আমেরিকার ব্যবসা হলো ব্যবসা।’

‘আমি বলিনি এমন কোনো কিছু দ্বারা আমি কখনো আঘাতপ্রাপ্ত হইনি।’

‘চরিত্রই হলো রাষ্ট্রের একমাত্র নিরাপদ ভিত্তি।’

৩১. হারবার্ট ক্লার্ক হোভার (১৯২৯-৩৩) : ‘আলোচনার টেবিল কিংবা চুক্তির মাধ্যমে শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়, মানুষের হৃদয়ে এর উৎপত্তি।’

‘জনগণের বিষয়ে আলোচনায় গণমাধ্যমের সর্বোচ্চ স্বাধীনতা আমেরিকার মুক্তির ভিত্তিপ্রস্তর।’

৩২. ফ্রাঙ্কলিন ডেলানো রুজভেল্ট (১৯৩৩-৪৫) : ‘ভয়ই হলো একমাত্র জিনিস যেটিকে আমাদের ভয় পেতে হবে।’

‘একজন ভাল নেতা তার অনুসারীদের থেকে খুব বেশি এগিয়ে থাকেন না।’

‘অর্জনের আনন্দ ও সৃষ্টিশীল প্রচেষ্টার রোমাঞ্চেই সুখ নিহিত।’

৩৩. হ্যারি এস ট্রুম্যান (১৯৪৫-৫৩) : ‘আপনি একটি আইন পাশ করে একটি মতবাদের বিস্তৃতিকে বন্ধ করতে পারবেন না।’

‘মতবাদের প্রকাশ দেখে আমাদের ভয় পেলে চলবে না-তাদের দমনকে ভয় পেতে হবে।’

‘একজন নৈরাশ্যবাদী হলেন সেই ব্যক্তি যিনি তার সুযোগগুলোকে বিপত্তিতে পরিণত করেন এবং একজন আশাবাদী হলেন সেই ব্যক্তি যিনি তার বিপত্তিগুলোকে সুযোগে পরিণত করেন।’

৩৪. ডেভিড আইজেনহাওয়ার (১৯৫৩-৬১) : ‘এক কথায় আমেরিকাকে সবচেয়ে ভাল ব্যাখ্যা করা যায়- ব্যক্তিস্বাধীনতা।’

‘আমি কখনো দেখিনি, একজন নৈরাশ্যবাদী জেনারেল যুদ্ধে জয়ী হয়েছেন।’

৩৫. জন এফ কেনেডি (১৯৬১-৬৩) : ‘আমেরিকানরা প্রকৃতিগতভাবে আশাবাদী। তারা গবেষণামূলক, আবিষ্কারক এবং একজন স্থপতি, যাকে ভালো কিছু গড়তে বললে মহৎ কিছু গড়ে।’

‘আমার প্রিয় আমেরিকানরা, আপনাদের দেশ আপনাদের জন্য কী করতে পারে সেটি জানতে চাইবেন না, বরং জানতে চান, আপনি আপনার দেশের জন্য কী করতে পারেন।’

৩৬. লিন্ডন বেইন্স জনসন (১৯৬৩-৬৯) : ‘এখানে কোনো কৃষ্ণাঙ্গ সমস্যা নেই। এখানে কোনো দক্ষিণাঞ্চলের সমস্যা নেই। এখানে কোনো উত্তরাঞ্চলের সমস্যা নেই। এখানে শুধু একটি আমেরিকান সমস্যা আছে।… এবং আমরা একটিকে পরাজিত করব।’

‘একজন প্রেসিডেন্টের সবচেয়ে কঠিন কাজ- কী সঠিক সেটা করা নয়, বরং কী সঠিক সেটা জানা।’

‘আপনি যখন বেশি কথা বলছেন, আপনি আসলে কিছুই শিখছেন না।’

৩৭. রিচার্ড নিক্সন (১৯৬৯-১৯৭৪) : ‘সবসময়ই আপনার সর্বোচ্চটা দেন, কখনোই হতাশ হবেন না, নিজেকে ছোট ভাববেন না। সবসময় মনে রাখবেন, অন্যরা আপনাকে ঘৃণা করতে পারে। যারা আপনাকে ঘৃণা করে তারা কখনোই জিতবে না, যতক্ষণ না আপনি তাদেরকে ঘৃণা করেন। এবং তখন আপনি নিজেই নিজেকে ধ্বংস করবেন।’

‘একজন লোক যে কখনোই নিজেকে নিজের চেয়ে বড় কোনো কাজে ব্যাপৃত করেননি, তিনি তার জীবনের পর্বতসম অভিজ্ঞতা হারিয়েছেন। তিনি কেবল নিজের মধ্যেই হারিয়ে গেছেন।’

৩৮. গেরাল্ড রুডল্ফ ফোর্ড (১৯৭৪-৭৭) : ‘আমরা…২০০ বছর আগে আমাদের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলাম। এখন সেটি আমরা পেপার শাফলার ও কম্পিউটারের কাছে হারাতে চাই না।’

‘সত্য হলো সেই আঠা যা সরকারকে একত্র রাখে। আর সমঝোতা হলো সেই তেল যা সরকারতে ভাসিয়ে দেয়।’

৩৯. জেমস আর্ল কার্টার জুনিয়র (১৯৭৭-৮১) : ‘আমরা অবশ্যই পরিবর্তিত সময়ের সঙ্গে তাল মেলাব এবং তথাপি নীতি-নৈতিকতার কোনো পরিবর্তন করব না।’

‘অন্যান্য দেশে ব্যক্তিস্বাধীনতা বৃদ্ধির সর্বশ্রেষ্ঠ পন্থা হলো আমাদের গণতান্ত্রিক পক্রিয়া যে অনুসরণীয় তা এখানে প্রদর্শন করা।’

৪০. রোনাল্ড উইলসন রিগ্যান (১৯৮১-৮৯) : ‘সরকার আমাদের সমস্যার কোনো সমাধান নয়। সরকারই সমস্যা।’

‘ইংরেজি ভাষার নয়টি ভীতিকর শব্দ হলো – আমি সরকারের লোক এবং আমি এখানে আছি সাহায্য করার জন্য।’

‘তুমি যদি তাদেরকে আলো দেখাতে না পারো, তাদেরকে উষ্ণতা অনুভব করার সুযোগ করে দাও।’

‘সমাজতন্ত্র কেবল দুই জায়গাতেই কাজ করে : স্বর্গ যেখানে তাদের এটার কোনো দরকারই নেই। আর দোযখ যেখানে তাদের এটি ইতিমধ্যে আছে।’

৪১. জর্জ হারবার্ট ওয়াকার বুশ (১৯৮৯-৯৩) : ‘কেউ যদি বলে যে, আমেরিকার শ্রেষ্ঠ দিনগুলো তাদের পেছনে রয়েছে, তাহলে তাদের দেখার ভুল আছে।’

‘পৃথিবীতে যুক্তরাষ্ট্র সবচেয়ে ভাল, সুন্দর ও ভদ্র জাতি।’

‘অন্যের মতবাদকে জরিমানার আওতায় ফেলার চেষ্টা করো না।’

৪২. উইলিয়াম জেফারসন ক্লিনটন (১৯৯৩-২০০১) : ‘আমেরিকায় এমন কোনো ত্রুটি নেই যা আমেরিকায় যা সঠিক তা দ্বারা প্রতিস্থাপন করা যেতে যারে।’

‘অনেক দিন বাঁচলে আপনি ভুল করবেন। তবে যদি ভুলগুলো থেকে শিক্ষা নেন, আপনি ভাল মানুষ হতে পারবেন। আপনি প্রতিকূলতা কীভাবে সামাল দেন সেটাই দেখার বিষয়, প্রতিকূলতা আপনাকে কীভাবে আঘাত করে সেটা নয়। মূল বিষয় হলো আপনি কখনো হতাশ হবেন না, হতাশ হবেন না, হতাশ হবেন না।’

৪৩. জর্জ ডব্লিউ বুশ (২০০১-০৯) : ‘আমরা কী করেছি কিংবা কী করিনি, সেটা দ্বারা সীমাবদ্ধ নেই। আমরা কী করতে চাই, কেবল সেটি দ্বারাই সীমাবদ্ধ।’

‘আপনি যদি কোনো কিছু গভীরভাবে অনুভব না করেন, আপনি সেটি অর্জন করতে পারবেন না।’

‘আমরা সন্ত্রাসীদের বিচারের সম্মুখীন করব; কিংবা বিচারকে সন্ত্রাসীদের কাছে নিয়ে আসব। যেভাবেই হোক না কেন, ন্যায় প্রতিষ্ঠা করা হবে।’

৪৪. বারাক ওবামা (২০০৯-১৭) : ‘আমরা যদি অন্য কারো জন্য কিংবা অন্য কোনো সময়ের জন্য অপেক্ষা করি তাহলে পরিবর্তন আসবে না। আমরাই তারা যার জন্য আমরা অপেক্ষা করছি। আমরাই সেই পরিবর্তন যা আমরা খুঁজে বেড়াচ্ছি।’

‘আমরা ভবিষ্যৎকে ভয় পাওয়ার জন্য এখানে আসিনি। বরং ভবিষ্যৎকে গড়ার জন্য এসেছি।’

‘যারা দুর্নীতি ও প্রতারণার মাধ্যমে ক্ষমতায় আরোহন করেছেন, জেনে রাখুন, আপনারা ইতিহাসের ভুল পথে আছেন।’

আপনার মতামত জানানঃ