ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আইন-আদালত   »   মোরশেদ খানের মামলার পুনঃতদন্তের রায় ৯ নভেম্বর

মোরশেদ খানের মামলার পুনঃতদন্তের রায় ৯ নভেম্বর

September 1, 2016 - 11:36 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : অর্থ পাচারের মামলায় বিএনপির নেতা ও প্রাক্তন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খানসহ তিনজনের বিরুদ্ধে করা মামলার পুনঃতদন্ত বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আবেদনের শুনানি শেষ হয়েছে।

এ বিষয়ে রায় আগামী ৯ নভেম্বর ঘোষণা করবেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। অপর দিকে মোরশেদ খানের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী রোকনউদ্দিন মাহমুদ।

এর আগে গত ৫ জুন দুদকের চূড়ান্ত প্রতিবেদন গ্রহণের আদেশ কেন বাতিল এবং মামলাটি পুনরায় তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হবে না- তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। দুই সপ্তাহের মধ্যে মোরশেদ খানসহ তিনজনকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছিল। ওই সময় তাদের হংকংয়ের স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক অ্যাকাউন্টও জব্দের নির্দেশ দেন আদালত। সেই রুলের ওপর বৃহস্পতিবার শুনানি শেষ হয়েছে। এদিন আদালত রায় ঘোষণার জন্য এই দিন ঠিক করেন।

মামলার বিবরণীতে জানা যায়, মানি লন্ডারিং নিয়ন্ত্রণ আইনে ২০১৩ সালে দুর্নীতি দমন কমিশন মোরশেদ খান, তার স্ত্রী নাসরিন খান ও ছেলে ফয়সাল মোরশেদ খানের বিরুদ্ধে মামলা করে। ওই মামলায় ২০১৫ সালের জুলাই মাসে দুদক চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই ঘটনায় কোনো মানি লন্ডারিং হয়নি। ওই চূড়ান্ত প্রতিবেদন চলতি বছর ১৫ এপ্রিল বিচারিক আদালত গ্রহণ করলে মোরশেদ খান, নাসরিন খান ও ফয়সাল মোরশেদ খান অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পান।

দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান জানান, হংকংয়ের স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের ওই হিসাবটি ২০০৮ সাল থেকে এক প্রশাসনিক আদেশে জব্দ করে রাখে হংকংয়ের পুলিশ। এরপর তারা বাংলাদেশে চিঠি দিয়ে জানায়, নতুন কোনো পদক্ষেপ না থাকলে ওই অ্যাকাউন্ট তারা খুলে দেবে। এ অবস্থায় দুদক মামলাটি পুনরুজ্জীবিত করার উদ্যোগ নেয় এবং পুনঃতদন্তের জন্য বিচারিক আদালতের অনুমতি চাওয়া হয়। ঢাকার মহানগর জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ আদালত গত ২ জুন দুটি আবেদনই খারিজ করে দেন। নিম্ন আদালতের এ আদেশের বিরুদ্ধে দুদক হাইকোর্টে রিভিশন আবেদন করে।

আইনজীবী খুরশীদ আলম খান জানান, দুদক চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিলেও তিনি পরে দেখতে পান, অভিযোগপত্র দেওয়ার মতো বিষয় সেখানে ছিল। এ কারণে দুদক পরে পুনঃতদন্তের আবেদন জানায়। তিনজনের অ্যাকাউন্টে ১৬ মিলিয়ন হংকং ডলার আছে।

আপনার মতামত জানানঃ