ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  স্বাস্থ্য   »   মেহেরপুর ২৫০ শয্যার হাসপাতাল সমস্যার স্তুপে তলিয়ে যাচ্ছে

মেহেরপুর ২৫০ শয্যার হাসপাতাল সমস্যার স্তুপে তলিয়ে যাচ্ছে

October 10, 2016 - 1:33 PM

মেহেরপুর থেকে ফিরে আল-আমীন ঃ
সমস্যার পর সমস্যার স্তুপে তলিয়ে যাচ্ছে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল। পর্যাপ্ত ডাক্তার নাই, ঔষুধ নাই, যন্ত্রপাতি নাই, সিট নাই এমন হাজারো সমস্যাই হাবুডবু খাচ্ছে মেহেরপুর ২৫০ শয্যার হাসপাতাল । ফলে জেলাবাসি তাদের মৌলিক অধিকার চিকিৎসা সেবা থেকে বি ত হচ্ছে।
মেহেরপুর জেলাবাসীর উন্নত চিকিৎসার জন্য ১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয় ১০০ সিটের মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল। ২০১৩ সালের সেপ্টম্বরে তা ২৫০ বেডে রুপান্তর করা হয়। কিন্তু ২শ৫০ শয্যার সুযোগসুবিধা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে অনুমোদন না হওয়ায় আগের ১০০ শয্যার কাঠামোতে জোড়া তালি দিয়ে চলছে সবকিছু। হাসপাতালে ৪১ জন চিকিৎসক থাকার কথা থাকলেও আছেন মাত্র ১১ জন। নেই আবাসিক মেডিকেল অফিসার, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের ১২টি পদের মধ্যে ৬ টি পদ শুণ্য রয়েছে ।মেডিকেল আফিসারের পদ ১৮ টির মধ্যে আছে মাত্র ২ জন। নেই এনেসথেটিস্ট,ডেপুটি নাসিং সুপারিন্টেন্ডেট।
এই হাসপাতালে গড়ে প্রতিদিন ১ হাজার-১৫শ রোগী চিকিৎসাসেবা নিতে আসে এদের মধ্যে ২০০-২৫০ রোগী ভর্তি থাকে। ফলে রুগীরা সময়মত ডাক্তার ও ঔষুধ না পেয়ে বিনা চিকিৎসায় হাসপাতালের কাতরাছে । হাসপাতালে ৫ টি আত্যঅধুনিক অপারেশন থিয়েটর ২৪ ঘন্টা চালু থাকার কথা থাকলেও ডাক্তার ও নার্সের সংকটের অজুহাতে চালু আছে মাত্র ২টি। বছরে পর বছর ধরে নেই বিশেষজ্ঞ ডাক্তার। জেলার দুর দুরান্ত থেকে রুগীরা চিকিৎসা সেবা নিতে এসে বি ত হচ্ছেন। জুরুরী বিভাগের রুগীর চাপ বাড়লে ঘন্টারপর ঘন্টা দাড়িয়ে থেকে বিনা চিকিৎসাই রোগীদের ফিরে যেতে হয়। অফিস সময় সূচি সকাল ৯ টাই হলেও ওয়ার্ড ভিজিটের অজুহাতে বেলা ১২ টার আগে রুগীরা ডাক্তারের স্বাক্ষাৎ পাননা। %e0%a6%ae%e0%a7%87%e0%a6%b9%e0%a7%87%e0%a6%b0%e0%a6%aa%e0%a7%81%e0%a6%b0-%e0%a6%9c%e0%a7%87%e0%a6%a8%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%b2-%e0%a6%b9%e0%a6%be%e0%a6%b8%e0%a6%aa%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a6%be
বেডের অভাবে মেঝেতে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে রুগীদের । রুগীর চাপ বাড়লে হাসপাতালের বারান্দাই ময়লা আবর্জনা ও কুকুর বিড়ালের সাথেই সহ আবস্থান করতে বাধ্য হয় রুগী ও রুগীর স্বজনরা। এ সহ আবস্থানে রুগী সুস্থ হওয়ার পরিবর্তে আরো আসুস্থ হয়ে পরেন। ২শ ৫০ বের্ডের হাসপাতাল হলেও খাবার বরাদ্দ ১০০ জনের ফলে বেশী সংখ্যক রুগীকে খাবার কিনে খেতে হয় বাইরে থেকে। আর যে খাবার পরিবেশন করা হয় তা মুখে তুলতে পারেনা বলে জানিয়েছে রুগীরা। এদিকে রুগীর স্বজনদের খাবার কিনে নিয়েযেতেও ১০ টাকা দিয়ে গেট পাশ কিনতে হয়। গেট পাশ না থাকলে ঘন্টার পর ঘন্টা গেটে কর্তব্যরত দারোয়ান স্বজনদের দাড় করিয়ে রাখে। আবার কখনো রোগীর স্বজনদের তাড়াতে দারোয়ানের বাঁশির ফু শব্দে রোগীরা আতিষ্ট হয়ে উঠে। প্রসুতি বিভাগের আবস্থা আরো করুন। টাকা না দিলে প্রসুতি বিভাগে নার্সরা রুগীদের বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করে। হাসপাতাল পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য মেহেরপুর সংসদদস্য ফরহাদ হোসেনের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে আতিরিক্ত ১০জন সুইপার নিয়োগ করেছেন । কিন্তু হাসপাতালে যত্র তত্র রক্ত-পুজ মাখা গজ,বেন্ডেজ,তুলা পড়ে থাকে। হাসপাতাল চত্বরে ব্যবহিত সিরিঞ্জ, স্যালাইইন সহ রোগ জীবনিু ময়লার স্তুপ। রোগী ও রোগীর স্বজনদের মুখে রুমাল বেধে চলা চল করতে হয়।
ইন্টারনেটের মাধ্যমে রুগীর রোগ নিয়ে বিশ্বের যে কোন বিশেষজ্ঞদের সাথে যোগাযোগ করার পদ্ধতি সম্বলিত অত্যাধুনিক ৪০ লাখ টাকা মূল্যের ইকো-কার্ডিও আল্ট্রাসনোগ্রাফি মেশিন ২ টি সরবরাহকালীন সময় থেকে অকেজ হয়ে পরে আছে। প্রায় ৩৫ লক্ষ টাকা মূল্যের একটি সেন্ট্রাল ভ্যাকুয়াম প্ল­ান্ট মেশিন আচল হয়ে আছে। ৪২ লক্ষ টাকা মূল্যের তিনটি স্ট্রিম ষ্টেরিলাইজার অটোক্লেভ মেশিন চোখের উন্নত পরীক্ষা ও অপারেশনের জন্য দুইটি চক্ষু অপারেটিং মাইক্রোসকোপ ও দুইটি স্প্রিট ল্যাম্প মেশিন বিশেষজ্ঞ না থাকায় এই মেশিনটিও গৃহবন্দি হয়ে পড়ে আছে দীর্ঘকাল। এখানে হৃদযন্ত্রে আক্রান্ত মূমূর্ষ রোগীকে কৃত্রিমভাবে সচল রাখতে দুইটা প্যাথলজি মাইক্রোসকোপ ও দুইটা ডি-ফ্রেবিলেটর মেশিন থাকলেও তা অচল হয়ে আছে। স্বয়ংক্রীয় বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য অর্ধকোটি টাকা মূল্যের উ্চ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন একটা জেনারেটর দেয়া হলেও জ্বালানী বাজেট ও অপারেটর না থাকায় তা আজও চালু হয়নি।১৯৯৮ইং সাল থেকে ২০০২ সালের মধ্যে নাতাশা করর্পোরেশন ও সেন্ট্রাল মেডিকেল স্টোর ডির্পাটমেন্ট (সিএমএসডি) এই সমস্ত যন্ত্রপাতি সরবরাহ করে। অভিযোগ রয়েছে, সরবরাহকালীন সময়ে এই কম্পানীটি যন্ত্রপাতির অনেক মূল্যবান অংশ খুলে রেখে সরবরাহ করার করনেই এগুলে কখন সচল হয়নি।
এই ব্যাপারে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের যন্ত্রপাতি বিভাগের প্রধান ডা: তাপস কুমার পাল জানান, অনেক পত্র চালাচালির পর সরবরাহকারী প্রতিষ্টান কিছু যন্ত্রপাতি চালু করে দিয়েছে। অন্যান্য যন্ত্রপাতিগুলি চালু করা গেলে রোগীদের আধুনিক অনেক চিকিৎসা এখানেই করা সম্ভব হবে।
হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. মিজানুর রহমানের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,
এত স্বল্প জন বল ও রসদ দিয়ে এতবড় কাঠামো পরিচালনা করা দুরহ ব্যাপার । চাহিদা জানিয়ে বার বার উদ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষনের চেষ্টা করা হ্েচ্ছ।

আপনার মতামত জানানঃ